প্রথম পাতা

মন্ত্রীসভা ছোট না করার ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রীর

ডাক ডেস্ক প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-১০-২০১৮ ইং ০২:৪৯:৪২ | সংবাদটি ৯২ বার পঠিত

একাদশ সংসদ নির্বাচনের সময় মন্ত্রিসভার আকার ছোট নাও হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, এখনকার মন্ত্রিসভায় ‘সব দলের’ প্রতিনিধিই আছেন। নির্বাচনকালীন সরকারের আকার ছোট করা হলে উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হতে পারে।
সোমবার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরব সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এই সংবাদ সম্মেলন করেন। ১৬ অক্টোবর থেকে ১৯ অক্টোবর পর্যন্ত সৌদি সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকেল চারটায় সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়ে চলে এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে।
বেশ কিছুদিন আগে থেকেই আওয়ামী লীগের নেতারা বলে আসছিলেন, ২০১৩ সালের মতো এবারও ভোটের আগে ‘ছোট আকারের নির্বাচনকালীন’ সরকার গঠন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ছোট আকারের মন্ত্রিসভার আভাস দিয়েছিলেন। আজকের সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিসভার আকার ও ধরন নিয়ে সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী পাল্টা প্রশ্ন করেন, ছোট না করলে কোনো অসুবিধা আছে? যুক্তরাজ্যের মতো যেসব দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র আছে, কোথাও নির্বাচনের সময় মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন আনা হয় না।
সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে মন্ত্রিসভা কেন পুনর্গঠন করা হয়েছিল, সেই প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, সে সময় বিরোধী দলে থাকা বিএনপি নির্বাচনে আসতে রাজি হচ্ছিল না বলে তখন তাদের নির্বাচনকালীন সরকারে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। বর্তমান পরিস্থিতি বর্ণনা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা (দশম সংসদ নির্বাচনে) মেজরিটি পাওয়া স্বত্বেও প্রতিনিধিত্বকারী দলগুলো থেকে মন্ত্রিসভা গঠন করেছি। এই মন্ত্রিসভায় জনগণের প্রতিনিধি যাঁরা, তাঁরা আছেন।’
শেখ হাসিনা ছোট মন্ত্রিসভা না করার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে বলেন, ‘আমাদের অনেকগুলো উন্নয়নমূলক প্রকল্প চলমান রয়েছে, অনেক কাজ করতে হবে। মন্ত্রিসভা ছোট হলে আমাদের উন্নয়নে সমস্যা হবে কি না, সেটাই ভাবছি। আপনারা দেখছেন, প্রতি সপ্তাহে ১৮-১৯টি করে প্রকল্প অনুমোদন হচ্ছে। সব মন্ত্রীই প্রচুর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।’
প্রসঙ্গ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট
নতুন গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ‘ছাল-বাকল দিয়ে তৈরি’ জোট বলে আখ্যায়িত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে এই জোটকে তিনি স্বাগত জানিয়েছেন। শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশে রাজনৈতিক স্বাধীনতা আছে। এখানে বিচার বিভাগ স্বাধীন, গণমাধ্যম স্বাধীন। যে কেউ ইচ্ছে করলে রাজনীতি করতে পারে। আমি নতুন জোটকে স্বাগত জানাই।’
সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য চাওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি একে স্বাগত জানাই। তবে একটু লক্ষ রাখা দরকার, কারা কারা এক হলো। কোন চরিত্রের লোক তারা। এমনকি মেয়েদের প্রতি কার কী মন্তব্য।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ এটা নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তায় নেই। শেখ হাসিনা বলেন, এখানে স্বাধীনতাবিরোধী আছে, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী আছে। সব মিলিয়েই কিন্তু এটা হয়েছে। এর মধ্যে অনেকেই আওয়ামী লীগে ছিল। তারা এখন আওয়ামী লীগের বিরোধী হয়েছে।
নবগঠিত জোটের সাত দফা দাবি নিয়ে প্রশ্ন করলে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সাত দফা আর কত দূর যায়, তার জন্য অপেক্ষা করে আছি। তারপর আমি আমার বক্তব্য দেব।’

 

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • সর্বোচ্চ পরমাণু ক্ষমতাসম্পন্ন জাহাজ বানালো রাশিয়া, আনছে যুক্তরাষ্ট্র
  • এরশাদের অবর্তমানে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব জিএম কাদেরের
  • কাউন্সিল ডেকে বিএনপি’র নেতৃত্বে পরিবর্তন আনার প্রস্তাব
  • মুহিতের অন্য রকম সিলেট সফর
  • জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির কর্মসূচি আজ
  • দেওবন্দ মাদ্রাসায় তাবলিগের কার্যক্রম নিষিদ্ধ
  • ভারতে ধরপাকড়, বাংলাদেশে আসছে আরও রোহিঙ্গা
  • স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে সারাদেশে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে : শিক্ষামন্ত্রী
  • আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশ আজ
  • ঐক্যফ্রন্ট না টেকারই কথা: কাদের
  • ৩০ ডিসেম্বর বিএনপি নয়, আ’লীগের পরাজয় হয়েছে: ফখরুল
  • প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে ............... পরিবেশ ও বনমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন
  • রোমাঞ্চ ছড়িয়েও জিততে পারেনি খুলনা
  • ‘সাকিবময়’ ম্যাচে উড়ে গেল সিলেট
  • সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন
  • জনবান্ধব আমলা থেকে সফল রাজনীতিবিদ এম এ মান্নান
  • আ. লীগের ‘বিজয় উৎসব’ কাল
  • ৩ আসামী ৫ দিনের রিমান্ডে
  • বিশ্বনাথে পানি সংরক্ষণে নিজ জমিতে চাষিদের পুকুর খনন!
  • হজযাত্রীদের বিমান ভাড়া কমলো ১০ হাজার ১৯১ টাকা
  • Developed by: Sparkle IT