ধর্ম ও জীবন

নারী পুরুষের পর্দা ও পোশাক প্রসঙ্গে

মোহাম্মদ ছয়েফ উদ্দিন প্রকাশিত হয়েছে: ০৮-০৩-২০১৯ ইং ০০:৩১:১৮ | সংবাদটি ৭৯ বার পঠিত

ইসলাম ধর্মে পর্দা করা ফরয। ফরয কাজ না করলে বান্দা/ বান্দির আমল নামায় নেকির মুনকার (ফেরেস্তা) কবিরাহ (বড়) গোনাহ লিপিবদ্ধ করেন। ফরয অস্বীকার করলে ঈমান থাকে না। পর্দা মানে নিজ দেহের বিশেষ অঙ্গ ঢেকে রাখা। জনসম্মুখে প্রদর্শন না করা। নারী পুরুষের ক্ষেত্রে পর্দার নিয়ম ভিন্ন। পুরুষের ক্ষেত্রে নাভীর নিচ থেকে দু’পায়ের হাঁটু পর্যন্ত ঢেকে রাখা ফরয। নারীর ক্ষেত্রে আপাদমস্তক ঢেকে রাখা ফরয। ইসলামি শরি’আ অনুযায়ী পর্দা করা একটি বিধান (আইন)। পার্থিব জীবনে আইন অমান্য করলে বিচারিক প্রক্রিয়ায় দোষীকে দন্ড প্রদান করা হয়। ইসলামি শরি’আর বিধান অমান্য করলে পার্থিব জগতে পার পেলেও পরকালে শাস্তি (আযাব) ভোগ করতে হবে।
বর্তমান সমাজের প্রতি দৃষ্টি দেওয়া যাক। হাঁটু পর্যন্ত ঢেকে রাখলে পুরুষের পর্দার কাজ সম্পন্ন হয়। তবে লুঙ্গি, প্যান্ট ও পায়জামা টাকনুর নিচে গেলে চলবে না। পরনের কাপড় পুরুষদেরকে টাকনুর উপর রাখতে হবে। টাকনুর নিচে পরলে ইসলামি শরি’আর বিধান লঙ্গিত হবে। ইহা হারাম ও কঠিন গোনাহ এর কাজ। অনেকেই পায়ের টাকনুর নিচ পর্যন্ত জামা পরেন। নামাযে দাঁড়ানোর পূর্বে প্যান্ট, পায়জামা ভাজ করে উপরে তুলেন। নামায সমাপ্ত করে ভাজ খুলেন। পরিধেয় বস্ত্রটি পূর্বাবস্থায় চলে যায়। ইহাতে প্রতিয়মান হয়, এ বিধান কেবল নামাযের জন্য প্রযোজ্য। কিন্তু না, পুরুষের জন্য টাকনোর উপর বস্ত্র পরা সর্বাবস্থায় প্রযোজ্য। আজীবন এ বিধি মেনে (আমল করে) চলতে হবে। আমরা ব্রিটিশদের অনুকরণ করে লম্বা প্যান্ট পরতে অভ্যস্থ। হাঁটতে মাটি স্পর্শ করে। এ ফ্যাশন থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। ইসলামি শরি’আর বিধান মতে জামা পরিধান করলে সুন্দরের কমতি (ঘাটতি) হবে না। বরং আল্লাহপাকের বিধান পালিত হবে। এবং কঠিন আযাব থেকে মুক্তির আশা করা যায়।
পক্ষান্তরে মেয়েরা ধরেছে পুরুষের বেশ। আধুনিক অনেক মেয়ে টাকনুর উপর সেলোয়ার পরে থাকেন। এর দু’পায়ের অগ্রভাগ অধিক চওড়া (প্রশস্থ)। হাঁটলে এদিক ওদিক দোল খায়। কেউ কেউ এর দু’পায়ে ৮/১০ সেন্টিমিটার উপরের দিকে দিকে কেটে ফাঁক করে রাখেন। পদ সঞ্চালনে সেলোয়ারের অতি প্রশস্থ অগ্রভাগ দোলনের পাল্লা বহুগুণ বৃদ্ধি পায়। বায়ু প্রবাহকালে হাঁটলে পায়ের পাতা সহ টাকনুর উপরের কিছু অংশ সেলোয়ারের ভেতর থেকে বের হয়। এরূপ জামা পরে সিঁড়ির ধাপ বেয়ে নিচের দিকে নামতে থাকা মেয়ের প্রায় হাঁটু পর্যন্ত নিচ থেকে দৃষ্টিগোচর হয়। এ ধরনের সেলোয়ার নাকি তথাকথিত ফ্যাশন। বিদেশ থেকে আমদানিকৃত। এর বলি হচ্ছে কোমলমতি মেয়েরা। বেপর্দায় থাকতে উদ্বুদ্ধ করা হয়। বেপর্দা আর বেহায়াপনা মুসলিম মহিলা সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে ঢুকতে শুরু করেছে। এ ধরণের বস্ত্র পরা আমাদের সংস্কৃতির অংশ নহে। এ অপসংস্কৃতি ঠেকাতে হবে।
ওড়না মেয়েদের পোশাক। তাদেরকে বোরকা ও ঢিলেঢালা জামা পরতে হয়। বুকের বিশেষ অঙ্গ অদৃশ্য করার জন্য ওড়না দিয়ে ঢেকে রাখা হয়। এর মধ্যভাগ ভাজ করে বুকের উপর রেখে দু’প্রান্ত দু’স্কন্ধের উপর দিয়ে পিঠে ঝুলিয়ে রাখা হয়। বাড়তি সচেতনতার জন্য অনেক মেয়ে সেইফটি পিন দ্বারা দেহের জামার সাথে আটকে রাখেন।
আজকাল ওড়না এর পূর্বের ঐতিহ্য ধরে রাখতে পারছে না। একে আগের অবস্থান থেকে টেনে উপরে তুলে দেওয়া হয়েছে। অনেক মেয়ে ওড়না গলায় বসিয়ে এর দু’প্রান্ত দু’কাধ গড়িয়ে পেছনে ঝুলিয়ে রাখেন। তাতে ওড়নার প্রকৃত লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের উপর কুঠারাঘাত করা হচ্ছে। ভারত থেকে এ ফ্যাশন আমাদের সমাজে অনুপ্রবেশ করছে। ভারতের টিভি ও সিনেমার মহিলারা বিকৃত রূপে জামা পরে অভিনয় করছে। অর্ধনগ্ন ও প্রায় নগ্ন মহিলাদের অভিনয় আমাদের মেয়েদের মগজ ধোলাই করছে। আমাদের মেয়েরা তাদেরকে অনুকরণ করতে গিয়ে নিজ সংস্কৃতি ও কৃষ্টি থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন। ফলে অনেক মেয়ের ওড়না বুকের ওপর থেকে সরে গলা পর্যন্ত ঠেকেছে। তাতে ওড়না পরা আর না পরা একই অর্থ বহন করে। ইহা পরিতাপের বিষয়।
সমাজ পরিবর্তনশীল। সমাজে উন্নয়নের পরিবর্তন কে দেখতে না চান। আগে যেখানে ছিল নড়বড় বাঁশের সাঁকো। সেখানে আজ কাঠের পুল। গ্রাম-গঞ্জে বিদ্যুতায়ন হচ্ছে। রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন হচ্ছে। শিক্ষাদীক্ষার হার প্রসারিত হচ্ছে। এ সব উন্নয়ন উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়ে সমাজ পরিবর্তিত হচ্ছে। তবে ইসলামের মৌলিক বিধান পরিবর্তন করা যাবে না। ইহা ইসলামি আইন। প্রভুর বিধি। রাষ্ট্রীয় আইন পরিবর্তন করতে পার্লামেন্টে বিল পাশ হয়। রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের মাধ্যমে বিলটি আইনে পরিণত হয়। ইসলামি মূল আইন পরিবর্তনের সুযোগ নেই। কিয়ামতের পূর্বে আর কোন নবী রাসুলের আবির্ভাব ঘটবে না। নবুওতের দ্বার চৌদ্ধ শত বছর পূর্বে বন্ধ হয়ে গেছে। সুতরাং ফ্যাশনের নামে ও উদাসীনতার জন্য ইসলামী আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন পরিহার করতে হবে। নারী পুরুষ স্ব স্ব পর্দার বিধি পালন করে ইহকালে কল্যাণ ও পরকালে মাগফিরাতের জন্য মনোনিবেশ করতে হবে।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT