শিশু মেলা

কবিতা

প্রকাশিত হয়েছে: ২৫-০১-২০১৮ ইং ০০:২৫:৫০ | সংবাদটি ৩১ বার পঠিত

রূপের রাণী
সাজিদ মাহমুদ
রূপের রাণী বাংলা আমার
রূপে গুণে সেরা
চারিদিকে সবুজ শ্যামল
রূপ দিয়ে সে ঘেরা।

রোজ সকালে পুব আকাশে
সূর্যি মামা ওঠে
আলতো করে চুম এঁকে দেয়
রূপ কুমারীর ঠোঁটে।

সকালবেলা খেলা করে
শিশির দুর্বাঘাসে
গাঁয়ের চাষী ব্যস্ত যে হয়
মাঠে ফসল চাষে।

সন্ধ্যা হলে জোনাক জ্বালায়
মিটিমিটি বাতি
সোনার বাংলার রূপে মুগ্ধ
গোটা বিশ্ব জাতি।

সিলেটের ডাক
এম. আশরাফ আলী
সিলেটের ডাক ওরে
সিলেটের ডাক।
জনতার মাঝে তুই
থাক্ বেঁচে থাক্।
নও বারতা শুধু যাক্
দূরে যাক্,
পূর্ণ জলুস সে যে পাক্
ফিরে পাক।
দুশমন আছে যত
হোক পুড়ে খাক
লজ্জা-শরম নাক্
কাটা যাক্ বাক্
ভোরের পাখির মত
সিলেটের ডাক-
আওয়াজ বাড়িয়ে দেয়
হকারটা হাক।
সচেতন জন বলে
ভেরি গুডলাক্
এত শুধু মধু নয়
পুরো মধুর চাক্।
প্রাতঃকালে মৌ-পোক ছুটে
মধু বাক্
সংগ্রহে মধুর স্তুপ
চাকে জমা রাখ্
তেমনি আমার ‘ডাক’
মৌ-টা বিলাক্
না বলা কথার ঢেউ
যাক্ বলে যাক্।

চরণ
এস. এম. মোরাদ হাসান
স্পর্শে কাতর কোয়াশার জ্বলে
কিভাবে প্রাণ বাঁচাই
বলিনি কভু বাচালের মত
তোমাকে পেতে চাই।

কবে আসিবে পূর্ব দিগন্তে
আমি চাই তোমার চরণ
এখন অসময় কোয়াশার ভয়
চাই তোমার শক্তিময় কীরণ।

আজকের মুমিন
মুন্সি আব্দুল কাদির
চারিদিকে আজ মরিছে মুমিন
আকাশ বাতাস নড়ছে না
খোদার আরশ কাঁপে না কেন
অশ্রুঝরা থামছে না।  
তুলছে দু’হাত দুঃখ ব্যথায়
ভালবেসে হাত পাতছে না
মুসিবত বালা দূরে যাক সব
প্রভুর বিধান মানছে না।
অলি গলি চোরাপথ যত
সঠিক পথ আজ খুঁজছে না
দৌড়ায় আকা বাকা পথে
খোদার রাহে হাটছে না।
নেয়ামত ভোগে কত শত
শুকুর গুজার করছে না
বিপদ বালা আসলে হতাশ
করজোড় ক্ষমা চাইছে না।
গিলাফে মোড়া কোরআন ঘরে
পাতা উল্টিয়ে ভাবছে না
কত পথ দেখে শুনে দু’কানে
দ্বীনের কথা শুনছেনা।

বিড়াল ডাকে
কাজিল হক
বিড়াল পেটে ক্ষুধা পেয়ে
ডাকে মিউ মিউ,
কাঁটা ছাড়া অন্য খাবার
চায় না নিউ নিউ।
বিড়াল হলো মানুষ ভক্ত
থাকে পাশ পাশ,
কেউবা তাকে লাঠি মারে
পিঠে ঠাস্ ঠাস্।
বিড়াল দেখে ইঁদুর ভয়ে
কাঁপে থর থর,
ডিউটি করে মানুষ তবু
ভাবে পর পর।
বিড়াল যায় না বাড়ি ছেড়ে
কয় না হায় হায়,
দেখে মানুষ ক্যামনে কাঁটা
চিবায় খায় খায়।
বিড়াল করে খাওয়ার আশা
পাশে দেখ দেখ,
একটু খাবার দিলে তারে
পাবে নেক নেক।

সুন্দর মনের মানুষ
আশরাফুল আলম
সুন্দর একটি মনের মানুষ
কহে সুন্দর কথা,
কাউকে কভু দেয় না গালি
দেয় না কোন ব্যথা।
সুন্দর একটি মনের মানুষ
জানে না অভিমান,
কথায় কাজে কাউকে কভু
করেনা অপমান।
সুন্দর একটি মনের মানুষ
চাহে সবার ভালো,
অন্তরে তাঁর হিংসা নেই
নেই কুটিল-কালো।
সুন্দর একটি মনের মানুষ
মধুর হাসি মুখে,
আপন-পর সবাইকে সে
জড়িয়ে নেয় বুকে।
সুন্দর একটি মনের মানুষ
চাল-চলনে তাঁর,
অমনি সে মন কেড়ে নেয়
ছোট-বড় সবার।
সুন্দর একটি মনের মানুষ
জানে না কো ছলনা,
তাই তো তাঁর এ সংসারে
নেই কোনো তুলনা।

নীল কুয়াশা
জালাল জয়
চারিদিকে কুয়াশার ঢেউ
রেশমি হাওয়ায় ছুঁয়ে দেয় কেউ।
হিমেল হাওয়া উড়ে যায়
শীতের ছোঁয়ায় রোদ নিরুপায়।
শীতে করে কাঁপন সারা
তোমার খুঁজে আকুল পাড়া।
হৃদয়টান কুয়াশায় মিশে
টনটন করে হিমেল বিষে
ছলছল মিল্, ছুঁয়ে দাও দিল্।
জলে ঝলমল সুরমার নায়।
চোখে হাসি ঠোঁটে বাঁশি
কুয়াশার গায়।
নুপূরের তালে
গোলাপের গালে  
টুপটাপ জল।  
তুমি ছাড়া কুয়াশায়
নেই কোন জল।

ব্যর্থতা
মো. শাহাদাত করিম চৌধুরী
অন্তঃচক্ষু দিয়ে দেখা হলো না
দরিদ্র মানবের
অসহায় সংগ্রামী জীবন।
ধুঁকে ধুঁকে বিনা চিকিৎসায়
কত মানুষের মরণ।
চটের ছালায় ঢেকে রাখা মিছে,
শরীরের শীত নিবারণ।
লেখাও হলো না তাই
ব্যর্থ আমি চিরব্যর্থ।
অন্তঃপ্রাণ অনুভব হলো না কভু
উপবাসে থাকা মানুষের,
তীব্র ক্ষুধার জ্বালা।  
ঈদ-পূজা-বড়দিনেও যাদের
মানুষের দ্বারে ঘোরা।   
সাহায্যের আশায় চিরকাল শুধু
বিধাতার পানে চেয়ে থাকা।
বোঝাও হলো না তাই
মূর্খ আমি, মহামূর্খ।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT