প্রথম পাতা মুক্তিযোদ্ধারা দান-দক্ষিণা বা করুণার পাত্র নয়, তারা জাতির সূর্য্য সন্তান ----------------দানবীর ড. রাগীব আলী

রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের নগদ অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ অব্যাহত মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে দানবীর ড. রাগীব আলীর মত ব্যক্ত

স্টাফ রিপোর্টার: প্রকাশিত হয়েছে: ২৮-০৫-২০১৮ ইং ০৪:৪০:২৯ | সংবাদটি ১৭৩ বার পঠিত

 দানবীর ড. রাগীব আলীকে মুক্তিযোদ্ধাদের পরম বন্ধু বলে অভিহিত করলেন সিলেটের মুক্তিযোদ্ধারা। তারা বলেন, বুকে অগাধ দেশপ্রেম আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করছেন বলেই দানবীর ড. রাগীব আলী সবসময় মুক্তিযোদ্ধাদের সুখে দুখে তাদের পাশে রয়েছেন। দানবীর ড. রাগীব আলী মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসে সংগঠকের ভূমিকা পালন করে দেশ স্বাধীনের পর দেশে এসে এ পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছেন, ব্যক্তি উদ্যোগে কেউ এরকম কাজ করেছেন বলে নজির নেই। সেই ১৯৯০ সালে সিলেটের প্রথম সারির কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে পুরো বিভাগের দরিদ্র মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে তিনি যে কাজ শুরু করেছিলেন, আজ পর্যন্ত তার এই কল্যাণমূলক কাজ অব্যাহত রয়েছে।
গতকাল রোববার মানবকল্যাণে নিবেদিত প্রতিষ্ঠান রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন উপজেলার দুস্থ মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের মধ্যে নগদ অর্থ ও বস্ত্র বিতরণকালে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাবেক কমান্ডাররা এসব কথা বলেন।
মুক্তিযোদ্ধারা আরো বলেন, দানবীর ড. রাগীব আলীর লিডিং ইউনিভার্সিটিতে এ পর্যন্ত ৪শ’ এর উপরে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানরা বিনামূল্যে উচ্চশিক্ষা অর্জন করেছে। তিনি গৃহহীন মুক্তিযোদ্ধাদের জমি কিনে এ পর্যন্ত ১৮টি পাকা দালান বাড়ি নির্মাণ করে দিয়েছেন, প্রতি বছর ৩-৪ জন করে গরীব মুক্তিযোদ্ধাদের রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের খরচে পবিত্র হজ¦ পালনে প্রেরণ, বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নে মুক্তিযোদ্ধা ভবন নির্মাণ ও আর্থিক সহযোগিতা প্রদান অব্যাহত রয়েছে।
রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের সচিব শায়খুল হক চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সমাজসেবামূলক অসংখ্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান দানবীর ড. রাগীব আলী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার এডভোকেট রফিকুল হক, গোয়াইনঘাট উপজেলার পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার লুৎফুর রহমান লেবু, জকিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার খলিলুর রহমান, সাবেক কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার আব্দুল খালিক, দক্ষিণ সুরমার বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার শফিকুর রহমান, বিয়ানীবাজারের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার বাবুল আক্তার, গোলাপগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার শফিকুর রহমান, বালাগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার আফতাব আহমদ, সিলেট সদরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার হাজী মখলিছুর রহমান এবং হাজী ইরশাদ আলী, ফেঞ্চুগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কমান্ডার বাচ্চু মিয়া, বাঘার বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার তুতা মিয়া, কোম্পানীগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেন, জৈন্তাপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার সুয়েব আহমদ, জকিগঞ্জের বাঘার বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিক প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে দানবীর ড. রাগীব আলী বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা দান-দক্ষিণা বা করুণার পাত্র নয়, তারা জাতির সূর্য্য সন্তান। ঘরবাড়ি, পরিবার পরিজন ফেলে তারা দেশ রক্ষায় যুদ্ধে চলে গিয়েছিলেন। যুদ্ধের পর দেশ স্বাধীন হয়েছে, কিন্তু তারা অনেকে ফিরেননি, কেউ আবার পঙ্গু হয়ে ফিরেছেন, কেউ এসে দেখেছেন পাক বাহিনী তান্ডব চালিয়ে তার ঘরবাড়ি সর্বস্ব ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশের জন্য জীবন বাজি রাখা এসব বীরদের ও তাদের সন্তানদের জন্য আমাদের অনেক কিছু করার আছে। আমাদের মনে রাখতে হবে অনেক মুক্তিযোদ্ধা আর্থিকভাবে দরিদ্র হতে পারেন। কিন্তু দেশ প্রেমের জন্য তারা জাতির শ্রেষ্ট সন্তান, তারা সকলের কাছে সম্মানের পাত্র।
দানবীর ড. রাগীব আলী বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা যে কোনো সময় যে কোনো কাজে আমাকে পাশে পাবেন। মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে আমি যেসব কাজ করেছি, আগামীতেও তা অব্যাহত থাকবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট রফিকুল হক বলেন, এখন মুক্তিযোদ্ধারা সরকারি ভাতাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন। কিন্তু যে সময় সরকারিভাবে এদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো সাহায্য করা হয়নি, সেই সময়েও দানবীর ড. রাগীব আলী সিলেটের বিভিন্ন উপজেলায় গিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কাজ করেছেন। এখন পর্যন্ত তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে রয়েছেন। এর পেছনে তার রাজনৈতিক কোনো উদ্দেশ্য নেই। রফিকুল হক বলেন, মুক্তিযুদ্ধ করেছি বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে দেশ রক্ষার জন্য। কিছু পাওয়ার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করিনি। যখন থেকে দেখেছি দানবীর ড. রাগীব আলী নিঃস্বার্থভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কাজ করছেন, তখন থেকেই তার কাজকে সমর্থন করে মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে তার হাত আরো প্রসারিত করতে তাকে উৎসাহিত করেছি। তার মধ্যে অগাধ দেশপ্রেম আছে বলেই তিনি অন্ধের মত মুক্তিযোদ্ধাদের ভালোবাসেন।
তিনি বলেন, দানবীর ড. রাগীব আলীর রাজনৈতিক শক্তি নেই, লাইন ঘাট নেই, লাঠিয়াল বাহিনী ও অস্ত্রবাজ নেই। তাই তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। কিন্তু মনের শক্তিতে ও সাধারণ মানুষের ভালোবাসায় তিনি সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে যাচ্ছেন। দানবীর ড. রাগীব আলীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের আপনি যেভাবে মনে প্রাণে ভালোবাসেন মুক্তিযোদ্ধারাও আপনাকে মনেপাণে ভালোবাসেন, সবসময় আপনার পাশে আছেন।
জকিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান বলেন, সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যত সুযোগ সুবিধার ঘোষণা দিয়েছে, সাধারণ মুক্তিযোদ্ধারা কিন্তু সকল স্থানে গিয়ে সবসময় এসব সুবিধা ভোগ করতে পারেনা। কিন্তু দানবীর ড. রাগীব আলীর সকল প্রতিষ্ঠানে নির্দ্বিধায় মুক্তিযোদ্ধারা সকল সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন। তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য সরকারি চাকরিতে যে কোটা রয়েছে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধাদের নানাভাবে অপমান করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এসব অপমানে আঘাত ও দুঃখ পেয়েছেন। কিন্তু দানবীর ড. রাগীব আলীর মত দেশ প্রেমিকদের প্রতিষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের জন্য কোটাবিহীন অবারিত সুযোগ সুবিধা রয়েছে।
সাবেক কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গরীব মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দানবীর ড. রাগীব আলীর কাছে যখন যা চেয়েছি তা পেয়েছি। তিনি একজন সাদা মনের মানুষ। তার বড় দুর্বলতা হলো তিনি গড ফাদার নন। তিনি পেশি শক্তিতে বলিয়ান নন। তিনি যে সম্পদ অর্জন করেছেন তা সমাজ ও গরীব মানুষের কল্যাণে ব্যয় করছেন। এর জন্য ষড়যন্ত্রকারীরা নানা সময় নানাভাবে সাদা মনের এই মানুষটিকে গায়েল করতে চেষ্টা করে। কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীরা ঠিকে থাকতে পারেনা। তারা পালিয়ে যায়। তাদের ষড়যন্ত্র জাতির কাছে ধরা পড়ে। আব্দুল খালিক বলেন, আমি এ পর্যন্ত ৪বার যুক্তরাজ্য সফর করেছি। মুক্তিযুদ্ধে দানবীর ড. রাগীব আলী যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে গিয়ে দেশের স্বাধীনতার জন্য অর্থ তুলেছেন এবং সংগঠকের কাজ করেছেন সেটা প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকদের কাছে শুনেছি। দেশের কল্যাণে তার এই কাজ এখন পর্যন্ত অব্যাহত আছে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার লুৎফুর রহমান লেবু বলেন, ড. রাগীব আলী দেশ ও সমাজের কল্যাণে কাজ করছেন। অসহায় গরীব মানুষের মুখে হাসি ফুটাচ্ছেন। মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য তার হৃদয়ে ভালোবাসা রয়েছে। এটা দেখে আমরা তার সাথে কাজ করছি। তাকে ভালোবেসেছি।
আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বুকে ধারণ করে আছি। রাগীব আলী আমাদের বন্ধু। কিন্তু যারা আদর্শচ্যুত তারা স্বার্থের জন্য ড. রাগীব আলীর কাছে এসে তার পা ধরে, তার গুণ কীর্তণ করে। কিন্তু ড. রাগীব আলীর বিপদে তারা আবার তার বদনাম করে। রাগীব আলী মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যা করেছেন এবং এখনও যা করছেন তার জন্য তিনি কোনো কিছু চাননি। তার রাজনৈতিক নেতা হওয়ারও কোনো ইচ্ছা নেই।
বিয়ানীবাজারের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার বাবুল আক্তার বলেন, দানবীর ড. রাগীব আলীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র দেখে গরীব মুক্তিযোদ্ধারা চোখের পানি ফেলে তার জন্য কাঁদতে দেখেছি আমি। সকল ষড়যন্ত্র ছিন্ন করে আজ তিনি আবার গরীব মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তিনি বলেন, অনেকেই রাগীব আলীর দুর্দিনে তার বিরুদ্ধে কথা বলেছে। এরাই বিড়ালের মত রাতের অন্ধকারে তার কাছে গিয়ে নিজের স্বার্থ আদায় করেছে। এদের অনেককে দেখেছি রাগীব আলীর পায়ে পড়ে স্বার্থ উদ্ধার করে আর্থিকভাবে লাভবান হতে।
সিলেট সদরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার হাজী ইরশাদ আলী বলেন, ড. রাগীব আলীর সমাজসেবামূলক কাজ দেশে বিদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যেসব কাজ করছেন তা মুক্তিযোদ্ধাদের মুখে মুখে রয়েছে। সবাই তার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করছে। এই দোয়ার ফলেই তিনি এখন পর্যন্ত এই বয়সে সুস্থ শরীরে সহি সালামতে আছেন।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • তালতলায় অগ্নিকান্ড ॥ বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা
  • খালেদা জিয়ার মুক্তি যৌক্তিক-ন্যায়সংগত দাবি: ড. কামাল
  • বিছনাকান্দিতে পানিতে ডুবে পর্যটকের মৃত্যু
  • আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে স্কাউটের বিকল্প নেই ---------------- পরিবেশ ও বনমন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন
  • অগ্নিকান্ডের কারণ খতিয়ে দেখবে তদন্ত কমিটি
  • চকবাজারে আগুনে হতাহতদের জন্য দোয়ায় রাষ্ট্রপতির অংশগ্রহণ
  • জনগণের আস্থার মর্যাদা আমাদের দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
  • চকবাজারে ট্র্যাজেডি হয়তো এড়ানো যেত : কাদের
  • চকবাজারে অগ্নিকান্ডে ৬৭ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু
  • বিশ্বনাথে গাড়ি দুর্ঘটনায় যুবক নিহত
  • সিলেটবাসীর স্বাস্থ্যসেবার প্রত্যাশা পূরণ করবে এ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ---স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক
  • ভাষা আন্দোলনের চেতনায় উন্নতির উঁচু শিখরে আরোহণ করতে হবে
  • নিহত ৪৬ জনের পরিচয় শনাক্ত
  • একুশের প্রথম প্রহরে
  • স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকার জন্য জামায়াতের ক্ষমা চাওয়া উচিত : বিএনপি
  • ভাষা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য সুরক্ষা করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
  • চতুর্থ ধাপে ১২২ উপজেলায় ভোট ৩১ মার্চ
  • যুক্ত হলো আরেকটি স্প্যান ১২শ মিটারে পদ্মা সেতু
  • নাইকো: খালেদা হাজির না হওয়ায় পিছিয়েছে শুনানি
  • সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৪৯ জন শপথ নিয়েছেন
  • Developed by: Sparkle IT