প্রথম পাতা

দুই ছাত্র বহিষ্কার এসআইইউ শিক্ষার্থীরা ফের আন্দোলনে

প্রকাশিত হয়েছে: ২১-০৯-২০১৮ ইং ০৪:২৮:৫৩ | সংবাদটি ৫০ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আন্দোলনকারী দুই ছাত্রের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারসহ ভিসি, প্রো-ভিসি, ট্রেজারার নিয়োগ ও ট্রাস্টিবোর্ড গঠনের দাবীতে ফের আন্দোলনে নামছেন সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির(এসআইইউ) শিক্ষার্থীরা। গত বুধবার সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচীর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলন করে দাবী আদায়ে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন শিক্ষার্থীরা।
বিশ^বিদ্যালয়ের এমবিএ শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী উত্তম সরকার বলেন-ইউনিভার্সিটিতে ভিসি, প্রো-ভিসি, ট্রেজারা, বিভাগীয় প্রধান ও ট্রাস্টিবোর্ড নেই। এক পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ছাত্র ভর্তিতে সতর্কতা জারি করে। এ জন্য শিক্ষার্থীরা নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন। এসকল সমস্যা সমাধান করতে ছাত্র ছাত্রীরা আন্দোলনে নামেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের দাবি মানার আশ্বাস দিলে তারা ক্লাসে ফিরে যায়। কিন্তু দাবি পুরণ না হওয়ায় গত মঙ্গলবার সকাল থেকেই সাধারণ শিক্ষার্থীরা ফের আন্দোলনে নামে। মঙ্গলবার দুপুরে চলমান ছাত্রআন্দোলন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভিসি প্রফেসর মনির উদ্দিনের সাথে দেখা করতে যান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দল। পরে সেখান থেকে বেরিয়ে আসার সময় ২০/২৫ জনের বহিরাগত একদল সন্ত্রাসী আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর চড়াও হয়। এসময় তাদের হামলায় ৭ জন শিক্ষার্থী আহত হয়।
কিন্তু হামলাকারী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো হামলায় আহত হওয়া (উত্তম সরকার) ও বিবিএ ২৬ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ফাহিম আহমদ চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয়। তাদের মতে কোন কারণ ছাড়াই শৃঙ্খলা ভঙ্গের মিথ্যা আভিযোগ এনে প্রশাসন দুই শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে।
শিক্ষার্থী ফাহিম আহমদ চৌধুরী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বারবার আমাদের আশ্বস্ত করে যাচ্ছে। কিন্তু কার্যত কোন সমাধান হচ্ছে না। আমরা দ্রুত এসব সমস্যার সমাধান চাই। তাই, আমরা বাধ্য হয়ে কঠোর আন্দোলনে যাচ্ছি।
জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রো-ভিসির পদ শূন্য রয়েছে। প্রায় সবকটি প্রশাসনিক পদের কার্যক্রম চলছে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিয়ে। স্থায়ী ক্যাম্পাসের জায়গা নিয়েও ঝামেলা চলছিলো বেশ কিছুদিন ধরে। তবে কিছুদিন পূর্বে বিশ্ববিদ্যালয় নামে ২ একর জায়গা লিখে দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়েরে ট্রাস্টিবোর্ডের চেয়ারম্যান শামীম আহমদ। তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়টির ট্রাস্টিবোর্ড নিয়েও রয়েছে পাল্টাপাল্টি মামলা। যা আদালতে বিচারাধীন।
সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির গণসংযোগ কর্মকর্তা তারেক উদ্দিন তাজ জানান- ভিসি, প্রো-ভিসি, ট্রেজারার নিয়োগ ও ট্রাস্টিবোর্ড গঠনের কাজ শেষ পর্যায়ে। স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য নিজস্ব জায়গা লিখে দেওয়া হয়েছে। এই কাজগুলো বর্তমানে শেষ পর্যায়ে রয়েছে। কিন্তু আন্দোলনের নামে কয়েকজন শিক্ষার্থী সাধারণ শিক্ষার্থীদের নানা ভাবে হয়রানী করছে। তারা নতুন ছাত্র ভর্তি হতে আসলে বিশি^বিদ্যালয়ের বিভিন্ন বদনাম করে ভর্তি না হতে নিষেধ করে। এছাড়া, শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে এডমিটকার্ড নিতে আসলে তাদেরকেও পরীক্ষা না দিতে নানা ভাবে বাঁধা দিয়ে আসছে। বিশ^বিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে দুইজনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তদন্ত করে তারা নির্দোষ প্রমাণিত হলে তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হবে।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • বুদ্ধিজীবী হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের রায় দ্রুত কার্যকর করার দাবি
  • ছুটির দিনেও প্রচারণায় সরব প্রার্থীরা
  • প্রধানমন্ত্রী সিলেট সফরে আসছেন ২১ ডিসেম্বর
  • জাতীয় পার্টির ১৮ দফার ইশতেহার
  • পুলিশকে বেআইনি নির্দেশ না মানতে পরামর্শ ড. কামালের
  • জামায়াত নিয়ে প্রশ্নে কামাল বললেন ‘খামোশ’
  • চলচ্চিত্র পরিচালক আমজাদ হোসেন আর নেই
  • ড. কামালের গাড়িবহরে হামলার অভিযোগ
  • সিরিজ জয়ে অভিষিক্ত সিলেট ভেন্যু
  • সিলেট-২ আসন প্রার্থীতা ফিরে পেলেন মুহিব-সরদার
  • বিজয়ের মাস
  • ‘খামোশ’ বললেই মানুষের মুখ বন্ধ হবে না: প্রধানমন্ত্রী
  • বিজয়ের মাস
  • মহীয়সী নারী বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরী ছিলেন দানবীর ড. রাগীব আলীর সকল অনুপ্রেরণার উৎস
  • অভিযোগ নিয়ে পুলিশ প্রধানের দ্বারে বিএনপি
  • বিজয় দিবসে সকল সরকারি বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে
  • বিএনপিই ফখরুলের গাড়িতে হামলা করেছে ----------এইচ টি ইমাম
  • চূড়ান্ত বিজয় না আসা পর্যন্ত মাঠ ছাড়বো না
  • অর্থমন্ত্রীকে ডিজিটাল বাংলাদেশ সম্মাননা প্রদান
  • প্রার্থিতা নিয়ে খালেদার আবেদন শুনতে নতুন বেঞ্চ গঠন
  • Developed by: Sparkle IT