স্বাস্থ্য কুশল

মাথা ধরার ভেষজ চিকিৎসা

মুন্সি আব্দুল কাদির প্রকাশিত হয়েছে: ১৯-০৩-২০১৮ ইং ০১:৩৬:৪০ | সংবাদটি ২০৪ বার পঠিত

মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরানো রোগ অনেকেরই হয়ে থাকে। অধীকাংশ ক্ষেত্রে অন্যান্য রোগের উপসর্গ হিসেবে মাথা ব্যথা দেখা দেয়। কখনো সারা মাথা কখনো মাথার অংশ বিশেষ মাথা ব্যথা হয়। সাধারণ জ্বর হলেও মাথা ব্যথা হয়। মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, রোদ, উচ্চ রক্তচাপ, চোখের রোগ, অনিদ্রা, বিশ্রামহীনতা বা খাদ্যাভ্যাসের কারণেও মাথা ব্যথা হয়ে থাকে। নিম্নে এ রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত একক ও পরিচিত ভেষজ নিয়ে আলোকপাত করা হল :
১। পেঁয়াজ : সর্দির কারণে মাথা ব্যথা হলে ২/৩ ফোটা পেঁয়াজের রসের নস্যি দিলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
২। রসুন : সর্দি ছাড়া অন্য কারণে মাথা ব্যথা হলে ২/১ ফোটা রসুনের রসের নস্যি দিলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
৩। আদা : মাথা ব্যথা শুরুর সাথে সাথে আদা চা খেলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
৪। লবঙ্গ : মাথা ব্যথা হলে কিছু লবঙ্গ তাওয়ায় ভেজে নিতে হবে। গরম লবঙ্গগুলো একটি রুমালে নিয়ে এক মিনিট এর ঘ্রাণ নিতে হবে। তাহলে মাথা ব্যথা চলে যাবে। তাছাড়া লবঙ্গের গুড়ো ১/৪ গ্রাম দিনে ২/৩ বার গরম পানি সহ খেলে মাথা ব্যাথা সেরে যায়।
৫। আপেল : এক টুকরো আপেলে সামান্য লবণ ছিটিয়ে খেলে মাথা ব্যথা কমে যাবে।
৬। ভেরেন্ডা : ৫/৬ গ্রাম ভেরেন্ডার কচি পাতা সিদ্ধ করে ছেঁকে পানি খেলে মাথার ভার ও যন্ত্রণা কমে যাবে।
৭। মসুর ডাল : অতিরিক্ত পরিশ্রমের কারণে যদি মাথা ব্যথা হয় ২৫ গ্রাম মসুরের ডাল এক লিটার পানিতে সিদ্ধ করে ১/৪ ভাগ থাকতে নামিয়ে ছেঁকে কয়েকদিন পানিটা পান করলে উক্ত মাথা ব্যথা সেরে যাবে।
৮। মহুয়া : মহুয়া বীজের তেল মালিশ করলে মাথা ব্যথা কমে যায়।
৯। তিসি : তিসির ৪/৫ টি বীজ গরম দুধে মিশিয়ে খেলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
১০। জিরা : জিরা, আদা ও ধনের চা মাথা ব্যথার জন্য উপকারী।
১১। নিম : নিমের তেলের নস্যি দিলে মাথা ব্যাথায় উপকার হয়।
১২। কন্টকারী : কন্টকারীর গোটা পুক্ত হয়ে হলুদ রঙ ধারণ করেছে, এমন গোটা গাছের ছায়ায় শুকিয়ে চুর্ণ করতে হবে। এই চুর্ণ দিয়ে নস্যি টানলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
১৩। সেগুন কাঠ : সেগুন কাঠের গুড়ো পানি দিয়ে বেটে কপালে লেপ দিলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।
১৪। অপরাজিতা : অপরাজিতার এক টুকরো শিকড় ও গাছ এক সাথে থেতো করে ২/৩ দিন নস্যি নিতে হবে। আধ কপালী মাথা ব্যথায় ২/৩ দিন নস্যি নিলেই ব্যথা চলে যাবে।
১৫। ঝিঙে : কাঁচা ছিঙের রস ২/৩ ফোঁটা নাকে টেনে নিলে এবং সাথে ২ চামচ রস একটু গরম করে খেলে ঠান্ডাজনিত মাথা ব্যথা সেরে যায়।
১৬। শ্বেত চন্দন: শ্বেত চন্দন ঘষা পানিতে কর্পুর মিশিয়ে মাথায় ঘষলে মাথা ব্যথায় উপকার হয়।
১৭। সাজনা : সাজনা আঠা দুধে বেটে কপালে লাগালে মাথাধরায় আরাম হয়।
১৮। বাবলা : বাবলা গাছের ফুল ১০ গ্রাম, খোসা ছাড়ানো ধনে ১০ গ্রাম, লাউ বীচির শাস ১০ গ্রাম মিহি চূর্ণ করে ৩ গ্রাম করে চূর্ণ প্রত্যেহ দুই বার খালিপেটে পানি সহ সেবন করতে হবে।
১৯। কর্পুর : কর্পুর ৫০০ মিঃগ্রাঃ নিশাদল ২ গ্রাম আলাদাভাবে মিহি চূর্ণ করে নিয়ে একত্রে মিশিয়ে পরিস্কার কাঁচের শিশিতে ভরে মুখ ভালভাবে বন্ধ করে রাখতে হবে। প্রয়োজনের সময় নাকে শুঁকলে মাথা ব্যথা সেরে যাবে।
২০। চামেলী : চামেলীর তাজা পাতার ২৫ মিঃলিঃ রস ২৫০ মিঃগ্রাঃ লবণ মিশিয়ে একটি পরিস্কার শিশিতে রাখুন। ৩ ফোঁটা করে দিনে ২ বার নাকের ভিতর দিন।
২১। রাই সরিষা : ১ গ্রাম রাই সরিষা ৫ চা চামচ পানি সহ পিষে ছেঁকে নিন। এক অথবা দুই ফোঁটা নাকের ভিতরে দিলে আধকপালে মাথা ব্যথা সেরে যাবে।
২২। রিঠা : ১টি রিঠার খোসা ১২ চা চামচ পানিতে এমন ভাবে কচলান যাতে ফেনা উঠে। তারপর দুফে^াঁটা নাকের ভিতর দিন, আধকপালে ব্যথা সেরে যাবে।
২৩। বিড়ঙ্গ : আধকপালে মাথা ব্যথায় বিড়ঙ্গ ও কাল তিল চূর্ণ সমপরিমাণ নিয়ে কাপড়ের পুটলী করে নস্যি নিলে ঐ মাথা ব্যথার উপশম হয়।

 

শেয়ার করুন
স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • কোন জ্বরে কী দাওয়াই
  • মায়ের দুধ পান : সুস্থ জীবনের বুনিয়াদ
  • রোগ প্রতিরোধে মিষ্টি কুমড়া
  • আমাশয় চিকিৎসায় পরিচিত ভেষজ
  • ভাইরাল হেপাটাইটিস
  • পাইলস কি কোনো গোপন রোগ
  • শিশুর খাবারে অরুচি ও প্রতিকার
  • স্বাধীনচেতা ইবনে সিনা : চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিস্ময়
  • ধূমপান স্মার্টনেস নয় মৃত্যু ঘটায়
  • থাইরয়েড সমস্যা ও সমাধান
  • আমের বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যগুণ
  • এলোভেরা ও প্রপোলিস : দাঁতের যতেœ চমৎকার এক জুটি
  • অর্জুনের এত্তো গুণ
  • রোগ প্রতিরোধে আমলকী
  • ঔষধি গুণের ইলিশ
  • ওমেগা-থ্রি : মানবদেহে এর গুরুত্ব
  • নিরাপদ মাতৃত্ব রক্ষায় প্রয়োজন প্রশিক্ষিত ও দক্ষ মিডওয়াইফ
  • রক্ত স্বল্পতা : জনস্বাস্থ্যের প্রধান সমস্যা
  •  তাফসিরুল কুরআন
  • দেশে দেশে রোজা
  • Developed by: Sparkle IT