সম্পাদকীয়

‘লাল-সবুজের’ সাগর

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-০২-২০১৯ ইং ০০:৫৪:৪৫ | সংবাদটি ৩১ বার পঠিত


রং বদলে যাচ্ছে সাগরের পানির। নীল সাগরের নীল পানি হয়ে যাচ্ছে আরও নীল, হচ্ছে সবুজ। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে সাগর তার রূপ পাল্টাচ্ছে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে চলতি শতাব্দীর শেষে সাগর-মহাসাগর আরও নীল ও সবুজ রূপ ধারণ করবে। গবেষণায় বলেছেন বিজ্ঞানীরা, জলবায়ু পরিবর্তন পানিতে বসবাসকারী ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্ভিদ ও জীবের ওপর যে প্রভাব পড়ে, সেই কারণে রংয়ের এই পরিবর্তন ঘটছে। আর এই পরিবর্তনকে বিজ্ঞানীগণ ‘ফাইটোপ্ল্যাকটন’ নামে অভিহিত করেছেন। এই ফাইটোফ্ল্যাকটনে আলোক সংশ্লেষণের মাধ্যমে সূর্যের আলো রাসায়নিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয়। সেই সাথে মহাসাগরের অন্যান্য রঙিন উপাদানগুলো এর দ্বারা প্রভাবিত হয়। স্থলভাগের গাছপালা যেভাবে সবুজ হয়, সমুদ্রের বিভিন্ন জীবের ওপর বিভিন্ন ধরণের ফাইটোপ্ল্যাকটনের প্রভাবে সমুদ্রপৃষ্ঠের রংয়েরও অনুরূপ পরিবর্তন ঘটে।
বৈশ্বিক উষ্ণতা বাড়ছে। এটি একটি আতংকের বিষয় বিশ্ববাসীর জন্য। উষ্ণতা বাড়ছে আর মানবজাতির জন্য নানা ধরণের বিপর্যয় বেড়ে চলেছে। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিকে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধি হিসেবেও অভিহিত করা হয়। বিজ্ঞানীদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তনের মূল কারণ জীবাশ্ম জ্বালানীর ব্যবহার, যা বাতাসে কার্বনডাই অক্সাইড ও অন্যান্য গ্রীণহাউস গ্যাস নিঃসরণ করে। এই গ্যাস বায়ুমন্ডলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে। যার ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং খরার প্রবণতা বাড়িয়ে দিচ্ছে। বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে সাম্প্রতিক সময়ে সুমেরুবৃত্ত ও এর আশেপাশের বরফ গলে যাবার হার দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে। বরফ গলার এই হার ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালের তুলনায় ২০০০-২০১০ সালে তিন গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর পেছনে দায়ী পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি। যার ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়ে অনেক দেশের জনবসতির জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশসহ উপকূলীয় অনেক দেশের বিস্তির্ণ জনপদ নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশংকার মধ্যে রয়েছে। তাছাড়া, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে আবহাওয়ায় ব্যাপক অসামঞ্জস্যতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। বর্তমানে সাম্প্রতিক তাপমাত্রার বৃদ্ধি এক থেকে দুই শতাংশ। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, দুই শতাংশ বৃদ্ধি হচ্ছে আমাদের তাপমাত্রা নিরাপত্তাসীমা।
উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে সমুদ্রের রং পাল্টাচ্ছে। ২১০০ সালে সমুদ্রের তাপমাত্রা তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে গেলে উত্তর আটলান্টিকসহ অর্ধেকের বেশী মহাসাগরের রং পরিবর্তন হয়ে যাবে। তার লক্ষণ পরিস্ফুট হচ্ছে এখনই। সবচেয়ে বড় কথা ফাইটোপ্ল্যাকটন হচ্ছে জনসংখ্যার পরিবর্তনের প্রতিফলন। যা মেরুর কাছাকাছি সমুদ্র বরফের ওপর প্রভাব ফেলে ও তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে। সাগরের এই রং বদল কেউই দেখতে চায়না। অর্থাৎ বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে জনজীবনে যে বিপর্যয় নেমে আসছে, সেটা প্রত্যাশিত নয়। সকলের প্রচেষ্টায় উষ্ণতা বৃদ্ধির সবধরণের কারণ দূরীভূত হোক, এটাই প্রত্যাশা।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT