শেষের পাতা

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ত্রিপক্ষীয় সমঝোতায় যুক্তরাষ্ট্রের সায়

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-০৬-২০১৮ ইং ২৩:২০:১৬ | সংবাদটি ১০৭ বার পঠিত

ডাক ডেস্ক : নির্যাতনের মুখে রাখাইন ছেড়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনে সহযোগিতা নিশ্চিতে মিয়ানমারসহ ত্রিপক্ষীয় সমঝোতাকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।
দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়ার্ট গত বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান।
এতে বলা হয়, “নিজ আবাসভূমিতে অথবা নির্বাচিত স্থানে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ এবং টেকসই প্রত্যাবাসনে অনুকূল পরিস্থিতি তৈরিতে ইউএনএইচসিআর, ইউএনডিপি এবং মিয়ানমার সরকারের মধ্যে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি।”
গত বুধবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে শ্রম, জনসংখ্য ও অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এ সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করে ইউএনএইচসিআর ও ইউএনডিপি।
এর আগে এপ্রিলে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে সহযোগিতার জন্য সমঝোতা স্মারকে সই হয় জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে।
সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ইউএনএইচসিআর সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক এবং ইউএনএইচসিআরের মহাপরিচালক ফিলিপো গ্র্যান্ডি এই সমঝোতা স্মারকে সই করেন।
ওই সময় ইউএনএইচসিআর থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশে থাকা শরণার্থীরা মিয়ানমারে ফেরার আগে তাদের নাগরিকত্বের অধিকার এবং রাখাইনে নিজ ভূমিতে সকল মৌলিক অধিকার নিয়ে নিরাপদে বসবাস করার নিশ্চয়তা চায়।
মিয়ানমারের সমাজকল্যাণ এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসনমন্ত্রী উইন মিয়াত আয়ে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শনে এসে জানিয়েছিলেন, মিয়ানমারের আইন অনুযায়ী যত তাড়াতাড়ি তারা ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড নেবে, তত দ্রুত তারা নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারবে।
এই প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসরণ করতে ইউএনএইচসিআর বরাবর আহ্বান জানিয়ে আসছে।
রাখাইনে রোহিঙ্গা দমন অভিযানকে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ বলে আসছে জাতিসংঘ । আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এ রোহিঙ্গা সঙ্কটকে এশিয়ার এ অঞ্চলে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড় শরণার্থী সমস্যা হিসেবেও দেখা হচ্ছে।
মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নে দেশ ছাড়তে বাধ্য হওয়া লাখ লাখ রোহিঙ্গার মানবিক সঙ্কট যে এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বড় উদ্বেগের বিষয়, জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসও সে কথা বলেছেন।
এই পরিস্থিতিতে ত্রিপক্ষীয় সমঝোতাকে যথার্থ পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে যুক্তরাষ্ট্র।
আস্থা নির্মাণে এই চুক্তি ভূমিকা রাখবে জানিয়ে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “এই প্রত্যাবাসন বাস্তবায়িত হলে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে মানবিক সাহায্য নিয়ে পৌঁছানো যাবে। একই সঙ্গে অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে মিয়ানমারকে সহযোগিতার মাধ্যমে রাখাইনবাসীদের সুরক্ষা ও পুনর্বাসন করা সম্ভব হবে।”
চুক্তি অনুযায়ী, মিয়ানমার সরকারকে জাতিসংঘের সংস্থা দুটির সঙ্গে একযোগে কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে কাজ করারও আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • লোক নাট্যউৎসবের দ্বিতীয় দিনে ‘আলকাপ পঞ্চরস’ মঞ্চস্থ
  • বিশ্বনাথে খরস্রোতা সুরমা নদী এখন মরা খাল
  • খালেদার নাইকো দুর্নীতি মামলার পরবর্তী শুনানি ৪ ফেব্রুয়ারি
  • একুশে আগস্ট মামলায় দন্ডিত দুই সাবেক আইজিপির জামিন
  • নব-নির্বাচিত কমিটিকে বরণ
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাতে ইউএনএইচসিআরের ড. মোমেনের আহ্বান
  • গ্রেপ্তার কায়সার হামিদ কারাগারে
  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জর্ডানের রাজকন্যা
  • সিলেট-তামাবিল সড়কের মেজরটিলায় স্পিড ব্রেকার না থাকায় দুর্ঘটনা বাড়ছে
  • বাংলাদেশের কৃষি জমি দ্রুত হারিয়ে যাচ্ছে
  • সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের সাথে চেম্বার সভাপতির সৌজন্য সাক্ষাৎ
  • বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়লো খাসিয়াদের তিন বসতঘর
  • মৌলভীবাজার মাদক নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান কারাগারে
  • নতুন প্রজন্মকে মহানবী (সা:) জীবনাদর্শ চর্চা করতে হবে
  • পারিবারিক শিক্ষার মাধ্যমে শিশুদের গড়ে তুলতে হবে
  • সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ৩ দিনব্যাপী চিত্র প্রদর্শনী শুরু
  • দক্ষ পরিবহন শ্রমিক দিয়ে গাড়ি চালালে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে
  • ডিমের খোসা পরীক্ষা করেই পাওয়া যাবে শক্তিশালী বাচ্চা
  • নতুন নৌপ্রধান আওরঙ্গজেব
  • শিক্ষার্থীদের দেশ ও মানবপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে
  • Developed by: Sparkle IT