প্রথম পাতা  নির্ধারিত সময়ের দু’মাস পেরিয়ে গেছে

সুনামগঞ্জে বোরো ফসলরক্ষা বাঁধের ৩৫ ভাগ কাজই শেষ হয়নি এখনো

প্রকাশিত হয়েছে: ১১-০২-২০১৯ ইং ০৩:২৪:১৪ | সংবাদটি ৪৬ বার পঠিত

 নির্ধারিত সময়ের প্রায় দু’মাস পেরিয়ে গেলেও সুনামগঞ্জের হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ ৩৫ ভাগও সম্পন্ন করতে পারেনি বিভিন্ন প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্টেশন কমিটি(পিআইসি)। জেলার ১১টি উপজেলায় ১৫৪টি হাওরের বোরো ধান চাষ হয়। এর মধ্যে জেলার ৩৭টি হাওরে ৫৬৬ টি প্রকল্পে পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধানে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ করে পিআইসি। এবার নির্ধারিত সময়ের প্রায় দু’মাস পেরিয়ে গেলেও ২৫ ভাগ প্রকল্পের কাজ এখনও শুরু হয়নি। এ অবস্থায় এসব প্রকল্প এলাকার কৃষকরা বোরো ধান গোলায় তোলা নিয়ে শংকিত হয়ে পড়েছেন।
কৃষকদের অভিযোগ পিআইসি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্ট সেকশন অফিসার (এসও) শাখা কর্মকর্তাদের যোগসাজসে বাঁধের কাজ সময় মতো হয়নি। কৃষকদের অভিযোগ পিআইসি নদীতে পানি আসার অপেক্ষা করে। নদীতে পানির তোড়জোর না থাকলে তারা কাজ শুরু করে দেরীতে। নামমাত্র কাজ করে সমুদয় বিল তোলে নেওয়ার মতলব আটতে থাকে তারা। পাউবো সূত্রে জানা যায়, নীতিমালা অনুযায়ী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে পিআইসি গঠন ও ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করা এবং ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাঁধের কাজ শেষ করার নির্দেশনা রয়েছে। এ নির্দেশনার বিপরীতে ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জেলার ৫৬৬টি পিআইসির মধ্যে ২৫ ভাগ পিআইসি হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ শুরুই করেনি। কাজ শুরু না করেও প্রকল্প এলাকায় কাজের বিবরণ দিয়ে অগ্রিম কাজ শুরু করার তারিখ লিখে রাখা হয়েছে সাইবোর্ডে। এ সাইনবোর্ড গুলোতে তারিখের ঘর খালি রেখে মাসের ঘরে জানুয়ারি আর বছরের ঘরে ২০১৯ লিখে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে পিআইসির বড় রকমের শুভঙ্করের ফাঁকি রয়েছে বলেও জানান কৃষকরা।
এছাড়াও, দিরাই উপজেলার চরনাচর ইউনিয়নের ২৪, ৩৭, ৫০,৫১ ও ৫৩ নম্বর পিআইসিসহ জেলার বিভিন্ন প্রকল্পে প্রয়োজনের অতিরিক্ত বরাদ্দ দেওয়ায় ও কৃষকরা এ বরাদ্দকে হাওর লুটপাটের মহোৎসব বলে আখ্যাা দিয়েছেন।
এদিকে, সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড দাবি করছে এ পর্যন্ত ৪৫ ভাগ বাঁধের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু, কৃষকরা বলছেন তার উল্টো কথা। হাওরপাড়ের কৃষকদের দাবি এখন পর্যন্ত জেলায় ৩০ ভাগের উপর কাজ করেনি পিআইসি। শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের শরীফপুর গ্রামের আজমান আলী সিলেটের ডাককে জানান, দুমাস আগে বাঁধের কাজ শুরু করার কথা থাকলে ২ থেকে ৩ দিন আগে এ এলাকায় বাঁধের কাজ শুরু করেছে পিআইসি।
জেলার তাহিরপুর উপজেলার মাটিয়ান হাওরে সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, এ হাওরের ৩০ প্রকল্পের মধ্যে সিকিভাগ প্রকল্পে কাজ শুরুই হয়নি। এগুলোর মধ্যে ৪৯, ৫৩ ও ৫৪ নম্বর পিআইসি এখনও বাঁধে এক মুঠো মাটিও ফেলেনি। বাকি সিকিভাগে সবেমাত্র কাজ শুরু হয়েছে।
মাটিয়ান হাওরের দুর্গম এলাকা ছিলানী তাহিরপুর। এ গ্রামের ইয়াছিন নূর জানান, এলাকায় পিআইসি সভাপতি সম্পাদকরা রাজনৈতিক ছত্র ছায়ায় চলেন। কাজের গুণগত মান নিয়ে কৃষকরা কথা বললে তাদের হুমকি ধমকি দেওয়া হয়। একই গ্রামের নূরুল আমিন জানান, তাদের গ্রামের পাশে একটি বাঁধে কিছু মাটি ফেলে গিয়েছে পিআইসি। কিন্তু কে পিআইসি সভাপতি, কে সম্পাদক তা কিছুই জানেন না। কারণ এখানে কোন সাইবোর্ড দেওয়া হয়নি। কিছু শ্রমিক দু’দিন মাটি কেটে একটি কোন রকম গুজামিল দিয়ে গেছে।
‘হাওর বাঁচাও,সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনে’র কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আবু সুফিয়ান সিলেটের ডাককে জানান,‘ এখন পর্যন্ত সামগ্রিকভাবে ৩০ থেকে ৩৫ ভাগের উপর বাঁধের কাজ হয়নি। তিনি জানান, ধর্মপাশা, তাহিরপুর, শাল্লা ও দিরাই উপজেলার দূর্গম হাওর এলাকার ২৫ ভাগ পিআইসির কাজ এখন পর্যন্ত শুরু করেনি।’ তিনি আরো জানান, পাউবোর কর্মকর্তারা জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছের ভাল কাজগুলোতে নিয়ে যায়-যে প্রকল্পগুলোতে এখনও কাজ শুরু হয়নি সেগুলোতে কর্মকর্তাদের নিতে তাদের অনাগ্রহ। এটাও তাদের একটি দুরভিসন্ধি। সময়মতো বাঁধের কাজ না হওয়ায় কৃষকরা শংকিত হয়ে পড়েছেন বলে জানান।
সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় ছোট-বড় ১৫৪ টি হাওরে বোরো ধান চাষ করা হয়। এর মধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড ৩৭ টি হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ করে। চলতি মওসুমে এ জেলায় ২ লাখ ১৫ হাজার ৬১৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে ।
জেলা কাবিটা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড এর পওর শাখা-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া সিলেটের ডাককে জেলার ৩৭টি হাওরে ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ ৪৫ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে দাবি করে জানান, এবার ৫৬৬টি প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে ৯৭ কোটি টাকা। এর প্রথম কিস্তি ২৪ কোটি টাকা পিআইসিদের দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় কিস্তির ২৪ কোটি টাকা চলে এসেছে। কাজের অগ্রগতি দেখে টাকা পিআইসির অনুকূলে ছাড় দেওয়া হবে। এখনও যেসব পিআইসি কাজ শুরু করেনি তাদের ব্যাপারে খোঁজ নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • একুশের প্রথম প্রহরে
  • স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকার জন্য জামায়াতের ক্ষমা চাওয়া উচিত : বিএনপি
  • ভাষা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য সুরক্ষা করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
  • চতুর্থ ধাপে ১২২ উপজেলায় ভোট ৩১ মার্চ
  • যুক্ত হলো আরেকটি স্প্যান ১২শ মিটারে পদ্মা সেতু
  • নাইকো: খালেদা হাজির না হওয়ায় পিছিয়েছে শুনানি
  • সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৪৯ জন শপথ নিয়েছেন
  • সিলেট ও মৌলভীবাজারে চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৭৯ জনের মনোনয়ন বাতিল
  • অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ আজ
  • সরকারের চলতি মেয়াদেই পূর্ণাঙ্গ রূপ পাবে সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
  • সুনামগঞ্জে প্রতীক বরাদ্দ পেলেন ১৪৬ প্রার্থী
  • পরিকল্পনামন্ত্রী ৩ দিনের সফরে সিলেট আসছেন আজ
  • মৌলভীবাজারের ৭ উপজেলায় ভোটার ১২ লাখ ৯৭ হাজার ৫১১
  • সুনামগঞ্জের জোয়াল ভাঙ্গার হাওরে দু’মাসে ১০ ভাগ কাজও হয়নি
  • পানিতে ডুবে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের শিশুপুত্রের মৃত্যু
  • সিলেটে ১২ উপজেলায় ভোটার ১৭ লাখ ৯৩ হাজার ৭১০
  • স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিলেট আসছেন আজ
  • অমর ২১ শে
  • জগন্নাথপুরে বাঁধের কাজে গাফিলতির অভিযোগে আটক ৪
  • সুনামগঞ্জে ১৩ ও হবিগঞ্জে ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার
  • Developed by: Sparkle IT