বিশেষ সংখ্যা

ঈদের আনন্দ হোক সবার ঘরে

সৈয়দ আছলাম হোসেন প্রকাশিত হয়েছে: ১৪-০৬-২০১৮ ইং ০২:০২:৩১ | সংবাদটি ২৮ বার পঠিত

মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে বৎসরে দুটি ঈদই সবচেয়ে আনন্দের। ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা। এই ঈদের দিন সবাই নতুন কাপড় পরে বড়দেরে সালাম করে মসজিদে গিয়ে একত্রে ঈদের নামাজ আদায় করে। পাশাপাশি প্রতিটি পরিবারে হয় অতিরিক্ত কিছু রান্না বান্না, যা মেহমানদারী ও নিজে খাওয়ার জন্য প্রস্তুত করা হয়।
পবিত্র মাহে রমজান একমাস সিয়াম সাধনার পর রোজাদার বান্দা ধর্মীয় বিধান মত ঈদের দিন বাড়তি আনন্দের সুযোগ হয়। রোজাদারদের পাশাপাশি ছোট ছেলে মেয়েরাও খুশি করতে ব্যস্ত থাকে। ঈদ মানেই খুশি, এটা কাউকে নতুন করে বলে দিতে হয় না। সবাই ঈদের অপেক্ষা করে খুশি ভাগ করার জন্য। কিন্তু আমরা কি জানি এই ঈদের আনন্দ সবার ঘরে পৌছে কিনা?
ঈদের দিনেও যারা মন ভরে আনন্দ করতে পারে না তারা হলেন যার ঘরে মা, বাবা, ভাই, বোন, ছেলে, মেয়ে বা নিকট আত্মীয় কেহ মারা যান। তারা হারানোর বেদনায় ঈদের খুশি ভোগ করতে পারে না।
খোদার ডাকে সবাই সাড়া দিতে হয়। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে ঐ সব পরিবারে সমবেদনা প্রকাশের জন্য পাশে গিয়ে দাড়ানো ও শান্তনা দেয়া। যেহেতু এটা আল্লাহর হুকুম আমরা ইচ্ছে করলেই ঐ মৃত ব্যক্তিকে ফিরিয়ে আনতে পারবো না। দ্বিতীয়ত যার ঘরে অসুস্থ্য মানুষ আছেন অথবা ঈদের দিনে নিজ ঘরে না থেকে হাসপাতালে অসুস্থ্য অবস্থায় পড়ে আছেন তাদের আমরা সমবেদনা প্রকাশ করার জন্য যেতে হবে, ঐ রোগীকে দেখতে পারলে ও খাবার কিছু নিয়ে দেখা করলে ঐ রোগী যেমন খুশি হবেন আমাদের প্রভুও খুশি হবেন। আমরা চেষ্টা করবো অসুস্থ্য ব্যক্তির খোজ খবর নেয়া। তারপর শুধু আপনি আপনার ঘর ও বাড়ির মধ্যে ঈদের খুশি ভাগাভাগী করলে হবে না আপনার পার্শ্বের বাড়ি ও প্রতিবেশিরা কেমন আছে, কি খাবার আছে না আছে তার খবর নিতে হবে। সম্ভব হলে ওদেরকে ঈদের কাপড় বা ঈদের খাদ্য বিতরণ করে সবাই মিলে ঈদের আনন্দ ভাগ করতে হবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আমরা ঈদের আনন্দ ঘরে ঘরে ভাগ করে দিয়ে গিয়ে যখন এমন কাউকে পাই যার নিজস্ব কোনো ঘর নাই। তার জন্য আমাদের সবার কষ্ট হয়। আমরা অনেকে একাধিক কাপড় কেনাকাটা করি, যার কাপড় আছে তাকে আরো একটি কাপড় উপহার দিয়ে স্বাচ্ছন্দ বোধ করি।
আমরা কি ভেবে দেখেছি এই ঈদে নতুন কাপড় দূরের কথা অনেকে পুরাতন একটি জামা পাওয়ার জন্য আপনার হাতের দিকে চেয়ে আছে। আল্লাহ আপনাকে অনেক টাকা দিয়েছেন, অনেকে দু’বেলা পেট ভরে খাবার সুযোগ পায় না। আমরা ঈদের আনন্দ সবার কাছে পৌঁছে দেয়ার লক্ষে যাদের সামর্থ্য আছে তারা এতিম, অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিতদেরকে কিছু ঈদের খাবার একটি নতুন কাপড় কিনে দিয়ে তাদেরকে আমাদের সাথে এক হয়ে ঈদের আনন্দ ভোগের সুযোগ করে দেই। হয়তো একটি অসহায় মানুষের মনের হাসিটুকু আপনার জান্নাতের দরজা খোলে দিতে পারে। আসুন আমরা ঈদের আনন্দ পৌঁছে দেই সবার ঘরে। আল্লাহ আমাদেরে অসহায়দের মুখে হাসি ফুটানোর তৌফিক দান করুন। আমিন।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT