উপ সম্পাদকীয়

রঙচঙে দিন পহেলা বৈশাখ

ঝরনা বেগম প্রকাশিত হয়েছে: ১৪-০৪-২০১৮ ইং ০০:৩৮:৪৫ | সংবাদটি ১৬০ বার পঠিত

ঐতিহ্যের হাত ধরে নতুন সংস্কার, নতুন সংস্কৃতি, নতুন চিন্তা ধারার ¯্রােতে এসে মিলেছে আজ আমাদের উৎসব পালন। জীর্ণ, পুরনো, মিথ্যা ও অসত্যকে দূরে হটিয়ে আবির্ভূত হয় নতুন ধারা, নতুন জীবন।
সুন্দরের অগ্রপথিক, নতুনের বিজয় কেতন ১লা বৈশাখ। বৈশাখের প্রথম দিনে দেশটা হয়ে ওঠে উৎসবমুখর। উৎসবের রঙে নিজেকে রাঙাতে এই দিনে কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই। মানুষ এই দিনে রোজকার চেনা রুটিন হাওয়ায় জড়িয়ে দিয়ে মেতে ওঠে উদ্যাপনে। হয়ে যায় আনন্দে মাতোয়ারা। ঘরবাড়ি ধুয়ে মুছে সবাই পরিস্কার করে। প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ব্যবসায়ীরা মনের মাধুরী মিশিয়ে সাজাবার চেষ্টা করেন। মেঘের কাছ থেকে যেভাবে মানুষ জল ভিক্ষা করে, ঠিক তেমনি ব্যবসায়ীরা নতুন বছরে সকল ক্রেতাদের মিষ্টি খাইয়ে বিধাতার কাছে প্রার্থনা করেন ব্যবসার উন্নতি এবং সমৃদ্ধি। বাংলা নববর্ষের প্রথম প্রহর তাই আমাদের আনন্দে মেতে ওঠার দিন। কালবৈশাখী ঝড়কে এ দিন ঝড় মনে হয় না। মনে হয় নতুনের কেতন। কবি নজরুল তাই বুঝি বলেছেন-
তোরা সব জয়ধ্বনি কর/ ঐ নতুনের কেতন উড়ে কালবোশেখী ঝড়/ তোরা সব.....
আধুনিক সভ্যতার এই যুগে যতই আমরা শিল্প শিল্প বলে চেঁচাই, ডিজিটাল ডিজিটাল বলে মাথার ঘাম পায়ে ফেলি না কেন, কৃষিই আমাদের গর্ব। কৃষিই আমাদের জীবিকার প্রধান হাতিয়ার। আর এই কৃষিতেই ভর করেই বাংলা নববর্ষের এ উচ্ছাস, এ আনন্দ, উদ্যমতা। এই প্রাণের মেলা, উৎসব, খাজনা, হালখাতা, পুণ্যাহ-সবই কৃষিনির্ভর দেশের বৈশাখের আয়োজন, বরণ ঢালা।
হাজারো প্রতিকূলতা এবং নানা সমস্যায় জীর্ণ জীবন মুহুর্তেই হুটহাট এলোমেলো করে দেয় বৈশাখী হাওয়া। সব ওলট-পালট করে দেয়। এ এক যন্ত্রণা বটে। তবে সব নেতিবাচক দেয়াল খসে পড়ে। ইতিবাচক হয়ে ধরা দেয় আনন্দ, হর্ষ-উল্লাস। বৈশাখ যেন ভালো লাগার, ভালোবাসার পূর্বাভাস। আশপাশের ভাবনায় ডুবে গিয়ে আপনার মন মাঝে মাঝে বৃদ্ধের মতো আচরণ করতেই পারে। তাতে মন খারাপ করার কিছুই নেই। সব গ্লানি এবং জরাকে মুছিয়ে দিয়ে বৈশাখের রঙে নিজেকে রাঙিয়ে তুলুন। নিজের ভেতরটাকে নতুন করে আবিস্কার করুন। দেহ-মন দু’টুকেই আপডেট করে নিন বৈশাখের এই রৌদ্র-তাপে।
বৈশাখের রঙে নিজেদের রাঙিয়ে তুলতে তরুণদের তুলনা নেই। নববর্ষের সবটুকুই তাই তারুণ্যনির্ভর। রমনা, চারুকলা কিংবা বকুল তলা-সবখানে তারুণ্যের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। তবে প্রবীণদেরও এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা উচিত বলে আমি মনে করি। কেন না, এতে মনের বিষণœতা দূর হয়। রিলাক্স মুডে থাকে মন। চারপাশের সবকিছুই ফ্রেশ লাগে। বাঁচার ইচ্ছা জাগে মনে। তাই তরুণরা যখন রমনার বটমূলে অথবা চারুকলায় যায় ছবি তুলে ফেসবুকে ছবি দিতে, শ্লোগান দেয় মঙ্গলের জন্যে, পান্তা-ইলিশ দিয়ে সকালের নাশতা সারে, বৈশাখের প্রথম প্রহরে-‘এসো হে বৈশাখ...এসো, এসো-বলে গলা মেলায় ঠিক তখন মুক্তমনা প্রবীণদেরও তাঁদের সাথে একাত্মতা পোষণ করা উচিত, অংশ গ্রহণ করা উচিত। তরুণরা যখন পাড়া-মহল্লা সাজায় বৈশাখী সাজে তখন প্রবীণদেরও তাঁদের উৎসাহ দেওয়া এবং সাহায্য সহযোগিতা করা উচিত। এতে নবীন-প্রবীণের মেলবন্ধনটা চমৎকার ভাবে ফুটে উঠে।
বিগত বছরের সব দুঃখ ভুলে যান বৈশাখের এই রঙিন দিনে। হাসি মুখে বরণ করে নিন নতুন বছরকে। সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের মিশেলে সাজান পহেলা বৈশাখ। প্রিয় মানুষটিকে মনের কথা জানান রঙচঙে বৈশাখের এই দিনে। রৌদ্র-ঝড়ে জীবনের ছেঁড়া পাল যতই আরও ছিঁড়ে যাক না কেন মা- বাবা’র মতো অতি প্রিয় কিছু মুখ মৃত্যুর মধ্য দিয়ে দূর অজানায় চলে যাক না কেন-তবু তরি বাইতে হবে আপনাকেই। সব কিছু গোছাতে হবে। মঙ্গঁল প্রদীপ জ্বালাতে হবে। থেমে গেলে হবে না। কাঁদলে হবে না। সাগর মাঝি আপনাকেই তো হতে হবে। উঠে দাঁড়ানোর দিন তো আজই। পহেলা বৈশাখ! কালকের ঘরে তালা লাগান। অতীতকে ভুলে যান-শুরু করুন দৈনিক জীবন-যাপন। মনে মনে বলুন-খরভব রং ংড়হম, / খবঃ ঁং ংরহম রঃ/ খরভব রং ঢ়ড়বস/
খবঃ ঁং খবধৎহ রঃ./
বৈশাখের পহেলা দিনে মুছে যাক আপনার- আমার সকলের মনের সব গ্লানি। অগ্নি¯œানে সূচি হোক ধরা। রসের ও আবেস ও রাশি শুষ্ক করে দিক আসি। প্রলয়ের-আনন্দের শাখ নিয়ে এসো হে বৈশাখ! এসো এসো---। আনন্দের বার্তা নিয়ে আসুক নববর্ষ সবার জীবনে। শুভ নববর্ষ!
লেখক : আইনজীবি, কলামিস্ট।

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • প্রসঙ্গ : রিকসা ভাড়া
  • পেছন ফিরে দেখা-ক্ষণিকের তরে
  • অবাধ ও সুষ্ঠু নিবার্চনের প্রত্যশা
  • শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির প্রসার
  • বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার
  • বাংলাদেশের উৎসব
  • ‘শান্তি জিতলে জিতবে দেশ’
  • মানবাধিকার মুক্তি পাক
  • অদম্য বাংলাদেশ
  • নারী আন্দোলনে বেগম রোকেয়া
  • আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও জনমানস
  • অরিত্রী : অস্তমিত এক সূর্যের নাম
  • স্বপ্নহীন স্বপ্নের তরী
  • মৌলভীবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান
  • নয়া রাষ্ট্রদূত কী বার্তা নিয়ে এসেছেন?
  • ফেসবুক আসক্তি
  • কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় পৌরসভা প্রসঙ্গে
  • শিক্ষার্থীদের শাস্তি এবং অরিত্রী প্রসঙ্গ
  • রাষ্ট্রায়ত্ত বৃহৎ শিল্প টিকিয়ে রাখা ও উন্নয়ন জরুরি
  • হাফিজ মোবাশ্বির আলী
  • Developed by: Sparkle IT