প্রথম পাতা

লামাবাজারে শিক্ষক দম্পতিকে অজ্ঞান করে জরুরি জিনিসপত্র লুট

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-০৮-২০১৮ ইং ০৩:০১:৩৪ | সংবাদটি ৩১৫ বার পঠিত

 সিলেট নগরীর লামাবাজার এলাকায় এক শিক্ষক দম্পতির পরিবারের সদস্যদের অজ্ঞান করে স্বর্ণালংকারসহ জরুরি জিনিসপত্র নিয়ে গেছে একদল প্রশিক্ষিত চোর। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ছায়াতরু ৫৬ নং বাসার ৩য় তলায় শামসুল আলম নামের এক শিক্ষকের বাসায় এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত ওই শিক্ষক দম্পতি স্বাভাবিক হতে পারেননি। খবর পেয়ে পুলিশ বাসায় গিয়ে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।
স্বজনরা জানান, শামসুল আলম ও তার স্ত্রী দুজন পেশায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। একজন বালাগঞ্জে ও অন্যজন দক্ষিণ সুরমায় শিক্ষকতা করছেন। সোমবার রাতে প্রতিদিনের মতো রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন তারা। সকাল গড়িয়ে দুপুর হলেও কেউ ঘুম থেকে জাগেননি। কাজের মেয়ে পারভীন রাতের বেলা একটা ছেলেকে বাসায় দেখলেও সে ভালোভাবে তাকে চিনতে পারেনি। সেও তেমন কিছু বলতে পারছে না।
সকালে স্কুলে না যাওয়ায় তার সহকর্মীরা শামসুল আলমের ফোনে যোগাযোগ করেন। কিন্তু, কেউ ফোন রিসিভ করেননি। দুপুরে শামসুল আলমের স্ত্রীর বড় ভাই হাফিজ উদ্দিন বাসায় এসে দরজা ভেতর থেকে তালা লাগানো দেখেন। কাজের মেয়ে কোনো রকম দরজা খুলে দিলেও সেও তেমন কিছু বলতে পারছিল না।
হাফিজ উদ্দিন তার ভগ্নিপতি ও বোন এবং ভাগনাকে জাগানোর চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন। এরই মধ্যে লামাবাজার পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসকরা ধারণা করছেন, তাদের স্প্রে জাতীয় কিছু প্রয়োগ করে অজ্ঞান করা হয়।
এদিকে, পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে যে কক্ষের ভেতর দিয়ে দরজা লাগানো ছিলো, সেই দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে দেখা যায়, জানালার গ্রিলের একটি রড ভাঙা। ধারণা করা হচ্ছে, এই পথ দিয়েই চোর ঘরে প্রবেশ করে। তবে, জরুরি জিনিসপত্রের মধ্যে কি কি খোয়া গেছে-সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না।
পরিবারের সদস্যরা জানান, শিক্ষক শামসুল আলমও তার পরিবারের সদস্যরা এখনো স্বাভাবিকভাবে কিছু বলতে পারছেন না। ডাক্তারের পরামর্শে তারা বেশিরভাগ সময় জুড়ে ঘুমিয়ে সময় পার করছেন। ওসমানী হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ঘুমের ঘোর কেটে গেলে তারা এমনিতেই স্বাভাবিক হয়ে উঠবেন।
মঙ্গলবার রাত ৮টায় বাসায় গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষক দম্পতি স্বজনদের সাথে কথা বলতে চাইলেও চোখ মেলে তাকাতে পারছেন না।
এ ব্যাপারে লামাবাজার পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ শাহীন মিয়া জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ফাঁড়ি থেকে মাত্র কয়েক গজ দূরে এমন একটি ঘটনা কিভাবে ঘটলো জানতে চাইলে শাহীন মিয়া বলেন, বিষয়টি চুরির। একটি জানালার গ্রিল কেটে চোর ভেতরে ঢুকেছে। অভিযোগ পেলে পুলিশ যথাযথ ব্যবস্থা নেবে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

 

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • পৌরসভায় উন্নীত বিশ্বনাথ
  • ‘রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎসব’ উদযাপন কমিটি পুনর্গঠন
  • রক্তদান একটি মানবিক কাজ --------দানবীর ড. রাগীব আলী
  • বিভাগীয় শহর হলেই ফরিদপুর সিটি কর্পোরেশন
  • বিএনপির এমপি হারুনকে ৫ বছরের কারাদন্ড
  • আত্মরক্ষার্থে ভোলায় গুলি চালিয়েছে পুলিশ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • সরকারি চাকুরেদের গ্রেফতারের অনুমতির বিধান নিয়ে হাই কোর্টের রুল
  • ওমর ফারুক ও তার পরিবারের ব্যাংক লেনদেন স্থগিত
  • বোরহানউদ্দিনের সেই শুভসহ তিনজন কারাগারে
  • ভোলায় ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ‘সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের’
  • বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতে শ্রমিকের নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র --------------মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার
  • সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশের অনুমতি পায়নি ঐক্যফ্রন্ট
  • আসামের গুয়াহাটিতে বাংলাদেশ ভারত স্টেক হোল্ডার বৈঠক আজ
  • বাবা ও দুই চাচা ফের রিমান্ডে
  • শাবি’র তৃতীয় সমাবর্তন ৮ জানুয়ারি
  • ওয়ার্ড-ইউনিয়নের সম্মেলন না করেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা
  • প্রধানমন্ত্রী ভোলার ঘটনায় ধৈর্য্যরে আহ্বান জানিয়েছেন দেশবাসীর প্রতি
  • ওয়ান স্টপ সার্ভিস একপে, একসেবা ও একশপ উদ্বোধন করেন সজিব ওয়াজেদ জয়
  • ওমর ফারুককে যুবলীগ চেয়ারম্যান থেকে অব্যাহতি
  • ‘জনগণ ভোট দিতে পারেনি’ বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন মেনন
  • Developed by: Sparkle IT