সম্পাদকীয়

পাইপ লাইনের পানিতে জীবাণু

প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-১০-২০১৮ ইং ০১:০৩:৩২ | সংবাদটি ৭৭ বার পঠিত

পাইপ লাইনের পানিতে ডায়রিয়ার জীবাণু। বিশ্বব্যাংক বলেছে বাংলাদেশে পাইপ লাইনের ৮০ শতাংশ পানিতে রয়েছে ডায়রিয়ার জীবাণু। মূলত ‘ই-কোলাই’ নামক একটি ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব রয়েছে এই পাইপ লাইনের পানিতে। যা জনস্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। পানির সঙ্গে মলমূত্র মিশে যাওয়ার ফলে এই ব্যাকটেরিয়ার জন্ম হচ্ছে। সম্প্রতি রাজধানীতে বিশ্বব্যাংক ‘এ ডায়াগনস্টিক অব ওয়াটার সাপ্লাই, স্যানিটেশন, হাইজিন এন্ড প্রভাটি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এই তথ্য দেয়া হয়। এতে আরও বলা হয় পানি ও স্যানিটেশন খাতে বাংলাদেশ অনেক উন্নত হলেও পরিশোধিত পানির মানের এই চিত্র খুবই হতাশাজনক। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য হচ্ছে, কোনো সমস্যা যখন আছে, সেটা নিয়ে আমরা কাজ করছি না বসে আছি-সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সমস্যার গুরুত্ব উপলব্দি করে সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিচ্ছি।
দেশে এখন চলছে জাতীয় স্যানিটেশন মাস। প্রতি বছর অক্টোবর মাসে পালিত হয় এই স্যানিটেশন মাসটি। আর নিরাপদ স্যানিটেশনের জন্য বিশুদ্ধ পানি একটা অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই প্রেক্ষাপটে বিশ্বব্যাংকের এই প্রতিবেদনটি অত্যন্ত সময়োপযোগী। প্রতিবেদনে বলা হয়Ñ [পানি ও স্যানিটেশনের সুযোগে বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করলেও পানির সব ধরণের উন্নত উৎসের ৪১ শতাংশে ক্ষতিকর জীবাণু ই-কোলাই রয়েছে। এই জীবাণু অন্ত্রে উচ্চমাত্রার দূষণের জন্য দায়ী। এছাড়া, বাংলাদেশে ১৩ শতাংশ পানির উৎস আর্সেনিক দুষণ জাতীয় মাত্রার ওপরে রয়েছে। এর মধ্যে আর্সেনিক দূষণের পরিমাণ বেশি সিলেট এবং চট্টগ্রামে।] প্রতিবেদনে আরও বলা হয়Ñ গৃহস্থালীর স্যানিটেশনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেলেও শিল্প প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে সেই সুবিধা বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, পানির দূষণ ও নি¤œমান এবং স্যানিটেশনের বাজে ব্যবস্থা অনেক অর্জনকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। অর্থাৎ নিরাপদ পানির উৎস দিন দিন কমে আসছে এদেশে।
বাংলাদেশে বিশুদ্ধ পানির উৎসগুলোর মধ্যে বর্তমানে ভূগর্ভস্থ পানিকেই প্রথমে ধরা যায়। অবশ্য অতীতে যখন নলকূপের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন শুরু হয় নি তখন মানুষ পুকুর, ডোবা, নদীর পানিকেই পানীয় জল হিসেবে ব্যবহার করতো। কিন্তু বিগত প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে নলকূপের পানিকেই বিশুদ্ধ পানি হিসেবে ব্যবহার করে আসছে মানুষ। সম্প্রতি ভূগর্ভস্থ পানিতেও ধরা পড়েছে আর্সেনিক নামক ‘বিষ’। তার সঙ্গে যুক্ত হলো পাইপ লাইনের পানিতে ডায়রিয়ার জীবাণু। এই বিপর্যয় আরও ঘনীভূত হওয়ার আগেই সজাগ হতে হবে। পাইপ লাইনের পানি নিরাপদ করার জন্য এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT