সম্পাদকীয়

পর্যটন শিল্পের বিকাশ

প্রকাশিত হয়েছে: ০৭-১১-২০১৮ ইং ০০:৩৩:৩৩ | সংবাদটি ৬৫ বার পঠিত

নানা প্রতিকূলতা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটছে। দিন দিন বাড়ছে পর্যটকদের সংখ্যা। একটি জরিপে দেখা গেছে, এখন ৫০ থেকে ৬০ লাখ মানুষ ঘুরতে যায়। পাঁচ বছর আগে এই সংখ্যা ছিলো ২৫ থেকে ৩০ লাখ। আর ২০০০ সালে এই সংখ্যা ছিলো মাত্র তিন থেকে পাঁচ লাখ। বিদেশী পর্যটক নির্ভরতা ছাড়াও দেশীয় পর্যটকদের নিরাপত্তা, যোগাযোগ সুবিধা এবং পর্যটন ব্যয় সীমার মধ্যে থাকলে আগ্রহ আরও বেড়ে যাবে মানুষের পর্যটনের দিকে। ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে বছরে গড়ে দশ ভাগ মানুষও যদি দেশ ঘুরে দেখে, তাহলে বিশাল অংকের অর্থনৈতিক তৎপরতা সৃষ্টি হবে। দেশের অর্থনৈতিক ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের সৌখিনতা ও ভ্রমণবিলাস প্রবণতা বাড়ছে। এখন দেশের মধ্যবিত্ত ও নি¤œ মধ্যবিত্তরাও সময় সুযোগ পেলে পরিবার-পরিজন নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করেন। তাছাড়া, আজকাল পর্যটন নিয়ে ব্যাপক লেখালেখি হচ্ছে, প্রচারণা হচ্ছে বিভিন্ন মিডিয়ায়।
সব বয়সের মানুষের মধ্যেই পর্যটনে আগ্রহ বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে তরুণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে লেখাপড়া ও কাজের ফাঁকে দেশের বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ঘুরে বেড়ানোর প্রবণতা লক্ষ্যণীয়ভাবে বেড়েছে। তাছাড়া, ঈদের ছুটি ও অন্যান্য বিশেষ বিশেষ দিবসে পর্যটন স্পটগুলোতে বেড়ে যায় পর্যটকদের সংখ্যা। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, প্রতি ঈদে দুই থেকে তিন লাখ পর্যটক ভ্রমণ করে কক্সবাজারে। সবচেয়ে বড় কথা দেশের অর্থনীতি ও কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে বড় পরিবর্তন ঘটছে পর্যটন শিল্প বিকাশের ফলে। বর্তমানে এই শিল্পে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে। ২০১৭ সাল পর্যন্ত আট বছরে দেশে পর্যটন শিল্পে আয় হয়েছে ছয় হাজার সাতশ’ কোটি টাকা। দেশের কর্মসংস্থানের এক দশমিক ৪১ শতাংশ বা সাড়ে আট লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে পর্যটন খাতে, অন্য এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ১১ লাখে ৩৮ হাজার পাঁচশ’ মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পর্যটন শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত। বিশেষজ্ঞদের মতে পর্যটন শিল্পের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২৬ সালে বাংলাদেশে এই খাতে শুধু প্রত্যক্ষভাবেই সাড়ে ১২ লাখ মানুষ কাজ করবে। তাছাড়া ২০৫০ সাল নাগাদ ৫১টি দেশের পর্যটক আসবে আমাদের দেশে। তখন পর্যটন খাতের যে চিত্র দাঁড়াবে, তার জন্য দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নেয়া জরুরি।
পর্যটন শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিশ্বের প্রায় সাত কোটি মানুষ। পরোক্ষভাবে এই খাতে প্রায় আশি কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। বিশ্বব্যাপী পর্যটকেরা ভ্রমণ খাতে ব্যয় করে ৫০ হাজার কোটি ডলার। সারা বিশ্বে ২০২০ সাল নাগাদ পর্যটন থেকে বছরে দুই ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় হবে।
আর বিশ্বের একশ’ ৮৪টি পর্যটন সমৃদ্ধ দেশের মধ্যে ব্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ছিলো ২০১৫ সালে ৬০ নম্বরে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশ ১৮ নম্বরের মধ্যে চলে আসবে বলে আশা করা যাচ্ছে। আর সেই ইপ্সিত লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে দরকার সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা। এটাতো নতুন করে বলার প্রয়োজন নেই যে, বাংলাদেশের ৬৪টি জেলা ও চারশ’ ৯১টি উপজেলার মধ্যে প্রায় প্রতিটি জেলা-উপজেলায়ই ঘুরে দেখার মতো অনেক স্থান রয়েছে। এগুলোকে পর্যটন স্থানে পরিণত করা যায়।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT