সম্পাদকীয়

নাব্যতা ফিরছে নদ-নদীর

প্রকাশিত হয়েছে: ০৮-১১-২০১৮ ইং ০০:১৭:১৯ | সংবাদটি ৬৫ বার পঠিত

দেশের নদ-নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে শুরু হয়েছে একটি প্রকল্প। পানি উন্নয়ন বোর্ড দেশের ২৪টি নদ-নদীর ভাঙ্গন, নদী ভরাট, লবণাক্ততা এবং জলাবদ্ধতা সমস্যা সমাধানে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। ইতোমধ্যেই নদীর নাব্যতা ও ধারন ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে ড্রেজিং সমীক্ষা শেষ হয়েছে। কয়েকটি নদীর ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হওয়ার পথে। দেশে মোট নদ-নদীর সংখ্যা ছিলো চারশ’ পাঁচটি। এর মধ্যে বর্তমানে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে রয়েছে একশ দুইটি, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে একশ ১৫টি, উত্তর কেন্দ্রীয় অঞ্চলে ৬১টি, পূর্ব পাহাড়ি অঞ্চলে ১৬টি এবং দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলে রয়েছে ২৪টি নদী। অবশিষ্ট প্রায় ৮৭টি নদীর অস্তিত্ব এখন নেই বললেই চলে। আর যে নদীগুলোও এখন রয়েছে, এগুলোর নাব্যতা হারিয়ে যাচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটেই দেশের বেশ কয়েকটি নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
নদ-নদী পরিবেষ্টিত এই বাংলাদেশ। ঐতিহাসিকগণ একে ‘নদীমাতৃক’ দেশ বলেও আখ্যায়িত করেছেন। এই নদীকে কেন্দ্র করেই আবহমান বাংলার মানুষের জীবনযাত্রা আবর্তিত হয়ে আসছে অতীত থেকে। অনেকের জীবন জীবিকার কেন্দ্রবিন্দু ছিলো এই নদী। যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম ছিলো নৌপথ। মানুষ যাতায়াতে সর্বপ্রথম নদীপথকেই বেছে নিতো। পণ্য পরিবহনেও অতীতে প্রধান মাধ্যম ছিলো নৌপথ। কিন্তু এখন আর সেই দিন নেই। বিগত চার দশকে দেশের নৌপথ সংকুচিত হয়েছে উল্লেখ করার মতো। অনেকগুলো নদী হারিয়ে গেছে মানচিত্র থেকে। যেসব নদী এক সময় চিলো খর¯্রােতা আজ তা মৃতপ্রায়। শুষ্ক মওসুমে নৌ চলাচল তো দূরের কথা, তখন এসব নদীর বুকে খেলাধুলা করে শিশুরা। কোন কোন নদীর বুকে ফসল চাষ হচ্ছে। এক জরিপে দেখা গেছে, স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত দেশে কমপক্ষে আট হাজার কিলোমিটার নৌপথ হারিয়ে গেছে। এখন বর্ষা মওসুমে নৌপথের পরিমাণ ছয় হাজার কিলোমিটারের বেশি নয়। আর শুষ্ক মওসুমে তা নেমে আসে অর্ধেকে।
নানা কারণে ভরাট হচ্ছে নদী। গবেষণায় দেখা গেছে নদী ভরাট হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে পলিথিনসহ ময়লা আবর্জনা নদীর তলদেশে জমাট হওয়া। কোন কোন নদীতে ১৪ ইঞ্চি পর্যন্ত পলিথিন জমে থাকার তথ্যও পাওয়া গেছে। নদীতে চর জেগে ওঠা ও নদী ভাঙ্গনও অন্যতম বিপর্যয়; যা নদী ভরাটের জন্য দায়ী। তাছাড়া, প্রকৃতির খামখেয়ালীর জন্যও বিলীন হচ্ছে অনেক নদী। তবে নদ-নদীর হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে সব মহলের সচেতনতার বিকল্প নেই। সবচেয়ে দুঃখজনক হচ্ছে, নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে গৃহীত নদী খনন কিংবা তীর সংরক্ষণ প্রকল্প দুর্নীতি ও অনিয়মের বেড়াজালে বন্দী হয়ে বাস্তবের মুখ দেখেনা। মাঝখানে সরকারি অর্থ লুটপাট হয়। এই অবস্থা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT