সম্পাদকীয়

ফিটনেস বিহীন যানবাহন ঘটাচ্ছে দুর্ঘটনা

প্রকাশিত হয়েছে: ১৬-০৮-২০১৮ ইং ০০:৩৫:৪৭ | সংবাদটি ১২২ বার পঠিত

ফিটনেস ছাড়া গাড়ি চালানোতেই দুর্ঘটনা। এই অভিমত প্রকাশ করেছে খোদ বিআরটিএ (বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরিটি)। তারা আদালতে দাখিলকৃত প্রতিবেদনে বলেছে ফিটনেস নেই সরকারী, বেসরকারী ও ব্যক্তিগত বিভিন্ন প্রকার মোটরযানের। আর এই ফিটনেসবিহীন যানবাহনের জন্যই প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। প্রতিবেদনে বলা হয় ইদানিং লক্ষ করা যাচ্ছে সরকারী, বেসরকারী ও ব্যক্তিগত বিভিন্ন প্রকার মোটরযানের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নবায়ন না করেই গাড়ি চালানো হচ্ছে। এই বেআইনী কর্মকা-ের ফলে সড়কপথে দুর্ঘটনাসহ নানা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে। বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান সম্প্রতি হাইকোর্টে এই প্রতিবেদন দাখিল করেন। ফিটনেস সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও রুট পারমিট এর মতো অপরিহার্য্য কাগজপত্র আপডেট ছাড়াই দেশে যখন লাখ লাখ যানবাহন চলাচল করছে, তখন বিআরটিএ’র এই প্রতিবেদন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
অদক্ষ-লাইসেন্সবিহীন চালকেরা ফিটনেসবিহীন যানবাহন নিয়ে রাস্তায় চলাচল করছে আর অহরহ দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে। ব্যাপারটি নিয়ে ইদানিং বেশ তোড়জোড় চলছে। বিশেষ করে, নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী পরিচালিত শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে যানবাহনের বৈধকাগজের বিষয়টি আলোচনায় এসেছে বেশী করে। পরিবহন খাতে চলছে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি। এনিয়ে নতুন করে বলার প্রয়োজন নেই। কিন্তু সেই ‘নৈরাজের গভীরতা বা ব্যাপ্তি কতোটুকু তার হয়তো অনেকটাই কিছুদিন আগেই জানা ছিলো না দেশবাসীর। সম্প্রতি যখন দেখা গেলো গণপ্রতিনিধি, মন্ত্রী, এমপি, সরকারী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা থেকে শুরু করে ভিআইপিদের গাড়ির বৈধ কাগজপত্র নেই, তখন সাধারণ মানুষের বিস্ময়ের ষোলোকলা পূর্ণ হয়েছে। সমাজের মাথা হিসেবে আবির্ভূত হয়ে যেসব ব্যক্তি সাধারণ মানুষের ওপর ছড়ি ঘুরাচ্ছে, বলছে নীতিবাক্য, তারা নিজেরাই কোন নীতিনৈতিকতার ধার ধারেন না। অর্থ-বিত্ত আর ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তারা বৈধ্য কাগজপত্র বিহীন বিলাসবহুল গাড়ি হাকিয়ে যাচ্ছে রাস্তায় দিনের পর দিন।
একটি পরিসংখ্যানের তথ্যা হচ্ছে- পাঁচশ ৩৬ দিনে সারাদেশে বিভিন্ন সড়কে দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে চার হাজার আটশ’ একজনের। পরিসংখ্যানটি গত সপ্তাহের। নিরাপদ সড়কের দাবীতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে দেশে পরিচালিত হয় বিশেষ ট্রাফিক সপ্তাহ। আর এই ট্রাফিক সপ্তাহ চলাকালেই বেপরোয়া যান বাহনের চাপায় অনেকের মৃত্যু হয়েছে। চালকেরা সরকারের ট্রাফিক সপ্তাহ পালন কিংবা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ‘চ্যালেজ’ করেই এইসব দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে বলেও অনেকের অভিমত। বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ আদালতে স্বীকার করেছেন ফিটনেসবিহীন যানবাহনের কারণে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। কিন্তু তিনি এটা স্বীকার করছেন না যে, এই যানবাহন গুলোর ফিটনেস যাচাই করার দায়িত্ব বিআরটিএ’র এবং এই দপ্তরের ঘুষখোর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কারণেই অদক্ষ চালক ও ফিটনেসবিহীন যানবাহনগুলো সড়কে মৃত্যুর মিছিল প্রতিদিনই দীর্ঘ করে চলেছে। সুতরাং বিআরটিএ’র দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারী ও দালাল চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে চালক হেলপারদের মধ্যে মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত করতে না পারলে সড়ক পথ নিরাপদ হবে না।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT