সম্পাদকীয়

উন্নয়ন প্রকল্পে লুটপাট

প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-০৬-২০১৮ ইং ০১:১৫:৫৪ | সংবাদটি ৫৯ বার পঠিত

‘সরকারি উন্নয়ন কাজে দুর্নীতি-লুটপাটের ঘটনা ঘটছে অহরহ। প্রতিনিয়ত ঘটে চলেছে সীমাহীন দুর্নীতি। কিন্তু প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেই। প্রতি বছর সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি অনিয়ম ও অপচয়ের ঘটনা ধরা পড়ে। অথচ চিহ্নিত দুর্নীতিবাজরা কোনো শাস্তি পায় না। বছরের পর বছর এই ধারা চলতে থাকায় সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতি বেড়েই চলেছে। ফলে একদিকে অপচয় হচ্ছে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের অর্থ, অপরদিকে পরিকল্পনা অনুযায়ী অবকাঠামো নির্মাণ না হওয়ায় দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প তদারকির কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তারা দুর্নীতির তথ্য উদঘাটনে বরাবরই হতাশ। বিভিন্ন জরিপে প্রাপ্ত তথ্য হচ্ছে, সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পে বরাদ্দ অর্থের ৬০ থেকে ৭০ শতাংশই লুটপাট হচ্ছে।
এমন কোনো সরকারি দপ্তর বা প্রতিষ্ঠান নেই, যেখানে দুর্নীতি হয় না। সরকারি অফিস আদালতে একদিকে সাধারণ মানুষকে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে, অপরদিকে সরকারিভাবে বাস্তবায়িত বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ লুটপাট হচ্ছে, অপচয় হচ্ছে। সরকারি অফিসে ঘোষণা দিয়ে কোনো কাজ করানো যায় না। রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের ক্ষেত্রে প্রকল্প গ্রহণ থেকে শুরু করে অনুমোদন ও বাস্তবায়ন পর্যন্ত স্তরে স্তরে ঘুষ দিতে হয়। ব্যয় করতে হয় অবৈধ অর্থ। সরকারের উচ্চ স্তরের কর্মকর্তাসহ পিয়ন, দারোয়ান এবং মাঠ পর্যায়ের সরকারি ঠিকাদাররা প্রকল্পের অর্থ লুটপাটের সঙ্গে জড়িত। এই লুটপাটের ঘটনা অনেক সময় প্রকাশ্যেই ঘটে থাকে। এটা দেখার কেউ নেই। যাদের ওপর তদারকির দায়িত্ব রয়েছে, তারাই এই অর্থ আত্মসাতের সঙ্গে জড়িত।
অর্থনীতিবিদসহ বেসরকারি সংস্থা বিভিন্ন সময় এ ব্যাপারে জরিপ পরিচালনা করে। এতে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। এর একটি হলো ১৯৭৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে সরকার যে অর্থ ব্যয় করেছে তার ৬০ থেকে ৭০ শতাংশই লুটপাট হয়েছে। শুধু বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিই নয়, অন্যান্য খাতের প্রকল্পেও একইভাবে লুটপাট হচ্ছে। অনেক প্রকল্প গ্রহণ করাই হয় কারচুপির মাধ্যমে বরাদ্দ অর্থ লুটপাটের উদ্দেশ্যে। অনেক দপ্তর রয়েছে যেখানে প্রকল্পের নামে বরাদ্দ অর্থ অনেক সময় পুরোটাই হজম করে ফেলে সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ চক্র। আর দুর্নীতি ও কারচুপির মাধ্যমে বাস্তবায়িত রাস্তাঘাট অবকাঠামো কিছু দিনের মধ্যেই ভেঙ্গে যাওয়ার ঘটনাতো ঘটছেই।
বিশেষজ্ঞদের মতে, দুর্নীতি অনেকক্ষেত্রে রাজনৈতিক পর্যায় থেকে হতে থাকে। এসব দুর্নীতির পেছনে থাকে রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা। তাই এই দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া অনেক সময়ই সম্ভব হয় না। প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ছত্রছায়ায় চলে আসছে সরকারি প্রকল্পের সব দুর্নীতি লুটপাট। এখানে উল্লেখ করা জরুরি যে, সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন পরিস্থিতি তদারকির কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান বাস্তবায়ন, পরীবিক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ কার্যত: ব্যর্থ। তারা দুর্নীতির ঘটনা উদঘাটন করে ঠিকই, তবে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। সেই ক্ষমতা তাদের নেই। তারা শুধু এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করতে পারে। আর এই সুপারিশের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না বলেই দুর্নীতি সর্বগ্রাসী রূপ নিয়েছে। তাই যেভাবেই হোক, সরকারি অর্থ লুটপাটকারীদের বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এ ব্যাপারে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি সবচেয়ে জরুরি।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT