স্বাস্থ্য কুশল

আর নয় ধূমপান, এই হোক অঙ্গীকার

কানিজ আমেনা প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-০১-২০১৮ ইং ০০:০২:১০ | সংবাদটি ১৩৮ বার পঠিত

‘ধূমপানে বিষপান’ এ কথাটি আমরা সকলেই জানি। যারা ধূমপায়ী অর্থাৎ যারা নিয়মিত ধূমপান করেন তারাও ধূমপানের কুফল সম্পর্কে জানেন। অথচ জেনে শুনেও তারা এ অভ্যাস ত্যাগ করতে পারেন না। আসলে অনেকের ক্ষেত্রেই এটা দেখা যায় যে ধূমপান ত্যাগের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও প্রতিবার তাদের অভ্যাসের কাছে পরাজিত হয় ইচ্ছাশক্তি। আসুন ধূমপানের ক্ষতিকর দিকগুলো সম্পর্কে আবারো নতুন করে জানি। সেই সাথে এটাও জানার চেষ্টা করি যে কী উপায় অবলম্বন করলে এ বদভ্যাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তামাকপাতা থেকে যে বিড়ি বা সিগারেট তৈরি করা হয় এবং একে ধোঁয়া আকারে মুখ দিয়ে টেনে নেওয়ার মাধ্যমে ফুসফুসে যে নিকোটিন প্রবেশ করে তার রয়েছে বহুবিধ ক্ষতিকর দিক।
যেমন-
১। ধূমপান নির্মল পরিবেশকে দূষিত করে।
২। যারা ধূমপান করে না একজন ধূমপায়ী তাদের কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।
৩। ধূমপান হলো অপচয়। এতে অযথা খরচ হয় এবং ইহকাল ও পরকালের বিন্দুমাত্রও উপকার হয় না। মহান আল্লাহ্ বলেছেন, ‘তোমরা অপচয় করো না, নিশ্চয় অপচয়কারীদের আল্লাহ পছন্দ করেন না।’ (আল কোরআন)
৪। এর মাধ্যমে মন্দ কাজে সহযোগিতা করা হয়।
৫। ধূমপান দ্বারা অনর্থক কাজে মানুষের সময় নষ্ট হয়।
৬। ধূমপানের সামগ্রীসমূহ সাধারণত নাপাক ও দুর্গন্ধময় হয়ে থাকে।
৭। ধূমপানের মাধ্যমে গর্ভবতী মা ও সন্তানের ক্ষতি সাধিত হয়।
৮। ধূমপানের কারণে ফুসফুসের ক্যান্সার হয়।
৯। ধূমপানের কারণে কণ্ঠনালীতে ক্যান্সার হয়।
১০। এটি স্মরণশক্তি কমিয়ে দেয় এবং মনোবল দুর্বল করে দেয়।
১১। এটি ইন্দ্রিয় ক্ষমতা দুর্বল করে, বিশেষ করে ঘ্রাণ নেওয়া ও স্বাদ গ্রহণের ক্ষমতা লোপ পায়।
১২। অতিরিক্ত ধূমপানের কারণে দৃষ্টিশক্তি লোপ পায়।
১৩। বারবার হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।
১৪। উচ্চ রক্তচাপ দেখা দেয়।
১৫। যৌনশক্তি বিলুপ্ত হয়।
১৬। হজমশক্তি কমে যায়।
১৭। পাকস্থলী ক্ষত হতে থাকে।
১৮। যকৃত শুকিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
১৯। কিডনিতে ক্যান্সার হয়।
২০। প্র¯্রাব বিষাক্ত হয়ে যায়।
২১। প্রতিবার ধূমপানে শরীর থেকে ২৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি নষ্ট হয়ে যায়। এতোসব ক্ষতির কথা জানার পরও কি ধূমপান চালিয়ে যাওয়া উচিত? ধূমপায়ীরা হয়তো বলবেন, ছাড়তে তো চাই কিন্তু পারি না। বারবার অভ্যাস ও প্রবৃত্তির কাছে পরাজিত হতে হয়। আপনি খুব সহজেই ধূমপান ত্যাগ করতে পারেন। ধূমপান ত্যাগের পাঁচটি সহজ উপায় হলো-
১। ভিটামিন সি-যুক্ত ফল বা ফুড সাপ্লিমেন্ট খেলে সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা চলে যায়।
২। রোজ দুপুরে ও রাতে খাওয়ার পর দুধ খান। তারপর সিগারেট খেয়ে দেখুন। এমন তিতা লাগবে যে ধীরে ধীরে সিগারেট খাওয়া ছেড়েই দিবেন।
৩। অবসর সময়ে বা বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়ার সময়ে চুইংগাম চিবান। খেয়াল রাখবেন যাতে অবসর সময়ে মুখ ফাঁকা না থাকে। চুইংগাম চিবালে একই সাথে মুখের ব্যায়ামও হয়ে যাবে।
৪। মাথায় প্রচুর চাপ থাকলে সিগারেটের জন্য মন ছটফট করে। এরকম সময়ে মুখে খানিকটা লবণ দিয়ে দিন। দেখবেন আস্তে আস্তে সিগারেট খাওয়ার প্রবণতা চলে যাবে।
৫। সিগারেট খাওয়া হঠাৎ করে ছেড়ে দিলে মোটা হয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়। তাই যদি মনে করেন যে ধূমপান ছেড়ে দিবেন তাহলে আগে থেকেই যোগাসনে বসা শুরু করে দিন। নিয়মিত যোগাসন করার ফলে সিগারেট খাওয়ার প্রবণতাও ধীরে ধীরে লোপ পায়।
ধূমপান ত্যাগের জন্য আপনার ইচ্ছাশক্তিই যথেষ্ট। তাই আসুন এই সর্বনাশা ব্যাধি থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখি আর গড়ে তুলি তামাকমুক্ত সুন্দর পৃথিবী।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT