শেষের পাতা

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে কমলার বাম্পার ফলন

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১১-২০১৮ ইং ০২:৪৬:৫৫ | সংবাদটি ৪৬ বার পঠিত

সুশীল সেনগুপ্ত কুলাউড়া অফিস ঃ মৌলভীবাজার জেলার অর্থকরি ফসলের মধ্যে পাহাড়ী বনাঞ্চলের উৎপাদিত কমলা অন্যতম। জেলার জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের সুকনাছড়া, হায়াছড়া, লালছড়া,রপাছড়া, কচুরগুল, পুটিছড়া এবং পূর্বজুড়ি ইউনিয়নের গোবিন্দুপুর ও বিনন্দপুর প্রভৃতি পাহাড়ী জনপদের কমলা বাগানের গাছে গাছে এখন দোল খাচ্ছে লাল-সবুজ রং এর কমলা।
এ বছর কমলার ফলন ভাল হলেও আকারে বিগত বছরের চেয়ে অপেক্ষাকৃত বড়। বাগানের প্রশিক্ষিত কমলা চাষিরা জানান এ সকল এলাকার পাহাড়ি জনপদে প্রতি বছর কমলা উৎপাদন ও বাজারজাত করে তারা সারা বছরের প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহ করেন। বর্তমানে উপজেলার ২টি ইউনিয়নের প্রায় শতাধিক হেক্টর পাহাড়ী জমিতে সৃজিত ৯০টি কমলা বাগান রয়েছে। এই সকল বাগানে খাসি ও নাগপুরি এই দুই প্রকারের কমলার আবাদ হয়ে থাকে। খাসি কমলা আকারে ছোট,গোলাকার,চামড়াপাতলা ও মশ্রিন এবং রসালো। নাগপুরি কমলার পৃষ্টভাগ অমশ্রিন,চামড়া ভারি,আকারে বড়,বুটার দিকটা উচু, টক- মিষ্টি,রসালো ও ফলন বেশি। কমলা চাষীরা নাগপুরি কমলা চাষে অধিকতর আগ্রাহি। তিনি আরো জানান, কমলা একটি ছায়া পছন্দকারি বৃক্ষ। মিশ্র ফল বাগানে কমলা গাছ ছায়া পেলে দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং ফলন বেশী হয়। একক কমলা বাগানে সানবার্ণ হওয়ার সম্ভাবনা বেশী থাকে। ছায়াতরু সৃষ্টির লক্ষ্যে জুড়ীর ৬০টি কমলা বাগানে প্রায় ৪ হাজার সৃজিত মাল্টা গাছ রয়েছে। এই বছর কৃষি বিভাগ আরো ২৫টি মাল্টা চারা প্রদান করেছে। কমলা চাষিরা জানান টিলার পূর্ব ও উত্তর পাশের্^র বাগান গুলিতে ফলন ভাল হয়। এই বছর কমলা বাগানে রোগ বালাই না থাকায় কমলা চাষিরা উপকৃত হয়েছেন। পক্ষান্তরে অভিজ্ঞ ও প্রশিক্ষিত কমলা চাষী ইব্রাহিম আলী জানান,এক বছর ফলন বেশী হলে পরের বছর ফলন কম হয়, এটাই প্রাকৃতিক নিয়ম। তিনি আরো জানান, খরা মৌসুমে পানি সেচের ব্যবস্থা না থাকায় অনেক কমলা বাগান নষ্ট হয়ে যায়। গত বছরের চেয়ে এই বছর কমলার বাজার চড়া হওয়ায় চাষীরা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে বলে তিনি আশা করেন। এলাকায় প্রতি শত কমলা ১২ শত থেকে ১৫ শত টাকা মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবত এই এলাকার কমলা ভারতীয় কমলার সংগে প্রতিযোগিতা করে ঠিকে থাকতে হচ্ছে।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • ঘূর্ণিঝড় ‘গাজা’ এখনও বঙ্গোপসাগরে
  • শাহ্ আরফিনে টিলাধসে শ্রমিক নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলা
  • মৌলভীবাজারে ৪টি আসনে আ’লীগের মনোনয়ন কিনলেন ২৭ জন
  • রিপোর্ট রাইটিং প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করে ------ প্রফেসর ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী
  • দুর্নীতি প্রতিরোধে সামাজিক ঐক্যের বিকল্প নেই ------- নিরু শামসুন নাহার
  • সচেতনতার মাধ্যমে এইচআইভি প্রতিরোধ সম্ভব
  • পাঁচভাই রেস্টুরেন্টে অবৈধ পাখি জব্দ
  • মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত
  • সিলেট নির্বাচন অফিস থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ শুরু করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা
  • দ্বিতীয় দিন বিএনপির মনোনয়ন বিক্রি ১২১৩
  • গোলাপগঞ্জের ফুলসাইন্দ মাদ্রাসার ভূমি আত্মসাৎ পাঁয়তারার অভিযোগ
  • সিলেটে অনলাইনভিত্তিক ট্রাভেল এজেন্সি চালু করতে যাচ্ছে লতিফ ট্রাভেলস
  • লিডিং ইউনিভার্সিটিতে দ্বিজেন শর্মার উদ্যান ভাবনা বিষয়ক আলোচনা অনুষ্ঠিত
  • বিএনপির কাছে রাজনৈতিক পরিবেশের কথা জানলেন কূটনীতিকেরা
  • জাসদ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার চৌধুরী’র ইন্তেকাল ॥ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন
  • কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
  • তারিখ না পেছালেও ঐক্যফ্রন্ট ভোটে আসত: কাদের
  • মন্ত্রিসভায় ঢাকা-দিল্লী যৌথভাবে দেশের ৪৭০ কিলোমিটার নৌপথ খনন প্রটোকল অনুমোদন
  • করদাতা বাড়লে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হতে সময় লাগবে না
  • ধানের শীষে নির্বাচন করবে ৮টি দল
  • Developed by: Sparkle IT