শেষের পাতা উঁকি দিচ্ছে ইতিহাস

লাউড় রাজ্যের হলহলিয়া দুর্গ ও গৌড় গোবিন্দ রাজবাড়ির উৎখনন কাজ শুরু

রমেন্দ্র নারায়ন বৈশাখ, তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ)থেকে প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-১১-২০১৮ ইং ০২:৫৪:১৫ | সংবাদটি ২১০ বার পঠিত

 তাহিরপুর উপজেলার লাউড় রাজ্যের রাজধানী’র হলহলিয়া দুর্গ ও পাশের ব্রাহ্মণগাঁওয়ের গৌর গবিন্দ রাজবাড়ির উৎখননের কাজ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীরা এই খনন কাজ শুরু করেছে। উৎখনন কাজের উদ্বোধন করেন সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোঃ বরকতুল্লাহ খান। উদ্বোধনকালে উপস্থিত ছিলেন-তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পূর্ণেন্দু দেব,তাহিরপুর জয়নাল আবেদীন ডিগ্রী কলেজ অধ্যক্ষ ফণী ভূষণ সরকার। প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগীয় আঞ্চলিক পরিচালক ড. মো. আতাউর রহমান জানান, প্রাচীন নিদর্শন রক্ষা, ইতিহাস সম্পর্কে জানা ও পর্যটন বিকাশের উদ্দেশ্যে ৯ জনের একটি টিম ২ মাসব্যাপী এ খনন কাজ করবেন।
উৎখনন কাজে অংশ গ্রহণের জন্য কুমিল্লার শালবন বিহারের ময়নামতি জাদুঘরের কাস্টোডিয়ান ড. আহমেদ আবদুল্লাহ্, ময়নামতি জাদুঘরের সহকারী কাস্টোডিয়ান মো. হাফিজুর রহমান, প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগীয় আঞ্চলিক পরিচালক অফিসের সিনিয়র ড্রাফটসম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, সার্ভেয়ার জালাল আহমেদ, আলোকচিত্রি মো. নুরুজ্জাামান মিয়া, পটারী রেকর্ডার মো. ওমর ফারুক, অফিস সহায়ক লক্ষণ দাস বর্তমানে উৎখনন কাজে লাউড়েরগড়ে অবস্থান নিয়েছেন।
প্রসঙ্গত, সুনামগঞ্জের ধারারগাঁওয়ের বাসিন্দা বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি)’র চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ সাদিক ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ও প্রতœতত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের দেশ ও জাতির ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং প্রতœতাত্ত্বিক গুরুত্ব বিচারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে আধাসরকারি পত্র দিয়েছিলেন।
ড. মোহাম্মদ সাদিক তাঁর পত্রে আরও উল্লেখ করেন, সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলায় প্রাচীন লাউড় রাজ্যের রাজধানী ছিল। এখানকার রাজা ভগদত্ত মহাভারতের যুদ্ধে অর্জুনকে সৈন্য পাঠিয়ে সাহায্য করেছিলেন বলেও তথ্য রয়েছে। মহাভারতের প্রথম বাংলায় অনুবাদকারী মহাকবি সঞ্জয়’র নিবাসও এই এলাকায়। হযরত শাহজালাল (র.)’এর সঙ্গী শাহ আরেফিন (র.) এবং মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্যের সহচর অদ্বৈতাচার্যের সঙ্গে সম্পর্কিত এই এলাকা। চিঠিতে তিনি এ ব্যাপারে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতœতত্ত্ব বিভাগের সহযোগিতা কামনা করেন। না হয়, এই এলাকা ভূমিদস্যুদের দখলে চলে যাবে এবং কালের গর্ভে হারিয়ে যাবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এরপর থেকে কয়েকবারই প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের গবেষকরা এই অঞ্চল পরিদর্শন শেষে গতকাল থেকে উৎখনন কাজ শুরু করে।

 

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • মন্দিরের জায়গা দখল করতে আসলে হাত পা ভেঙ্গে দেওয়া হবে ......... প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী
  • মায়ের লাশ বাড়িতে মেয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে
  • বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন আন্দোলনে সফলতা এসেছে -----মিলাদ গাজী এমপি
  • মৌ’বাজারে কাশীনাথ স্কুল এন্ড কলেজের বরখাস্তকৃত অধ্যক্ষকে নিয়ে উত্তেজনা
  • কোম্পানীগঞ্জ থেকে ২শ’ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার
  • কিশোরগঞ্জে চুরি হওয়া গরুর সন্ধান দিল কুকুর!
  • রোহিঙ্গাদের জন্য ৯২০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা চেয়েছে জাতিসংঘ
  • প্রচন্ড রোদে লাখো মুসল্লির জুমার নামাজ আদায়
  • ব্রেক্সিট নিয়ে পার্লামেন্টে আবার পরাজিত মে
  • জাউয়ায় সেই বখাটে গ্রেফতার
  • সিলেট প্রেসক্লাবের ফ্যামিলি ডে আজ
  • ‘বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে এসেছিল অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে’
  • শুধু নিরাপত্তার জন্য নয় সাঁতার একটি ভাল শারীরিক ব্যায়ামও ------- বনমালী ভৌমিক
  • আজ যে সব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে
  •   কমলগঞ্জের হামহাম জলপ্রপাতে দুই বিদেশি পর্যটকের আবর্জনা পরিষ্কার
  • শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে
  • বিশ্বনাথে আ’লীগ নেতার বাড়িতে ডাকাতি স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ মালামাল লুট
  • সিলেটে শিল্পকলার বর্ণাঢ্য বসন্ত উৎসব অনুষ্ঠিত
  • জগন্নাথপুরে বিদ্যুতের বকেয়া বিল ৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা অভিযানে নামছে কর্তৃপক্ষ
  • ছাতকে নাইন্দার হাওর চাকুয়া গ্রুপ জলমহালে মৎস্য আহরণে দু’পক্ষ মুখোমুখি
  • Developed by: Sparkle IT