প্রথম পাতা

  ‘নির্বাচনকালীন সরকার আজই হতে পারে’

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১১-২০১৮ ইং ০৩:০১:২৬ | সংবাদটি ৫১ বার পঠিত

ডাক ডেস্ক : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, এবার নির্বাচনকালীন সরকার কেমন হবে, শুক্রবারই (আজ) তা জানা যেতে পারে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, এবার নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় নতুন কোনো মুখ নাও আসতে পারে।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়ে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন।
তবে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে স্পষ্ট কোনো ব্যাখ্যা এখন সংবিধানে নেই। বর্তমান ব্যবস্থায় ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনেই নির্বাচন হয়। ভোটের আগে সংসদ ভেঙে দেওয়ার প্রয়োজন হয় না, তবে তিন মাসের ক্ষণ গণনা শুরু হলে সংসদের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ থাকে।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার অধীনে অপেক্ষাকৃত ছোট একটি মন্ত্রিসভা গঠন করেন; যার নাম দেওয়া হয় ‘সর্বদলীয় সরকার’।
ওই মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের শরিক দলগুলোর নেতাদের নেওয়া হয়। স্বল্প পরিসরের ওই মন্ত্রিসভা সরকারের দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্ব পালন করে।
গত ২২ অক্টোবর গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান মন্ত্রিসভায় ‘সব দলের’ প্রতিনিধিই আছেন। আর নির্বাচনকালীন সরকারের আকার ছোট করা হলে উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। ফলে এবার নির্বাচন সামনে রেখে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের প্রয়োজন আছে বলে তিনি মনে করছেন না।
তফসিলের সময় ঘনিয়ে আসায় বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে প্রশ্ন করেন সাংবাদিকরা।
উত্তরে মুহিত বলেন, “কালকে, কালকের পরে নির্বাচনকালীন সরকার হবে।”
তার উত্তর শুনে সাংবাদিকরা জানতে চান, শুক্রবারই মন্ত্রিসভার পুনর্গঠন হচ্ছে কি না। জবাবে মুহিত বলেন, “মনে হয় হচ্ছে।”
মন্ত্রিসভায় নতুন করে কাউকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে কি না- এ প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, “বোধ হয় হচ্ছে না।”
সাংবাদিকরা আবারও এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে মুহিত বলেন, “মোটামুটি নিশ্চিত। কারণ সরকারটা তো কোয়ালিশন সরকার। এমন কোনো সদস্য নেই যাকে দেওয়ার দরকার আছে। সুতরাং আমার মনে হয় না কোনো রকম অ্যাডিশন হতেই হবে।”
চারজন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীর পদত্যাগপত্র গ্রহণ না হওয়া পর্যন্ত তাদের মন্ত্রিত্ব থাকবে বলেও জানান মুহিত।
তিনি বলেন, “তারা (পদত্যাগপত্র দেওয়া চার মন্ত্রী) এখনও আছেন, একসেপ্ট করতে হবে তো। একসেপ্ট সম্ভবত কালকে হবে। আজকে রাতেও হতে পারে।”
ওই চার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে কে আসছেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, “যারা আছেন তারাই কেউ চার্জে থাকবেন। যার মিনিস্ট্রি একটা আছে তার মিনিস্ট্রি দুইটা হয়ে যাবে।”
আসন্ন নির্বাচনে আবার প্রার্থী হবেন কি-না সেই প্রশ্নে মুহিত বলেন, “না না, আমি তো দাঁড়াব না, দ্যাটস মাই ডিসিশন। আমি নমিনেশন পেপার সাবমিট করবো। ডামি কিছু সাবমিট করতে হয়। যদি আমার ক্যান্ডিডেট যে হবে সে মিস করে যায় তাহলে আমাকে দাঁড়াতে হবেÑ এ রকম ধরনের। ইট ইজ এ রুটিন ব্যাপার।”
কেন নির্বাচনে দাঁড়াবেন না- সেই প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমি অবসর নিতে চাই, আমার মনে হয় আমার অবসর নেওয়া উচিত।”

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • সিলেটে উন্নয়নের ‘ধীরগতি’র বদনাম ঘুচাতে হবে
  • মন্ত্রণালয়কে দুর্নীতিমুক্ত করা আমার প্রথম কাজ
  • ১৯ জানুয়ারি মহাসমাবেশে যোগ দিতে সিলেট আওয়ামী লীগের আহবান
  • ‘সিলেট হবে দেশের প্রথম ডিজিটাল নগরী’
  • খালেদা জিয়া অসুস্থ, আদালতে যেতে পারেননি
  • মুসলিম উম্মাহ’র ঐক্যের ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর
  • সিলেটে হযরত শাহজালাল (রঃ) মাজার জিয়ারত করলেন পরিবেশ মন্ত্রী
  • ফের কয়লা আমদানী বন্ধ
  • দক্ষিণ সুরমায় রিকশা চালককে পিটিয়ে খুন
  • সুনামগঞ্জের হাওরসমূহে এখনো বাঁধের কাজ পুরোপুরি শুরু হয়নি
  • রাজশাহীতে থামলো ঢাকার ‘জয়রথ’
  • রংপুরকে হারিয়ে জয়ে ফিরলো সিলেট
  • ‘মা’ মানেই বেঁচে থাকার নি:শ্বাস
  • শাবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন
  • শাবিতে নবাগত শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন আজ ও আগামীকাল
  • নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ, বিতর্কিত: টিআইবি
  • অসহায় মজলুম মানুষের খেদমতে আত্মনিয়োগ করুন
  • টিআইবির প্রতিবেদন পূর্বনির্ধারিত মনগড়া: রফিকুল
  • সামাদ আজাদ ও ‍হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চাই
  • প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পদে জয়ের পুনঃনিয়োগ
  • Developed by: Sparkle IT