পাঁচ মিশালী

কবিতা

প্রকাশিত হয়েছে: ০৬-০২-২০১৮ ইং ০০:২৬:২৬ | সংবাদটি ২৮ বার পঠিত

খুকুমণির বায়না
মুনিরা সিরাজ চৌধুরী রাজু
বাঁকা চাঁদ মিষ্টি হাসে;
সাঁঝ আকাশে ঐ।
খুকুমণি মাকে বলে;
ঈদের জামা কই?

চাই তার লাল জামা;
ফুল পাখি আঁকা।
চকচকে নোট চাই
সালামির টাকা।

ফিরনি পোলাও খাবেনা;
খাবে টক ঝাল।
চাঁদের বুড়ির সাথে যে;
করবে দেখা কাল।

একুশের চেতনা
নার্গিস মোমেনা
বাংলায় স্বাধীকার আন্দোলনের বীজ
বপন হলো একুশে ফেব্রুয়ারির দিন
আত্মপ্রত্যয়ের উজ্জ্বল স্বাক্ষর
বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলন
সচেতন জাতীয় দৃঢ় অঙ্গিকার
চুয়ান্ন’র রাজনৈতিক আন্দোলন
শিক্ষার্থীদের মাঝে এক প্রত্যয়
বাষট্টি’র ভাষা আন্দোলন
প্রতিষ্ঠান সমূহের স্বকীয়তা
ছেষট্টি’র স্বায়ত্ব শাসনের আন্দোলন
একযোগে জনতার ঐক্যমত
ঊনসত্তর’র গণ অভ্যূত্থান
ঘরে ঘরে সকলের সচেতনতা
একাত্তরের মুক্তি আন্দোলন
বাঙালির সকল সাফল্য
একুশের চেতনাই প্রধান উৎস ॥

একুশে
সানজিদা খাঁন শিমু
রক্তে রাঙানো
২১শে ফেব্রুয়ারি।
এই দিনটিতে হই
নিজ ভাষার অধিকারী।

মা’র ভাষার জন্য
শহীদ হন বীর সেনারা।
তাই এই দিনটিকে
ভুলবনা ভুলবনা।

ভাষার জন্য
নিলুপা ইসলাম নীলু
ভাষার জন্য যে দেশে
মানুষ মরতে পারে
সার্থক জনম মাগো
জনম জনম ভরে
বাংলা ভাষা বুকের ভাষা
মাতৃভাষার তরে
এই ভাষারই জন্য মোদের
কত রক্ত ঝরে
বাংলা ভাষায় বলতে কথা
করছি মরণ পণ
ভাষার তরে জীবন দিল
মায়ের বুকের ধন
বাংলা ভাষায় জারী সারী
ভাটিয়ালি গান
পল্লী গানের মধুর সুরে
প্রাণ করে হানচান
যে ভাষা নিজের নামে
গড়লো একটি দেশ
সে যে আমার প্রাণের প্রিয়
সোনার বাংলাদেশ।

একুশ
অকেয়া হক জেবু
একুশ মানে ভাষা
একুশ মানে আশা
একুশ হল মোদের
প্রিয় মাতৃভাষা।

একুশ মানে রক্তে লাল
একুশ মানে অতীত কাল
একুশ হল স্মরণীয়
১৯৫২ সাল।

একুশ মানে শহীদ স্মৃতি
একুশ মানে ভাষার প্রীতি
একুশ মানে শত্রুর ইতি।

একুশ মানে ভাষার গান
একুশ মানে রক্তদান
একুশ মানে মায়ের সম্মান।

একুশ মানে রক্তে ভেজা
পিচ ঢালা রাজপথ
একুশ মানে রফিক
সালাম জব্বার বরকত।

একুশ মানে শ্লোগান
একুশ মানে ভাষার জয়গান।

নারী
ফাতিহা ইসলাম পাপড়ি
আজো সমাজে কেন
নারীদের এতো অবহেলা
তাদের নিয়ে কেন
করা হয় খেলা।
নারীরা ঘরে কাজ
করে সারাদিন
তবুও কেন
তারা এতো মানহীন
নারীদের মতামতের
দেয়া হয়না গুরুত্ব
সমাজ দেখায় শুধু
তাদের পুরুষত্ব।
একুশ শতকেও আজ
জাহেলিয়াত যুগের অবস্থা।
কবে বদলাবে মানুষ
অতি প্রাচীন ব্যবস্থা

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT