উপ সম্পাদকীয়

প্রবীণদের যথাযথ মূল্যায়ন কাম্য

শামীম শিকদার প্রকাশিত হয়েছে: ২২-১০-২০১৮ ইং ০১:৩৩:২৫ | সংবাদটি ৮২ বার পঠিত

প্রবীণদের নিয়ে আলোচনার সূচনায় যে কথাটি প্রথমে চলে আসে, তা হচ্ছে অবহেলা। বর্তমানে তরুণ সমাজের বৃহৎ অংশই প্রবীণ ব্যক্তিদের অবহেলার চোখে দেখে। শুধু তরুণ নয়, যুবকরাও এর অংশীদার হয়ে থাকে। নিজের বাবা-মায়ের প্রতি অসহনীয় অমানবিক অচরণের খবর প্রায়ই গণমাধ্যমে উঠে আসে। কোনো কোনো প্রবীণ বাবা-মায়ের সর্বশেষ ঠিকানা হয়ে ওঠে বৃদ্ধাশ্রম। চোখের জলে তাদের আর্তনাদের শত চিৎকারের পরও নিষ্ঠুর সন্তানগুলো ভুলে যায় তাদের শৈশবের কথা। যে সময়টিতে বাবা-মা অক্লান্ত পরিশ্রম করে সন্তানের মুখে হাসি ফুটিয়ে প্রত্যাশাগুলো পূরণ করেছেন; নিজের ব্যক্তিগত আরাম-আয়েশ বিসর্জন দিয়ে উপার্জন করেছেন অর্থ। সন্তানকে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় বড় ডিগ্রি অর্জন করে গড়ে তুলেছে একজন শিক্ষিত মানুষ হিসেবে। কিন্তু সে ডিগ্রিধারী শিক্ষিত মানুষগুলো বিবেককে শিক্ষিত করতে পারেনি বলে বাবা-মায়ের প্রতি অবহেলার চোখে তাকিয়ে তাদের উপহার দেয় নিঃসঙ্গ জীবন। যেখানে তাদের শত আর্তনাদ ও চোখের জলেরও কোনো মূল্য থাকে না। শুধু নিজের বাবা-মা নয়, আমাদের সমাজের অনেক প্রবীণ ব্যক্তি রয়েছেন, যাদের প্রতি এক শ্রেণির মানুষের বিরূপ মনোভাবের কারণে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে সুন্দর সমাজব্যবস্থা। সমাজের নিম্নবিত্ত মানুষের পাশাপাশি প্রবীণদের প্রতি এমন মনোভাব দেখা যায়। আগে প্রবীণ ব্যক্তিদের কথার যথাযোগ্য মূল্যায়ন করা হলেও বর্তমান সমাজে সম্পূর্ণ তার বিপরীত। তার পাশাপাশি প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশের মনোভাব উঠে যাওয়ার উপক্রম।
একটি সমাজকে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য তরুণ ও যুবকদের পাশাপাশি প্রবীণ ব্যক্তিরও রয়েছে বিশেষ ভূমিকা। তবু প্রবীণ ব্যক্তিদের প্রতি অবহেলার দিকটি বেশি করে লক্ষ করা যায় উচ্চবিত্ত পরিবারগুলোতে। দেশে বা দেশের বাইরে উচ্চপর্যায়ে সন্তানরা অবস্থান করে বৃদ্ধ বাবা-মাকে এক প্রকার বোঝা মনে করে। ফলে তাদের সর্বশেষ ঠিকানা হয়ে ওঠে নিষ্ঠুর নিঃসঙ্গ সেই বৃদ্ধাশ্রম। মফস্বল এলাকার দিকে তাকালে দেখা যায়Ñ বৃদ্ধ বাবা-মাকে বোঝা মনে করে সন্তানরা নানাভাবে অবহেলা করে তাদের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দিতে চায়। পরিবারের পাশাপাশি অনেক প্রবীণ ব্যক্তি আছেন, যারা বয়সের ভারে ঠিকমতো কথা বলতে পারেন না, সোজা হয়ে ঠিকমতো দাঁড়াতে পারেন না; তবু তারা যথার্থ মূল্যায়নের অভাবে পাচ্ছেন না বয়স্ক ও বিধবাভাতা। কোথায় বললে তাদের মূল্যায়ন হবে এবং কে শুনবে তাদের কথা সে হিসাব মেলাতে না পেরে সরকারি অনুদান ছাড়াই অতিবাহিত করতে হয় তাদের কষ্টের জীবন।
বর্তমান সময়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে রাখা হয় সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিদের। যার পেছনে অর্থ বিশেষ ভূমিকা রাখে। নবীনরা মঞ্চের ওপর অবস্থান করলেও বৃদ্ধরা তাদের নিজের চেয়ারগুলোতে অবস্থান করেন। ফলে পুরোপুরি স্পষ্ট বোঝা যায় তারা কোনো ব্যক্তিকে নয়, মূল্যায়ন করছে ব্যক্তির অর্থকে। অন্যদিকে আগে গ্রামের মধ্যে কোনো বিচার-সালিশ হলে বিচারক হিসেবে নির্ধারণ করা হতো গ্রামের সবচেয়ে প্রবীণ ব্যক্তিদের। তার কারণ হচ্ছে, মানুষ মনে করত প্রবীণদের অভিজ্ঞতার ফলে তারা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হবে। কিন্তু বর্তমানে তার চিত্র সম্পূর্ণ বিপরীত। প্রবীণদের জায়গা দখল করে নিয়েছে গ্রামের কিছু কথিত রাজনীতিবিদ ও মাস্তান ছেলের দল। যাদের মূল উদ্দেশ্য থাকে বিচারের নাম করে দুই পক্ষ থেকে কিছু অর্থ হাতিয়ে নেওয়া। এমন চিত্র প্রতিনিয়ত আমাদের সমাজে ভাসমান বলে নতুন প্রজন্মও তাদের কাছে একই রকম শিক্ষা গ্রহণ করছে। যুবকরা যে দিকে পথ দেখাবে নবীনরা সে দিকেই অগ্রসর হবে। সমাজ সুষ্ঠু ও সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালনার নির্দেশনা যদি প্রবীণদের কাছ থেকে নেওয়া যায়, তবে আরও সুন্দর মানবিকবান্ধব সমাজ গঠনে তাদের পরামর্শ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তাছাড়া সবাইকে মনে রাখা উচিত, নবীন থেকেই প্রতিটি মানুষ প্রবীণ হয়। পৃথিবীর কোনো মানুষই প্রবীণ হয়ে জন্মায়নি। প্রবীণদের যথাযথ স্থানে যথাযথভাবে মূল্যায়নের পাশাপাশি নবীনদের এ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে। সমাজের প্রতিটি ব্যক্তির পাশাপাশি প্রতিটি প্রবীণ ব্যক্তির সন্তানের উচিত তাদের বাবা-মায়ের প্রতি সুদৃষ্টি বাজায় রেখে যথাযথ মূল্যায়নের মাধ্যমে পরিবারে যথেষ্ট অগ্রাধিকার দেওয়া।
লেখক : সাংবাদিক।

 

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • শান্তি সুখের সন্ধানে
  • কী চাই, কী চাই না
  • প্রসঙ্গ : প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতি বিরোধী অঙ্গীকার
  • সাংবাদিক কামরুজ্জামান চৌধুরী
  • প্রাইভেট টিউশন বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি
  • ফসল রক্ষা বাধ ও নতুন সরকারের কাছে প্রত্যাশা
  • সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম
  • রেল ভ্রমণ কবে স্বস্তিদায়ক হবে
  • অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান
  • পৌষ সংক্রান্তি
  • আল্লামা ফুলতলীর রাজনৈতিক দর্শন
  • নতুন বছরের অর্থনীতি
  • এই কথাটি মনে রেখো
  • হকারমুক্ত ফুটপাত চাই
  • পড়িলে বই আলোকিত হই
  • গ্রামীণ নাগরিক সুবিধা প্রসঙ্গ
  • বিশ্বব্যবস্থা ক্রান্তিকাল ও নিরাপদ পৃথিবীর প্রত্যাশা
  • তুরস্ক-রাশিয়া সম্পর্ক ও পশ্চিমাবিশ্ব
  • শিক্ষার মৌলিক পরিবেশ
  • দেশপ্রেমিক ধর্মগুরু স্বামী বিবেকানন্দ
  • Developed by: Sparkle IT