শেষের পাতা

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে কমলার বাম্পার ফলন

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১১-২০১৮ ইং ০২:৪৬:৫৫ | সংবাদটি ৯২ বার পঠিত

সুশীল সেনগুপ্ত কুলাউড়া অফিস ঃ মৌলভীবাজার জেলার অর্থকরি ফসলের মধ্যে পাহাড়ী বনাঞ্চলের উৎপাদিত কমলা অন্যতম। জেলার জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের সুকনাছড়া, হায়াছড়া, লালছড়া,রপাছড়া, কচুরগুল, পুটিছড়া এবং পূর্বজুড়ি ইউনিয়নের গোবিন্দুপুর ও বিনন্দপুর প্রভৃতি পাহাড়ী জনপদের কমলা বাগানের গাছে গাছে এখন দোল খাচ্ছে লাল-সবুজ রং এর কমলা।
এ বছর কমলার ফলন ভাল হলেও আকারে বিগত বছরের চেয়ে অপেক্ষাকৃত বড়। বাগানের প্রশিক্ষিত কমলা চাষিরা জানান এ সকল এলাকার পাহাড়ি জনপদে প্রতি বছর কমলা উৎপাদন ও বাজারজাত করে তারা সারা বছরের প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহ করেন। বর্তমানে উপজেলার ২টি ইউনিয়নের প্রায় শতাধিক হেক্টর পাহাড়ী জমিতে সৃজিত ৯০টি কমলা বাগান রয়েছে। এই সকল বাগানে খাসি ও নাগপুরি এই দুই প্রকারের কমলার আবাদ হয়ে থাকে। খাসি কমলা আকারে ছোট,গোলাকার,চামড়াপাতলা ও মশ্রিন এবং রসালো। নাগপুরি কমলার পৃষ্টভাগ অমশ্রিন,চামড়া ভারি,আকারে বড়,বুটার দিকটা উচু, টক- মিষ্টি,রসালো ও ফলন বেশি। কমলা চাষীরা নাগপুরি কমলা চাষে অধিকতর আগ্রাহি। তিনি আরো জানান, কমলা একটি ছায়া পছন্দকারি বৃক্ষ। মিশ্র ফল বাগানে কমলা গাছ ছায়া পেলে দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং ফলন বেশী হয়। একক কমলা বাগানে সানবার্ণ হওয়ার সম্ভাবনা বেশী থাকে। ছায়াতরু সৃষ্টির লক্ষ্যে জুড়ীর ৬০টি কমলা বাগানে প্রায় ৪ হাজার সৃজিত মাল্টা গাছ রয়েছে। এই বছর কৃষি বিভাগ আরো ২৫টি মাল্টা চারা প্রদান করেছে। কমলা চাষিরা জানান টিলার পূর্ব ও উত্তর পাশের্^র বাগান গুলিতে ফলন ভাল হয়। এই বছর কমলা বাগানে রোগ বালাই না থাকায় কমলা চাষিরা উপকৃত হয়েছেন। পক্ষান্তরে অভিজ্ঞ ও প্রশিক্ষিত কমলা চাষী ইব্রাহিম আলী জানান,এক বছর ফলন বেশী হলে পরের বছর ফলন কম হয়, এটাই প্রাকৃতিক নিয়ম। তিনি আরো জানান, খরা মৌসুমে পানি সেচের ব্যবস্থা না থাকায় অনেক কমলা বাগান নষ্ট হয়ে যায়। গত বছরের চেয়ে এই বছর কমলার বাজার চড়া হওয়ায় চাষীরা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে বলে তিনি আশা করেন। এলাকায় প্রতি শত কমলা ১২ শত থেকে ১৫ শত টাকা মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবত এই এলাকার কমলা ভারতীয় কমলার সংগে প্রতিযোগিতা করে ঠিকে থাকতে হচ্ছে।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • সিলেট-তামাবিল সড়কের মেজরটিলায় স্পিড ব্রেকার না থাকায় দুর্ঘটনা বাড়ছে
  • বাংলাদেশের কৃষি জমি দ্রুত হারিয়ে যাচ্ছে
  • সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের সাথে চেম্বার সভাপতির সৌজন্য সাক্ষাৎ
  • বড়লেখায় দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়লো খাসিয়াদের তিন বসতঘর
  • মৌলভীবাজার মাদক নিরাময় কেন্দ্রের প্রধান কারাগারে
  • নতুন প্রজন্মকে মহানবী (সা:) জীবনাদর্শ চর্চা করতে হবে
  • পারিবারিক শিক্ষার মাধ্যমে শিশুদের গড়ে তুলতে হবে
  • সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ৩ দিনব্যাপী চিত্র প্রদর্শনী শুরু
  • দক্ষ পরিবহন শ্রমিক দিয়ে গাড়ি চালালে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে
  • ডিমের খোসা পরীক্ষা করেই পাওয়া যাবে শক্তিশালী বাচ্চা
  • নতুন নৌপ্রধান আওরঙ্গজেব
  • শিক্ষার্থীদের দেশ ও মানবপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে
  • লিডিং ইউনিভার্সিটির সোশ্যাল সার্ভিসেস ক্লাবের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন
  • রিজার্ভ চুরির ঘটনায় চলতি মাসেই নিউইয়র্কের আদালতে মামলা ॥ অর্থমন্ত্রী
  • কুলাউড়া বালিকা বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক শাফাত উদ্দিন আর নেই
  • বিশ্বাস ঘাতকদের ঠাঁই বিএনপিতে হবে না -------- আরিফুল হক চৌধুরী
  • এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সাফল্য আমাকে সমাজসেবায় অনুপ্রাণিত করে
  • দক্ষিণ সুরমার সিলামের একটি বাড়িতে হামলা
  • ঢাকা ফিরে গেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত
  • আওয়ামী লীগ নেতা ছানাউর ছানা ছিলেন একজন ক্ষণজন্মা পুরুষ
  • Developed by: Sparkle IT