উপ সম্পাদকীয় খোলা জানালা

ভোটের অর্থনীতি চাঙ্গা হচ্ছে

আর কে চৌধুরী প্রকাশিত হয়েছে: ০২-১২-২০১৮ ইং ০০:১৫:১১ | সংবাদটি ৩২ বার পঠিত

প্রতিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটের অর্থনীতি চাঙ্গা হয়ে ওঠে। একাদশ সংসদ নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে ততই ফেপে ফুলে স্ফীত হচ্ছে ভোটের অর্থনীতি। বিশেষজ্ঞদের মতে, দুটি ঈদের কথা বাদ দিলে ‘সংসদ নির্বাচনী উৎসব’ই সবচেয়ে বড় উৎসব, যদিও তা পাঁচ বছর পরপর আসে। স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে কেন্দ্র করেও চাঙ্গা হয়ে ওঠে ভোটের অর্থনীতি। দশম সংসদ নির্বাচনে ভোটের অর্থনীতি মার খাওয়ার প্রধান কারণ অর্ধেকেরও বেশি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিল না। ফলে টাকাও সেভাবে গ্রামাঞ্চলে যায়নি। কিন্তু এবারের চিত্র ভিন্ন। এ বছর যেন ঘরে ঘরে প্রার্থী। অন্তত দুই শতাধিক ব্যবসায়ীও এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। ফলে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সারা দেশে নগদ অর্থের সরবরাহ বাড়বে আগের চেয়ে কয়েক গুণ। অক্টোবরের শুরুতে বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত বাংলাদেশের অর্থনীতির হালনাগাদ প্রতিবেদনে বলা হয়, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কয়েকটি চ্যালেঞ্জ রয়েছে। সেগুলো মোকাবিলা করতে পারলে বছর শেষে ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন হবে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের কথা মনে রেখে নির্বাচন কমিশনের জন্য সরকার ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে ১ হাজার ৮৯৫ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে। এ বরাদ্দ আগের বছরের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশন ৭০০ কোটি টাকা চেয়েছে নির্বাচনকে নিরপেক্ষ করার জন্য। স্থানীয় নির্বাচন ও অন্যান্য নির্বাচনের জন্য আরও ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়েছে কমিশন। ইতিমধ্যে ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে শহর ও গ্রামের নানা জায়গা। চায়ের দোকান, মুদি দোকান, বিলাসবহুল শপিং মলে চলছে নির্বাচনী আড্ডা ও প্রচার-প্রচারণা; যার একটা শক্ত প্রভাব পড়ছে অর্থনীতিতে। নির্বাচনে প্রতিটি প্রার্থী ২৫ লাখ টাকা ব্যয় করতে পারবেন নির্বাচনী প্রচারণায়। তবে কোনো কোনো প্রার্থীর নির্বাচনী ব্যয় যে কোটি টাকার অঙ্কও ছাড়াবে এটি একটি ওপেন সিক্রেট। অনুমিত হিসেবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই ব্যয় সার্থক হবে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হলে, নির্বাচনে জনরায়ের সত্যিকারের প্রতিফলন ঘটলে।
দেশের রাজনীতি এখন নির্বাচনমুখী। নির্বাচনকে সামনে রেখে জোট, মহাজোট গড়ার প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। আবার জোট ভাঙা এবং নতুন করে জোট গড়া, বিদ্যমান জোটসমূহ আরো সম্প্রসারণের বিষয় নিয়ে রাজনীতির মাঠ এখন সরগরম হয়ে আছে। বাংলাদেশের মানুষ নির্বাচন নিয়ে সবসময় উৎসবমুখর পরিবেশ চায়, অবশ্য এটা নির্ভর করবে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলির নির্বাচনী তৎপরতার ওপর।
আমরা মনে করি, সরকার এবং নির্বাচন কমিশন নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য অংশগ্রহণমূলক করতে সংবিধানের আলোকে এবং বিদ্যমান বিধিবিধান অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রসঙ্গে যে সব বক্তব্য আনছে সে ব্যাপারে তাদের আশ্বস্ত করার দায়িত্ব সরকারের। সেই সাথে নির্বাচন কমিশনকেও সকল দলের জন্য নির্বাচনী প্রচারে সম-সুযোগ দেওয়ার ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে হবে এখন থেকেই। প্রশাসনকে নিরপেক্ষ রেখে নির্বাচনমুখী করার কাজটিও যথাযথভাবে নির্বাচন কমিশনকে করতে হবে।
নির্বাচনের পূর্বাপর আইনশৃঙ্খলা রক্ষা এবং সন্ত্রাস, নাশকতারোধে প্রশাসনকে কঠোর হতে হবে। এ ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দল ও জনগণকেও সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। কোনভাবেই মাস্তান-পেশীশক্তির ক্যাডারদের রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় আনা যাবে না। নির্বাচনের পূর্বে সন্ত্রাসী কিংবা দাগী অপরাধীরা যাতে জামিনে বেরিয়ে আসতে না পারে সে ব্যাপারটিতেও সতর্ক দৃষ্টি দিতে হবে।
লেখক : মুক্তিযোদ্ধা।

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • মুক্তিযুদ্ধে জাতীয় চার নেতা
  • বিজয়ের ৪৭ বছর
  • প্রত্যাশা ও বাস্তবতা : বিজয়ের সাতচল্লিশ বছর
  • মুশকিল আসানের এক সৈনিক আব্দুল মঈদ চৌধুরী
  • রপ্তানিতে সুবাতাস, ইতিবাচক বাংলাদেশ
  • রপ্তানিতে সুবাতাস, ইতিবাচক বাংলাদেশ
  • ডিসেম্বর আমাদের অহংকারের মাস
  • পোশাক শিল্পের অগ্রগতি
  • উন্নয়ন, আদর্শ ও মনস্তাত্ত্বিক প্রেক্ষিত
  • প্রসঙ্গ : রিকসা ভাড়া
  • পেছন ফিরে দেখা-ক্ষণিকের তরে
  • অবাধ ও সুষ্ঠু নিবার্চনের প্রত্যশা
  • শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির প্রসার
  • বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার
  • বাংলাদেশের উৎসব
  • ‘শান্তি জিতলে জিতবে দেশ’
  • মানবাধিকার মুক্তি পাক
  • অদম্য বাংলাদেশ
  • নারী আন্দোলনে বেগম রোকেয়া
  • আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও জনমানস
  • Developed by: Sparkle IT