শেষের পাতা

বাংলাদেশ কাতারসহ ১৬ দেশকে পেছনে ফেলেছে

প্রকাশিত হয়েছে: ২৫-০৬-২০১৮ ইং ০৩:২১:২৮ | সংবাদটি ৮৮ বার পঠিত

ডাক ডেস্ক : পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেছেন, ‘বাংলাদেশ গেল ১০ বছর হত দরিদ্র ছিল। কিন্তু এখন আর হত দরিদ্র নেই। বিশ্ব অর্থনীতিতে এই এক দশকে বাংলাদেশ ১৬ দেশকে ডিঙ্গিয়েছে। আগামী ২২ বছরে এ দেশ আরও ২২ দেশকে পেছনে ফেলবে।’

গতকাল রোববার রাজধানীর গুলশানে লেকশোর হোটেলে সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ- সিপিডি আয়োজিত প্রস্তাবিত বাজেটে নিয়ে পর্যালোচনায় তিনি বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্পর্কে এ তথ্য দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘গতবার যখন সিপিডি প্রোগামে এসেছিলাম, তখন হতদরিদ্র হিসেবেই এসেছিলাম। এখন আমরা হতদরিদ্র নেই। কিছু দিন আগেই জাতিসংঘ আমাদের উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি দিয়েছে। তার আগে বিশ্বব্যাংক নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের স্বীকৃতি দেয়।’

‘দরিদ্র শ্রেণির বন্ধনি থেকে আমরা বেরিয়ে আসতে পেরেছি। আরও একটি সুখবর হচ্ছে- ১০ বছর আগে পৃথিবীর অর্থনীতিতে আমাদের অবস্থান ছিল ৫৮তম দেশ। এই ১০ বছরে আমরা ১৬টি দেশকে ডিঙ্গিয়ে- আমাদের অবস্থান এখন ৪২তম স্থানে। এই ১৬টি দেশ হলো- ফিনল্যান্ড, স্লোাভাকিয়া, রোমানিয়া, নিউজিল্যান্ড, কাতার, ভিয়েতনাম, পর্তুগাল, গ্রিস, পেরু, ইরাক, আলজেরিয়া, কাজাখস্তান, হাঙ্গেরি, কুয়েত, সুদান ও তেল সমৃদ্ধ দেশ ভেনেজুয়েলা।’

আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে এই ৪২ থেকে উন্নত দেশে পাড়ি দেয়া। এটা আমারা করতে পারবো ইনশাল্লাহ।’

তিনি বলেন, ‘আমরা যদি ১০ বছরে ১৬টি দেশকে টপকাতে পারি, তাহলে ২০৪১ সালে আমাদের উন্নত দেশ হওয়ার যে স্বপ্ন আছে, তা পূরণ করতে পারবো। প্রতি বছর একটি করে দেশকে পিছিয়ে ফেলে ২২ বছরে ২২টি দেশকে টপকে যাবে বাংলাদেশ। তখন বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশের অবস্থান হবে ২০তম। আমরা জি-২০ বা এলিট ক্লাসে পৌঁছে যাবো।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের যে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা তা হয়তো আমরা অর্জন পারিনি। এর পেছনে মূল সমস্যা হচ্ছে- পাওয়ার। এনার্জি না থাকলে ইন্ডাস্ট্রি হয় না। আর এটা না হলে আউটপুটও পাবেন না। আর রপ্তানিরও কোনও ব্যবস্থা থাকবে না।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই) সভাপতি ব্যারিস্টার নিহাদ কবির উপস্থিত ছিলেন।

বাজেট পর্যালোচনা ও সুপারিশ আলোচনায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন। সিপিডি’র সম্মাননীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান সংলাপে সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন। আর সভাপতিত্ব করেন সিপিডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান।

পরিকল্পনামন্ত্রী এ সময় ব্যাংক খাতে অনিয়মকারি কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান। তিনি বলেন, ব্যাংকিং খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে আরো শক্তিশালী করা হবে। তিনি বলেন, অনিয়মের জন্য ফারমার্স ব্যাংকের ১৪ জনকে জেলে পাঠানো হয়েছে। তবে যারা নিয়ম মেনে ব্যবসা করবে তাদেরও সব ধরনের সহযোগিতা করবে সরকার।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • সিলেটের বিচারিক কার্যক্রম দেখে প্রধান বিচারপতির সন্তোষ প্রকাশ
  • ওসমানী বিমানবন্দরে সাড়ে ৪ কেজি স্বর্ণ জব্দ ॥ এক ব্যক্তি আটক
  • নতুন প্রজন্মকে দেশ প্রেমের চেতনায় উজ্জীবিত হতে হবে ............নুমেরী জামান
  • দোয়ারাবাজারে পর্ণোগ্রাফি ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে আটক ৭
  • বিশ্বনাথে মৃত ব্যক্তির ওরুসের নামে আসামাজিক কর্মকান্ড পন্ড
  • চোরাচালান রোধসহ বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ
  • দন্ড স্থগিত, নওয়াজকে মুক্তির নির্দেশ
  • নির্বাচনে বিএনপি সহিংসতা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিহত করা হবে : কাদের
  • এই সরকারের একদিন বিচার হবে: ফখরুল
  • কতগুলো প্রতিষ্ঠান ও কবে এমপিওভুক্ত, নির্ভর করছে যাচাই-বাছাইয়ের ওপর: শিক্ষামন্ত্রী
  • হাতির আক্রমণে কুলাউড়া যুবদল নেতা শামিম নিহত
  • কালিঘাটে ব্যবসায়ীর জায়গা দখল চেষ্টার অভিযোগ
  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধিত হয়েছে -------এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ
  • ‘নিরীহ নেতাকর্মীদের উপর গায়েবী মামলার পরিণতি শুভ হবে না’
  • সিলেট বিভাগে মাঝারী ধরণের বৃষ্টি হতে পারে
  • মৌলভীবাজারে ডাকা আজকের হরতাল প্রত্যাহার
  • শাবির ব্যবসায় প্রশাসনের নতুন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মোছাদ্দেক
  • সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে ব্লু বার্ড স্কুলের ছাত্র গুরুতর আহত
  • আড়াই লাখ বাংলাদেশি পাবেন পাকিস্তানের নাগরিকত্ব
  • রোহিঙ্গাভারে ‘মারাত্মক’ ঝুঁকিতে কক্সবাজারের পরিবেশ
  • Developed by: Sparkle IT