প্রথম পাতা

চলে গেলেন ‘নাগরী স্যার’ খ্যাত প্রফেসর এরহাসুজ্জামান

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ১৪-১১-২০১৮ ইং ০২:৫৯:১৯ | সংবাদটি ৫৬০ বার পঠিত

 চলে গেলেন সিলেট সরকারি এমসি কলেজের সাবেক অধ্যাপক এরহাসুজ্জামান (ইন্নালিল্লাহি......রাজিউন)। শহরে তিনি ‘নাগরী স্যার’ নামে পরিচিত হলেও গ্রামের লোকজন তাকে চিনতো ‘আয়না পীর’ নামে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিলেট সদর উপজেলার বাবুরাগাঁওয়ে নিজ বাড়িতেই তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।
প্রফেসর জামান সিলেটে প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া ‘নাগরী লিপি’র প্রচার, প্রসার ও নাগরী লিপি রক্ষায় মুখ্য ভূমিকা রেখেছিলেন। গণিতের স্যার হলেও নাগরীর প্রতি তাঁর প্রেম ভালোবাসার কারণে সবার কাছে ‘নাগরী স্যার’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে গণিত বিভাগের সাবেক এই অধ্যাপক ব্যক্তি জীবনে অকৃতদার ছিলেন। তিনি অতি সাধারণ জীবনযাপনে অভ্যস্ত ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ির অদূরে হাওর পাড়ে ছোট্টকুঁড়ে ঘরে জীবনের শেষ সময় কাটিয়েছেন। স্থানীয়রা তাকে ‘আয়না পীর’ হিসেবেই ডাকতেন। প্রফেসর এরহাসুজ্জামান ছিলেন বৈচিত্র্যময় জীবনের অধিকারী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ শিক্ষা সমাপন করে বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে যোগ দেন তিনি। সিলেট এমসি কলেজ, ময়মনসিংহ এমএন কলেজে অধ্যাপনা করেন। সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজে ভাইস প্রিন্সিপাল হিসাবে তিনি সরকারি চাকুরি থেকে অবসর নেন। কর্মজীবনে তিনি কুমিল্লা টিটি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেন। এতিম ও দরিদ্র মানুষের প্রতি ছিল তার বিশেষ দরদ । নিজে নিজে পবিত্র কোরআন হেফজ (মুখস্থ) করেছিলেন এবং বছরের বেশিরভাগ সময় তিনি রোজা রাখতেন। ছিলেন সম্পূর্ণ দুনিয়া বিমুখ। হাওরের পারে ছোট্ট একটি ঘর করে ১০/১২ জন এতিমকে নিয়ে তিনি বসবাস করতেন। ১৯৮৬ সালে তিনি চেঙ্গেরখালে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে দেন। তিনি বিভিন্ন জটিল রোগেরও চিকিৎসা করতেন। দক্ষিণ সুরমার চান্দাইসহ বিভিন্ন স্থানে তিনি মাদ্রাসাসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। তিনি অর্জিত অর্থ মানুষের মধ্যেও বিলিয়ে দিতেন। সারাদেশে তাঁর অসংখ্য ছাত্র রয়েছে।
মরহুমের নিকটাত্মীয়, নগরীর পাঠানটুলা গোয়াবাড়ি এলাকার বাসিন্দা সমাজকর্মী আলহাজ্ব ফজলুর রহমান জানান, শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজের প্রতিষ্ঠাতা শিক্ষক ছিলেন তিনি। তাঁর বাবা মাওলানা নজাবত আলী ভারতের দেওবন্দ মাদ্রাসা থেকে উচ্চ শিক্ষা লাভ করেন। তাঁর (বাবা) ছিলেন একজন প্রখ্যাত মুফতি। অধ্যাপক এরহাসুজ্জামান মায়ের কাছ থেকে নাগরী শিক্ষা লাভ করেন। তাঁর অপর ভাই ছিলেন মরহুম মাওলানা বদিউজ্জামান তারা মিয়া। তাঁর ৫ বোনের সবাই মারা গেছেন।
নাগরী স্যারের ভাতিজা ছালিকুজ্জামান জানান, গতকাল মঙ্গলবার হাওর পারের ওই ছোট্ট কুঁড়েঘরে মাগরিবের নামাজ আদায় করে শুয়ে পড়েন তিনি। কিছুক্ষণ পর তার সঙ্গে থাকা অন্ধ হাফিজ তাকে ডাকলে ‘নাগরী স্যার’ আর সাড়া দেননি। ওই অন্ধ হাফিজ সব সময় তাঁর সঙ্গেই থাকতেন। তিনি জানান, তার ভাইসহ কিছু স্বজন যুক্তরাজ্যে বসবাস করছেন। তারা জানাজায় অংশ নিতে চান। এ জন্য তাঁর জানাজার সময় এখন নির্ধারণ করা হয়নি।
তাঁর মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে মঙ্গলবার রাতেই অনেকে তাঁর বাড়িতে অনেকে ভিড় করেন।
হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই তিনি মৃত্যু বরণ করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ড. এ কে মোমেনের শোক: সিলেট সরকারি এমসি কলেজের সাবেক অধ্যাপক এরহাসুজ্জামানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, নাগরী স্যার খ্যাত এই গুণী মানুষের মৃত্যুতে জাতি একজন নিভৃতচারী গবেষককে হারালো। তিনি তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
মোস্তফা সেলিমের শোক ॥ দেশের এক অনন্য মানুষ ‘নাগরী স্যার’ খ্যাত অধ্যাপক এরহাসুজ্জামান এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিশিষ্ট নাগরী গবেষক উৎস প্রকাশনের কর্ণধার মোস্তফা সেলিম। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, অধ্যাপক এরহাসুজ্জামান নাগরী বর্ণমালা হাতে লিখে, তাঁর কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয়ে বই প্রকাশ করে ছাত্র-শিক্ষক এবং পরিচিতবৃত্তের মানুষের হাতে হাতে তুলে দিতেন। নাগরীলিপি লালন ও চর্চায় আজীবন অবদান রাখার জন্য তাঁকে উৎস প্রকাশনের পক্ষ থেকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। তিনি শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য স্যারের মরদেহ সুরমা মার্কেট সংলগ্ন নাগরী চত্বরে রাখার জন্য সিলেটের লেখক, সাংবাদিক এবং সংস্কৃতি কর্মীদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

 

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • নিকাহনামার ক্ষেত্রে বৈষম্য ঘুচলো
  • শুল্কমুক্ত গাড়ি সুবিধা মুহিতের সুনামের সঙ্গে মানানসই হবে না: টিআইবি
  • সরকার প্লট দিলে ‘চিরকৃতজ্ঞ’ থাকবেন রুমিন
  • শুল্কমুক্ত গাড়ি সুবিধা মুহিতের সুনামের সঙ্গে মানানসই হবে না: টিআইবি
  • রাজনীতিতে এক এগারোর ধারা চলছে: ফখরুল
  • নাগরিকত্ব দিলে একসঙ্গে মিয়ানমারে ফিরব, ঘোষণা রোহিঙ্গাদের
  • বিদেশ যেতে ইচ্ছুকদের সাথে প্রতারণা ঠেকাতে নজরদারি জোরদারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  • কৃষি আমাদের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি
  • সিসিকের ৭৮৯ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা
  • আজ থেকে সিকৃবিতে ‘সাসটেইনেবল ফিসারিজ’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন
  • বড়লেখা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে ১ বাংলাদেশী নিহত
  • জাউয়ায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র নিহত, খুনী আটক
  • সিসিক-এর বাজেট ঘোষণা আজ
  • বনরক্ষায় গাছ চুরি প্রতিরোধে প্রয়োজনে জিরো টলারেন্স গ্রহণ করা হবে : বনমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনই উত্তম পন্থা
  • রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে যুক্তরাষ্ট্র সবই করবে: মিলার
  • পাচারের ৩৩ ঘটনায় ৫১টি বাঘ বাংলাদেশের : জরিপ
  • মনে রাখতে হবে মিয়ানমারেরও শক্তিশালী বন্ধু আছে: কাদের
  • সবার জন্য কর্মসংস্থান নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার....... পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • আজ কুমিল্লার দেবিদ্বারে অধ্যাপক মোজাফফরের দাফন
  • Developed by: Sparkle IT