সম্পাদকীয়

ঝুঁকিতে শিশুরা

প্রকাশিত হয়েছে: ১০-০৭-২০১৮ ইং ০০:৪৪:০৬ | সংবাদটি ৬৭ বার পঠিত

ঝুঁকিতে শিশুরা। দারিদ্র্য, সংঘাত ও লিঙ্গবৈষম্যের কারণে ঝুঁকিতে রয়েছে বিশ্বের অর্ধেকের বেশি শিশু। বিশ্বজুড়ে চলমান সংঘাত, দারিদ্র্য ও লিঙ্গ বৈষম্য এই তিন প্রতিবন্ধকতার যে কোন একটি মোকাবেলা করতে হচ্ছে বিশ্বের কমপক্ষে একশ’ ২০ কোটি শিশুকে। আর একসঙ্গে তিনটি প্রতিবন্ধকতার মুখে রয়েছে ১৫ কোটি ৩০ লাখ শিশু। একটি আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এই তথ্য দিয়েছে। তাদের মতে, গত এক বছরে ৭৫টি দেশের মধ্যে ৫৮টি দেশের শিশুদের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, স্বাধীনতা ও নিরাপত্তা ঝুঁকি বেড়েছে। তবে শিশুদের পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে ৯৫টি দেশে। ২০১৫ সালে জাতিসংঘ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো ২০৩০ সালের মধ্যে তারা বিশ্বের প্রতিটি শিশুর জীবন, শিক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে সেই প্রতিশ্রুতি ব্যর্থ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। তাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারগুলোর শিশু সুরক্ষায় ভূমিকা রাখতে হবে।
দেখা গেছে, দারিদ্র্য কবলিত দেশগুলোতে ঝুঁকির মুখে বাস করছে প্রায় একশ’ কোটি শিশু। আর ২৪ কোটি শিশুর জীবনকে প্রভাবিত করছে যুদ্ধজনিত সংঘাত। তাছাড়া, নারীদের বিরুদ্ধে বৈষম্য স্বাভাবিক বিষয় এমন দেশে ঝুঁকির মুখে ৫৭ কোটি ৫০ লাখ কন্যা শিশু। এসব শিশুর শৈশব ও ভবিষ্যতের সম্ভাবনা হারিয়ে গেছে। শুধু তাই নয়, বৈশ্ব্যিক জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেও নানাভাবে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে শিশুরা। জাতিসংঘ বলছে সহ¯্রাদ্ধ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও লিঙ্গীয় সমতার ভিত্তিতে বিশ্বের শিশু দারিদ্র্য অর্ধেকে নামিয়ে আনার পরিকল্পনা ব্যর্থ হওয়ার পথে। কারণ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এশিয়া এবং আফ্রিকার সাহারা অঞ্চলের দেশগুলোতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ায় ওইসব অঞ্চলে শিশু মৃত্যুর বর্তমান সংখ্যার সঙ্গে প্রতি বছর আরও ৪০ হাজার থেকে দেড় লাখ শিশুর মৃত্যু যোগ হবে। জলবায়ুর পরিবর্তনের ফলে ম্যালেরিয়ার মতো ঘাতক ব্যাধিও ছড়িয়ে পড়বে। এর শিকার হবে শিশুরা। জাতিসংঘের মতে, শুধু ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতি বছর কমপক্ষে আট লাখ মানুষ মারা যাবে এই অঞ্চলে।
দারিদ্র্য, সংঘাত, লিঙ্গবৈষম্যসহ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, স্বাধীনতা, নিরাপত্তার অভাবজনিত কারণে বিশ্বের কোটি কোটি শিশু রয়েছে ঝুঁকির মধ্যে। আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের একটি উন্নয়নশীল দেশের জন্য সমস্যাটি প্রকট নিঃসন্দেহে। এখানে লাখ লাখ শিশু ছিন্নমূল অবস্থায় পথে ঘাটে ফুটপাতে বেড়ে উঠেছে। এদের লেখাপড়া তো দূরের কথা, দু’বেলা দু’মুঠো খাবারের ব্যবস্থা নেই। এছাড়াও শিশুদের একটা বড় অংশ রয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে লিপ্ত। সরকার নিষিদ্ধ করেছে শিশুশ্রম। কিন্তু তা কার্যকর হচ্ছে না। বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা কর্মসূচি চালুর প্রায় তিন দশক হতে চললো, কিন্তু সবার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত হয়নি এখনও। তাছাড়া, গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োজিত অসংখ্য শিশু নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। অথচ শিশুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ইউনিসেফ ঘোষিত সনদে বাংলাদেশও স্বাক্ষর করেছে। এই সনদ বাস্তবায়নের দায়িত্ব যেমন আমাদের, তেমনি এতে স্বাক্ষরদানকারী বিশ্বের অন্যান্য দেশেরও।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT