ধর্ম ও জীবন

বার্মিংহামে আল কুরআনের হাতে লেখা প্রাচীন কপি

ডা. এম সোলায়মান খান প্রকাশিত হয়েছে: ১৯-১০-২০১৮ ইং ০০:৪৯:২৬ | সংবাদটি ১৮৭ বার পঠিত

বার্মিংহামের বিখ্যাত চকলেট ব্রান্ড ক্যাডবুরী পরিবার ১৯২০ সালের দিকে মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রাচীন পান্ডুলিপি সংগ্রহের জন্যে ইরাকী কুর্দিস্থানে জন্ম নেয়া সিরিয়ান খ্রিষ্টান আলফানসো মিংগানা কে ঠিকাদারী দেয়। তিনি তিন হাজারের অধিক প্রাচীন পান্ডুলিপি সংগ্রহ করেন। ‘মিংগানা কালেকশন’ নামকরণ করে এগুলি বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটির ক্যাডবুরী লাইব্রেরীতে জমা রাখা হয়। ইটালিয়ান এ্যলবা ফেডিলী প্রাচীন আরবী পান্ডুলিপি সম্পর্কে ডকটোরাল রিসার্চের জন্যে বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটিতে যুক্ত হন। তিনি ‘মিংগানা কালেকশনে’ রক্ষিত পার্চমেন্ট পাতায় লেখা আল কুরআনের একটি প্রাচীন কপি খুঁজে পান। (পার্চমেন্ট হলো ভেড়া বা ছাগলের চামড়া থেকে তৈরী কাগজের মতো জিনিস)।
পার্চমেন্ট কপিটির বৈশিষ্ট্য- (ক) ১৪ ইঞ্চি বাই ১০ ইঞ্চি সাইজের দুটো পার্চমেন্ট পাতার উভয় দিকে কোডেক্স ফ্যাশনে আল কুরআনের ১৮,১৯,২০ নম্বর সুরার ৬৩ টি আয়াত প্রাচীন হেজাজী লিপিতে লেখা রয়েছে। কোডেক্স হলো প্রাচীন পুঁথির হাতে লেখা স্টাইল। হেজাজ হলো মক্কা, মদিনা, জেদ্দা সহ সৌদি আরবের পশ্চিমাংশ। হেজাজ থেকে হেজাজী। ‘কুরআন নাযিলের সময় মক্কা, মদিনায় হেজাজী লিপি প্রচলিত ছিল’। (আব্দুল্লাহ সাঈদ, দি কুরআন এন ইনট্রোডাকশন, নিউইয়র্ক, ২০০৮, পৃ.-৫০)। (খ) একটি পার্চমেন্ট পাতায় ১৮ নম্বর সুরা কাহাফের ১৭-৩১ আয়াত লেখা আছে। (গ) অন্য পার্চমেন্ট পাতায় ১৯ নম্বর সুরা মারিয়ামের শেষ ৮টি আয়াত (৯১-৯৮) এবং ২০ নম্বর সুরা ত্বোয়াহা ১-৪০ আয়াত লেখা আছে। প্রতিটি আয়াতের শেষে ফোঁটা দেয়া আছে। এতে আয়াতের শুরু ও শেষ বোঝা যায়। (ঘ) কপিটির প্রতিটি অক্ষর, প্রতিটি শব্দ, প্রতিটি বাক্য, সুরার ক্রম ধারা বর্তমান কুরআনের অনুরূপ। গবেষকরা বলছেন আল কুরআনের এই প্রাচীন কপি দেখে বোঝা যায় কুরআন অবিকৃত অবস্থায় সংরক্ষিত ছিল। (নোট-বার্মিংহাম কপিটিতে সুরা কাহাফ, সুরা তো¡য়াহা লেখা আছে। সুরা কাহাফের প্রথম আয়াত- ‘সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর যিনি তার বান্দার প্রতি কিতাব নাযিল করেছেন এবং এতে কোন বক্রতা রাখেন নি’। খলিফা ওমর (রা) সুরা ত্বোয়াহা আয়াত ১-১৪ পাঠ করে ইসলাম কবুল করেছিলেন। (মার্টিন লিংগস, পৃ.-১৩৫, আস সুযুতী, হিস্টরী অব খালিফাজ, লন্ডন, ১৯৯৫, পৃ.-১০৭-১০৮) সুরা ত্বোয়াহা আয়াত : ১৪। ‘নিশ্চয় আমি আল্লাহ। আমি ছাড়া কোন প্রভু নেই, সুতরাং আমার ইবাদত কর। আমার সম্মানার্থে সালাত কায়েম কর’।
অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে বার্মিংহাম কপিটির কার্বন ডেটিং পরীক্ষা করা হয়। (এই পরীক্ষার মাধ্যমে কোন প্রাণী বা উদ্ভিদের বয়স জানা যায়)। ‘অক্সফোর্ডের কার্বন ডেটিং ইউনিট পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম এবং রিপোর্ট নির্ভরযোগ্য’। (প্রফেসর জেফ স্পীকম্যান, ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়া, নিউ ইয়র্ক টাইমস, ২২ জুলাই, ২০১৫)। কার্বন ডেটিং একটি সময় কাল, টাইমফ্রেম দিয়ে থাকে। রিপোর্ট অনুযায়ী কপিটি ১৩৭০ বছর পুরোনো। সময়কাল ৫৬৮-৬৪৫ খ্রিঃ, নির্ভুলতা ৯৫.৪%। অর্থাৎ ৫৬৮ থেকে ৬৪৫ সালের মধ্যকার কোন এক সময়ে অর্থাৎ ৭৭ বছর সময়কালের মধ্যে এটা লেখা হয়েছে।‘ কার্বন ডেটিং রিপোর্ট অনুযায়ী বার্মিংংহাম কপিটি পৃথিবীর মধ্যে আল কুরআনের সবচেয়ে প্রাচীনতম কপি’। (সিএনএন, ২২ জুলাই, ২০১৫)।
বার্মিংহাম কপি সম্পর্কে বিশিষ্ট জনদের মতামত- (ক) ঈসা ওয়ালী, চীফ কিউরেটর, ব্রিটিশ লাইব্রেরী, লন্ডন- ‘এই আবিষ্কার দারুণ রোমাঞ্চকর এবং মুসলমানদের জন্যে ভীষণ খুশীর খবর’। (বিবিসি, ২২ জুলাই, ২০১৫)। (খ) মুহাম্মদ আফজাল, চেয়ারম্যান, বার্মিংহাম সেন্ট্রাল মসজিদ- ‘বার্মিংহাম কপিটি দেখে আমি আনন্দে আবেগে কেঁদে ফেলি’। (বিবিসি, ০২ অক্টোবর, ২০১৫)। (গ) জামাল বিন হুয়ারিব, ডাইরেক্টার, আল মাখদুম ফাউন্ডেশন- ‘সকল বৈশিষ্ট্য দেখে মনে হচ্ছে এটা আবু বকর (রা.) এর সময়ে লেখা হয়েছে’। (বিবিসি, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৫)। (ঘ) ওমীদ শাফী, ডাইরেক্টার, ডিউক ইসলামিক সেন্টার এবং মেমোরিজ অব মুহম্মদ- হুয়াই দি প্রফেট ম্যাটার বইটির রচয়িতা -‘কপিটি এই বিশ্বাসকে আরো সুদৃঢ় করে যে সপ্তম শতকের কুরআন অবিকৃত ছিল’। (নিউইয়র্ক টাইমস, ২২ জুলাই, ২০১৫)।
(ঙ) স্যুজান ওয়ারেল, ডাইরেক্টার, বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটি- ‘গবেষকরা স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি তারা কী আবিষ্কার করতে যাচ্ছেন। বুঝতে অসুবিধা হয়না এটি প্রচীনতম কুরআনের অংশ, অমূল্য বিশ্ব সম্পদ’। বিবিসি, ২২ জুলাই, ২০১৫)।
(চ) প্রফেসর ডেভিড টমাস, বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটি- ‘এমন সম্ভাবনা খুবই প্রবল যে বার্মিংহাম কপিটি যিনি লিখেছেন তিনি হয় মহানবীর সাক্ষাৎ সংস্পর্শে এসেছিলেন নয়ত সরাসরি তার মুখ থেকে বাণী শুনেছিলেন অর্থাৎ কপিটি রচিত হয়েছিল ইসলামের প্রাথমিক যুগেই’। (বিবিসি, ২২ জুলাই, ২০১৫)।
(ছ) প্রফেসর জোসেফ ই ল্যুমবার্ড, ব্র্যানডিস ইউনিভার্সিটি, ম্যাসাচুসেটস- ‘বার্মিংহাম কপি থেকে এটাই প্রমাণিত হয় ইসলামিক উৎস থেকে বর্ণিত কুরআনের ইতিহাস সঠিক। অধিকাংশ পশ্চিমা পন্ডিতদের বর্ণিত কুরআনের ইতিহাস বাতিল মাল’। (নিউ লাইট অন দি হিস্টরী অব কোরানিক টেক্সট, হাফিংটন পোস্ট। ২৭, জুলাই, ২০১৫)।
(জ) প্রফেসর ফ্রানকোস ডি রোশ, ন্যাশনেল লাইব্রেরী, প্যারিস- ‘আমরা নিশ্চিত যে বার্মিংহাম কপিটির কয়েকটি পাতা আমাদের হাতে রয়েছে’। (দৈনিক সাবাহ, ইস্তাম্বুুল, তুরস্ক, ২৭ জুলাই, ২০১৫)। নোট- ১৯ শতকে মিসর যখন ফ্রান্সের শাসনে ছিল তখন নেপোলিয়নের সৈন্যারা আমর ইবনে আল আস মসজিদ থেকে কুরআনের কয়েকটি প্রাচীনতম কপি প্যারিসে নিয়ে আসে। (শীন কাফলান, বিবিসি, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৫)।
বার্মিংহাম কপি সম্পর্কে ইতিহাসবিদ টম হল্যান্ড, লাইব্রেরীয়ান কীথ সে¥ল, ইউটিউবার জে স্মীথ প্রমুখ মন্তব্য করছেন- (ক) আল কুরআনের কপিটি প্যালিম্পসেস্ট।(খ) কালির কার্বন ডেটিং পরীক্ষা হলো না কেন? (গ) আল কুরআন টাইম ফ্রেমের প্রথম ভাগে অর্থাৎ রাসুল (সা.) এর জন্মের আগে লেখা। তাদের বক্তব্যের জবাব।
ক. প্যালিম্পসেস্ট- প্রাচীন পার্চমেন্টে থাকা কোন লেখা ধুয়ে মুছে পুনরায় কোন কিছু লেখাকে প্যালিম্পসেস্ট বলে। সর্বাধুনিক আলট্রা ভায়োলেট পরীক্ষা করে দেখা গেছে কপিটির কুরআনের আয়াতের নিচে কোন নি¤œস্থ লেখার অস্তিত্ব নাই। বার্মিংহাম কপিিিট ১০০% প্যালিম্পসেস্ট মুক্ত। (রিসার্চ এন্ড কনজারভেশন, বার্মিংহাম ইউনিভর্সিটি, ০৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮)।
খ. কালি পরীক্ষা করতে হলে পার্চমেন্টে মিশে যাওয়া কালি দ্রাবক দিয়ে উঠাতে হবে। এতে প্রাচীন হেজাজী লিপি নষ্ট হয়ে যাবে। ইনঅর্গানিক বা মেটালিক কালি দিয়ে লেখা হলে অথবা কালিতে সি-১৪ এর পরিমাণ নগন্য থাকলে কার্বন ডেটিং কার্যকর হবে না। (সি-১৪ কার্বনের আইসোটোপ, এটার পরিমাণ দেখে বয়স নির্ণয় করা হয়)। এসব কারণে কালি পরীক্ষা করা হয়
গ. টাইম ফ্রেমের প্রথম ভাগে অর্থাৎ রাসুল (সা.) এর জন্মের আগে কুরআন লেখা হয়েছে এটা কিভাবে নিশ্চিত হলেন? মুখের বুলি ছাড়া কোন যথাযোগ্য রেফারেন্স নাই। তারা এক্সপার্ট অপিনিয়ন মানছেন না। প্রফেসর ডেভিড শীভাল, অক্সফোর্ড- ‘টাইম ফ্রেমের শেষের ভাগের সম্ভাবনা বেশী’। (বিবিসি, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৫)। প্রফেসর ডেভিড টমাস, বার্মিংহাম ইউনিভার্সিটি- ‘কপিটির লেখক হয় মহানবীর সংস্পর্শে এসেছিলেন নয়ত সরাসরি তার মুখ থেকে বাণী শুনেছিলেন এমন সম্ভাবনা প্রবল’। (বিবিসি, ২২ জুলাই, ২০১৫)। এক্সপার্ট ওপিনিয়ন অনুযায়ী যদি ধরে নেয়া হয় টাইম ফ্রেমের শেষের ভাগে কুরআন লেখা হয়েছে তাহলে তা ইসলামের ইতিহাসের সাথে পুরোপুরি মিলে যায়। এখানেই তাদের আপত্তি। কারণ অন্তরে লুকিয়ে রাখা ইসলাম বিদ্বেষ।
ঘ. কুরআনের ৪টি সূরায় ৪ বার মুহম্মদ (সা.) নাম এসেছে। (আলে ইমরান : ১৪৪, আহযাব : ৪০, মুহম্মদ : ২. আল ফতেহ : ২৯)। আপন চাচা আবু লাহাব এবং সাহাবী যায়েদ (রা) এর নাম আছে। হিজরত প্রসঙ্গ, বদর, ওহুদ, হুনায়েন যুদ্ধের ঘটনা , মক্কা বিজয়ের কথা আছে। কুরআন যদি মহানবী (সা.) এর জন্মের আগে লেখা হয়ে থাকে তাহলে তার নাম, চাচার নাম, পালিত পুত্রের নাম, যুদ্ধের কথা, বিজয়ের কথা কোরানে কিভাবে এলো ? এসব প্রশ্নে তারা নিশ্চুপ।
ঙ. ইতিহাসবিদ টম হল্যান্ড ইসলাম বিদ্বেষমুলক বই ‘ইন দি শ্যাডো অব দি সোর্ড’ বইটির লেখক। তার বই সম্পর্কে গ্লেন বাওয়ারচ্যুক দি গার্ডিয়ানে রিভিউ লিখেছেন - ‘টম হল্যান্ড একটি নি¤œ মানের কুরুচিপূর্ণ ফালতু বই লিখে ইসলামকে নিচু করার অপচেষ্টা করে চরম ব্যর্থ হয়েছেন ’। ( দি গার্ডিয়ান , লন্ডন, ০৪ মে,২০১২)।
আমরা কার্বন ডেটিংয়ের ৯৫.৪% নির্ভুলতায় নির্ভর করি না। আমরা শতভাগ (১০০%) নির্ভর করি আল কোরানে। আল্লাহপাক বলছেন আল কুরআন পারফেক্ট - নির্ভুল (সুরা হিজর, আয়াত ১৫)। কমপ্লিট - সম্পূর্ণ (সুরা আন আম, আয়াত ১১৫)। আনচেঞ্জড - অবিকৃত (সুরা : হুদ, আয়াত-১)।

শেয়ার করুন
ধর্ম ও জীবন এর আরো সংবাদ
  • প্রিন্সিপাল হাবিবুর রহমান (রাহ.) ও সাদাকায়ে জারিয়া
  • রাসূলের সাথে জান্নাত
  • মাতা-পিতার অবাধ্যতার শাস্তি
  •  তাফসিরুল কুরআন
  • বিশ্বনবীর কাব্যপ্রীতি
  • শতবর্ষের স্থাপত্য সিকন্দরপুর জামে মসজিদ
  • তাফসিরুল কুরআন
  •  আত্মার খাদ্য
  • মানব জীবনে আত্মশুদ্ধির প্রয়োজনীয়তা
  • সরকারি সম্পদ আত্মসাৎ : ইসলাম কী বলে
  • মৃত্যুর আগে আখেরাতের পাথেয় সংগ্রহ করি
  •   তাফসীর
  • ইসলামে বিনোদনের গুরুত্ব
  • কুরআনে হাফিজের মর্যাদা
  • মদীনা রাষ্ট্রের যাবতীয় কর্মকা-ের কেন্দ্র ছিল মসজিদ
  • তাফসিরুল কুরআন
  • এতিম শিশু
  • বার্মিংহামে আল কুরআনের হাতে লেখা প্রাচীন কপি
  • রাসুলের সমগ্র জীবন আমাদের জন্য অনুকরণীয়
  • মৌল কর্তব্য আল-কুরআনের বিধান
  • Developed by: Sparkle IT