স্বাস্থ্য কুশল

মেপে খান মাংস

শামসুন্নাহার নাহিদ প্রকাশিত হয়েছে: ২৭-০৮-২০১৮ ইং ০০:৫৬:০১ | সংবাদটি ১৭২ বার পঠিত

প্রতিটি মানুষের প্রতিদিন যে পরিমাণ প্রোটিনের প্রয়োজন, সেটি মেপে মাংস খাওয়াই উত্তম। কোরবানির সময়ও এর ব্যতিক্রম না করাই ভালো। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ প্রতিদিন তার ওজনের অনুপাতে ১ গ্রাম করে প্রোটিন খেতে পারেন। অর্থাৎ কারো ওজন ৬৫ কেজি হলে তিনি দৈনিক ৬৫ গ্রাম প্রোটিন খেতে পারবেন। তবে এর মানে এই নয় যে তাকে ৬৫ গ্রাম মাংসই খেতে হবে। কারণ ১০০ গ্রাম মাংসে প্রোটিন থাকে ২৬ গ্রাম। অতএব, দিনে ২০০ গ্রামের বেশি মাংস খেতে পারবেন। আর খাসির মাংসে থাকে ২৭ গ্রাম। তবে পুরো প্রোটিনের চাহিদা মাংস দিয়ে পূরণ না করাই ভালো। এর বাইরে একটু বেশি পরিমাণ মাংস খেলে খুব বেশি সমস্যা নেই। তবে অনেকে অতিরিক্ত পরিমাণ মাংস খেয়ে ফেলেন, যা শরীরের ওপর বিশেষ চাপ সৃষ্টি করে বিরূপ প্রভাব ফেলে। এতে দেখা দিতে পারে অ্যাসিডিটি কিংবা ডায়রিয়ার মতো সমস্যা।
চর্বি থেকে সাবধান : বেশি চর্বিযুক্ত মাংস না খাওয়াই ভালো। বিশেষ করে যাঁদের হৃদপি-ে জটিলতা রয়েছে, তাদের জন্য এই চর্বিযুক্ত মাংস বিষের মতো। উচ্চ রক্তচাপ আছে যাদের, তাদের চর্বিযুক্ত মাংস এড়িয়ে চলতে হবে। তারা মাংসের চর্বি ফেলে কিংবা বেশি সিদ্ধ করে মাংস খেতে পারেন। অতিরিক্ত মাংস খেলে হঠাৎ করে ওজন বেড়ে যেতে পারে। এসব বিষয় খেয়াল রেখে মাংস খেলে অসুবিধা নেই।
শুধু মাংস নয় : মাংস খাওয়ার সঙ্গে শরীরের এনার্জির সামঞ্জস্য রাখতে হবে। তাই মাইক্রো নিউট্রিয়েন্ট জাতীয় খাবার ঠিকমতো গ্রহণ করতে হবে। যেমনÑ ভাত-রুটি জাতীয় শর্করা খাবার থাকতে হবে। আরো থাকতে হবে সবজি ও সালাদ। মাংস ও সবজি দিয়ে তরকারি রান্না করতে পারেন। যেমনÑ বাঁধাকপি ও মাংসের ঝোল ঝোল রেজালা। এতে খাবারে ব্যালান্স থাকবে। চর্বি শরীরের জন্য ক্ষতির কারণ হবে না। কোরবানির ঈদের পর বেশি মাংস খেলে এর পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণ পানি খেতে হবে। সে ক্ষেত্রে মাঠা, জল জিরা এমন ধরনের তরল খাবারও গ্রহণ করতে পারেন।
রান্না : যতটা সম্ভব কম চর্বিযুক্ত মাংস রান্না করতে হবে কিংবা চর্বি ফেলে দিতে হবে। মাংস হালকা তেলে কাবাব করে বা পুড়িয়ে খেলেই বেশি ভালো। এতে চর্বির মাত্রা কমে যায়। রেজালা করতে পারেন। তবে মাংস অতিরিক্ত মসলা দিয়ে বেশি ভাজা না করাই ভালো। যেমনÑ পুড়িয়ে কালাভুনা। এতে মাংসের প্রোটিন বাদে অন্য যেসব উপকারী উপাদান থাকে, সেগুলো নষ্ট হয়ে যায়। যেমনÑ গরুর মাংসে আয়রন বেশি থাকে, তাই স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রান্না করতে হবে।
নিউট্রিশন চার্ট
গরুর মাংস : ১০০ গ্রাম গরুর মাংসে ফ্যাট থাকে ১৫ গ্রাম, প্রোটিন ২৬ গ্রাম, ক্যালরি ২৫০।
খাসির মাংস : ১০০ গ্রাম খাসির মাংসে ফ্যাট থাকে ৩ গ্রাম, প্রোটিন ২৭ গ্রাম, ক্যালরি ১৪৩।

শেয়ার করুন
স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • কম বয়সে হৃদরোগের ঝুঁকি
  • শিশুর কয়েকটি অসুখ ও পরামর্শ
  • হাড়ক্ষয় রোগ শনাক্ত ও চিকিৎসা
  • শীতে নাক কান গলার সমস্যা ও সমাধান
  •   নীরব ঘাতক রক্তচাপ
  • গর্ভাবস্থায় কী খাবেন
  •   মাতৃস্বাস্থ্য ও মাতৃমৃত্যু কিছু কথা
  • সচেতন হলেই প্রতিরোধ ৬০ শতাংশ কিডনী রোগ
  •   হৃদরোগীদের খাবার-দাবার
  • ঘামাচি থেকে মুক্তির উপায়
  • মুখে ঘা হলে করণীয়
  • পায়ের গোড়ালি ব্যথায় কী করবেন
  • নীরব রোগ হৃদরোগ
  • পরিচিত ভেষজের মাধ্যমে অর্শের চিকিৎসা
  • অনিদ্রার অন্যতম কারণ বিষন্নতা
  • রক্তশূন্যতায় করণীয়
  • চোখে যখন অ্যালার্জি
  • স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে বাঁচার ১০টি উপায়
  • রোগ প্রতিরোধে লেবু
  •  স্মৃতিশক্তি ও মস্তিষ্কের যত্ন নিন
  • Developed by: Sparkle IT