সম্পাদকীয় মানুষ যা লাভ করেছে, তার মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ হচ্ছে সুন্দর স্বভাব। -আল হাদিস

ওয়ান স্টপ সার্ভিস

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-০৩-২০১৮ ইং ০১:২৮:৪১ | সংবাদটি ১৪৮ বার পঠিত

চালু হয়নি ওয়ান স্টপ সার্ভিস। বিগত এক বছরেও এর কোনো অগ্রগতি চোখে পড়েনি। ব্যবসায়ীদের ব্যবসা শুরুর প্রাথমিক ধাপগুলো পেরুনোর লক্ষে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নেয়া হয় গত বছর। এই সংক্রান্ত আইনের খসড়া তৈরি করা হয়। বিশ্ব ব্যাংকের সর্বশেষ ডুইং বিজনেস রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করার প্রাথমিক ধাপগুলো সম্পন্ন করতে ১৯ দিনের বেশি সময় লাগে। ধাপগুলোর মধ্যে রয়েছে-ট্রেড লাইসেন্স, নিবন্ধন, ব্যাংক হিসাব খোলা, টিআইএন ও ভ্যাট নিবন্ধন ইত্যাদি। সরকার বিনিয়োগকারীদের দ্রুত সেবা দেয়ার জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়। আইনের খসড়ায় উল্লিখিত কাজগুলো সম্পন্ন করতে সর্বোচ্চ সাত দিন সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে।
আইনের খসড়ায় সব মিলিয়ে ২৫ ধরনের সেবা দ্রুত পাওয়ার ওপর জোর দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে বর্তমানের ৪২৮ দিন থেকে কমিয়ে মাত্র ২৮ দিন এবং জমির মিউটেশন ও নিবন্ধন কার্যক্রম ২৪৪ দিন থেকে কমিয়ে একদিনে শেষ করার বাধ্যবাধকতা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে এই আইনের খসড়ায়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোনো মন্ত্রণালয়, সংস্থা বা দপ্তর এই সেবা নিশ্চিত করতে না পারলে সেবাদাতা কর্মী চাকরিতে অসদাচরণ করেছেন বলে গণ্য করা হবে। কাজগুলো সময়মতো নিশ্চিত করার জন্য বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট সব সরকারি প্রতিষ্ঠানে একটি ফোকাল পয়েন্ট, একটি টাক্সফোর্স, একটি সমন্বয় কমিটি এবং একটি নিশ্চিতকরণ কমিটি করার প্রস্তাব রয়েছে।
এ কথা নতুন করে বলার প্রয়োজন নেই যে, বাংলাদেশে সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ বাড়ছে না প্রত্যাশিতভাবে। বৈশ্বিক মন্দার মধ্যেও বাংলাদেশের সাত শতাংশের বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি হচ্ছে, একই সঙ্গে সামাজিক বিভিন্ন সূচকে সমমানের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ এগিয়ে আছে এবং ডুইং বিজনেস রিপোর্টে একশ ৯০টি দেশের মধ্যে একশ’’ ৭৬তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। রাজনৈতিক অস্থিরতাও এখন নেই বললেই চলে। তারপরেও সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ বাড়ছে না। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, পাকিস্তান মিয়ানমারের মতো অস্থিতিশীল দেশেও বাংলাদেশের তুলনায় বেশি বিদেশী বিনিয়োগ হচ্ছে। বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন ডুইং বিজনেস রিপোর্টে বাংলাদেশের অবস্থান পেছনে থাকায় বিদেশী বিনিয়োগকারীরা আগ্রহী হচ্ছে না।
সাধারণত বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট সব বিষয় ও সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় ব্যবস্থা এবং এক জায়গা থেকে অন লাইনে যোগাযোগ করার জন্য স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থাকেই বলা হয় ওয়ানস্টপ সার্ভিস। অনলাইন ভিত্তিতে এই ব্যবস্থায় বিনিয়োগকারী তার প্রয়োজন উল্লেখ করে সরাসরি আবেদন করতে পারবেন। একই সঙ্গে কোনো কাজ কোন্ দপ্তরে কী অবস্থায় রয়েছে তা-ও অনলাইনে দেখা যাবে। এই স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা বাস্তবায়নে আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতা দেবে বিশ্বব্যাংক। চলতি বছর (২০১৮) সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এই পরিকল্পনার শতভাগ সাফল্য পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টগণ। শুধু বিনিয়োগকারীদের জন্যই নয়, সাধারণ মানুষদের জন্যও উল্লিখিত বিষয়ে দ্রুত সেবা প্রদান করা জরুরি। ট্রেড লাইসেন্স, টিআইএন, ভ্যাট নিবন্ধন, ব্যাংক হিসাব খোলা, বিদ্যুৎ সংযোগ ইত্যাদি সেবাগুলো পেতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। এসব ক্ষেত্রে সকল স্তরের মানুষকেই ভোগান্তিহীন সেবা প্রদান নিশ্চিত হোক।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT