ইতিহাস ও ঐতিহ্য

কেমুসাসের কাচঘেরা বাক্সে মোগল স¤্রাটের হাতে লেখা কুরআন

তাসলিমা খানম বীথি প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-০৫-২০১৮ ইং ০০:২৮:৪৮ | সংবাদটি ১৪৩ বার পঠিত

কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাপ্তাহিক সাহিত্য আসরের উপস্থাপনার জন্য প্রতি বৃহস্পতিবারে আমাকে যেতে হয়। তবে লাইব্রেরীতে মাঝে মাঝে গেলেও পবিত্র কুরআন শরিফটি দেখা হয়নি কখনো। সেদিন গিয়েছিলাম স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা পবিত্র কুরআন শরিফটি দেখতে। কেমুসাসের লাইব্রেরীর সুশীতল ভবনের কাটের বাক্সের ভেতরে রাখা পবিত্র কোরআন শরিফ দেখে শুধু মুগ্ধই হয়নি, নিজেকে গর্বিত ভাগ্যবতি মনে হচ্ছে, এই ভেবে যে কেমুসাসের জীবন সদস্য হতে পেরে। যে সাহিত্য প্রতিষ্ঠানে পদচারণা করেছেন অনেক জ্ঞানীগুণী ব্যক্তিরা। মানুষের জীবনে কখন কী ঘটে তা কেউ বলতে পারে না। তেমনি আমিও ভাবেনি। কেমুসাসের সাথে, সাহিত্যের সাথে আমার আত্মার সম্পর্ক গড়ে ওঠবে।
সিলেটের সাহিত্যচর্চায় যে প্রতিষ্ঠানটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা, অবদান রেখে যাচ্ছে, তা হলো কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ। এই প্রতিষ্ঠানটি ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে লেখক সৃষ্টির লক্ষ্যে আজো ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সিলেটে সাহিত্যচর্চার জন্য এটি হচ্ছে সকল লেখকদের প্রাণকেন্দ্র। কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সূত্র থেকে জানা যায়, এখানে রয়েছে স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা কুরআন শরিফ। ১৯৪৬ সালে খান সাহেব আবদুল করিম মোগল সেনাদের যুদ্ধ পোশাক ও ঢালের বিনিময়ে নেপালিজ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে এ কুরআন শরিফটি সংগ্রহ করেন। এ কুরআন শরিফটি সংগ্রহে রয়েছে চমকপ্রদ এক কাহিনী।
মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম মুম্বাই শহরে আগর-আতরের ব্যবসা করতেন। সে সময় তার পরিচয় হয় নেপালিজ এক ব্যবসায়ীর সাথে। সেই নেপালির সংগ্রহে ছিল মোগল স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা একটি কুরআন শরিফ। তিনি এ দুর্লভ পবিত্র গ্রন্থটি কাশ্মির থেকে সংগ্রহ করেছিলেন। পরে তিনি কুরআন শরিফটি নিজ বাড়ি সিলেটের জৈন্তাপুর হেমু গ্রামে নিয়ে আসেন। মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম নিয়মিত এ কুরআন শরিফটি তেলাওয়াত করতেন বলে জানা যায়।
আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা পবিত্র কুরআন শরিফটি সংরক্ষণের প্রয়োজন মনে করেন মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম। সেই অনুযায়ী তিনি ১৯৪৯ সালে এ কুরআন শরিফটি সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে দান করেন। সেই থেকে আজ পর্যন্ত মোগল স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা কুরআন শরিফটি কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে সংরক্ষিত রয়েছে। স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা এই পবিত্র কুরআন শরিফটিতে রয়েছে চমৎকার নকশাসহ স¤্রাটের সংক্ষিপ্তভাবে প্রতিটি আয়াতের তফসির। পবিত্র এই কুরআন শরিফটি দেখতে প্রতিদিন লেখক, সাহিত্যিক, দর্শনার্থীরা কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে এসে জড়ো হন। কেমুসাসের সাবেক সভাপতি কবি রাগিব হোসেন চৌধুরীর তথ্য সূত্রে জানা যায়, স¤্রাটের হাতে লেখা কুরআন শরিফ বাংলাদেশে একমাত্র কপি এটি। মোগল স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা এই পবিত্র কুরআন শরিফটিতে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য সংসদের পড়ার কক্ষে কাঁচ ঘেরা একটি সুদৃর্শ্য বাক্সে সংরক্ষিত রয়েছে। যে কেউ চাইলেই গিয়ে দেখে আসতে পারেন মোগল স¤্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা প্রাচীনতম এই পবিত্র কুরআন শরিফ।

শেয়ার করুন
ইতিহাস ও ঐতিহ্য এর আরো সংবাদ
  • বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা অতীত ও বর্তমান
  • নাটোরের জমিদার রানী ভবানী
  • ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়
  • সাহিত্য সাময়িকী নিশানা
  • জলসার একাল-সেকাল
  • স্তম্ভবিহীন মসজিদ
  • বাংলার ঐতিহ্যবাহী পিঠা
  • হারিয়ে যাচ্ছে খেজুর গাছ
  • গ্রামের কথা
  • প্রাচীন গড় কিভাবে গৌড় হল
  • চায়ের দেশ পর্যটকদের ডাকে
  • মুক্তিযুদ্ধকালীন সিলেট অঞ্চলের পত্রপত্রিকা
  • স্মৃতি ও চেতনায় বঙ্গবন্ধু
  • পার্বত্য তথ্য কোষ
  • সাত মার্চের কবিতা ও সিলেট বেতার কেন্দ্র
  • পার্বত্য তথ্য সংকটের মূল্যায়ন
  • সিলেটের প্রাচীন ‘গড়’ কিভাবে ‘গৌড়’ হলো
  • ৮৭ বছরের গৌরব নিয়ে দাঁড়িয়ে সরকারি কিন্ডারগার্টেন প্রাথমিক বিদ্যালয় জিন্দাবাজার
  • খেলাফত বিল্ডিং : ইতিহাসের জ্যোতির্ময় অধ্যায়
  • এক ডিমের মসজিদ
  • Developed by: Sparkle IT