ধর্ম ও জীবন

ইবাদতের বসন্তকাল

মুহাম্মাদ ইমদাদুল হক ফয়েজী প্রকাশিত হয়েছে: ১০-০৫-২০১৯ ইং ০১:২১:৩৮ | সংবাদটি ২৪৯ বার পঠিত

অফুরান করুণা আর মুক্তির শাশ্বত পয়গাম নিয়ে আমাদের মাঝে হাজির রমজানুল মোবারক। তাকওয়ার সোপান সিয়াম সাধনার পাশাপাশি সালাতুত তারাবিহ, তাহাজ্জুদ, কুরআন কারিম তিলাওয়াত ও অন্যান্য ইবাদাতে অন্যান্য মাসের তুলনায় অধিক মনযোগী ও মসগুল হবেন আল্লাহর প্রিয় বান্দারা। ইবাদাতের বসন্তকাল মহিমান্বিত এ মাসে একটি নফল ইবাদাত অন্য যেকোনও মাসের ফরজ এবং একটি ফরজ ইবাদাত সত্তরটি ফরজ ইবাদাত এর পুণ্য সমতুল্য বলে প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ঘোষণা সবার জানা। অপার বরকতময় এ মাসে মহান আল্লাহ তায়ালা মহাগ্রন্থ আল কুরআন নাযিল করেছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জীবদ্দশায় প্রতি রমজান মাসে জিবরাঈল (আ.) নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে আসতেন, কুরআন কারীম তিলাওয়াত করতেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শুনতেন। আবার নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিলাওয়াত করতেন জিবরাঈল আ. শুনতেন।
এ মাস মুমিনদের জন্য মহান প্রভুর পক্ষ থেকে মহা অনুগ্রহ ও বিশাল নিয়ামাত। এমাস সিয়াম সাধনার মাধ্যমে তাক্বওয়া অর্জনের, অবারিত পুণ্য চাষের। এটি কুরআন মাজিদ নাযিলের মাস, কুরআন মাজিদ অধিক থেকে অধিক তিলাওয়াতের মাস, কালামুল্লাহ শরিফ শিখা ও শিখানোর মাস। পৃথিবীর অগণিত মসজিদে সালাতুত তারাবিহ ও নফল সালাতে অগণিত অসংখ্যবার তিলাওয়াত ও খতম হবে পবিত্র কোরআনের। ধরণীর পূর্ব থেকে পশ্চিম, উত্তর থেকে দক্ষিণ সর্বত্র সর্বস্তরের মুমিনেরা কুরআন তিলাওয়াত শিখা-শিখানো, বুঝা-বুঝানো এবং কুরআনের আলোকে জীবন ও সমাজ সাজানোর কাজে অপরাপর মাসের তুলনায় অধিক মনযোগী হন এ মাসে। এর ব্যতিক্রম নয় আমাদের সবুজ-শ্যামল প্রিয় মাতৃভূমিও। আলহামদুলিল্লাহ, বিভিন্ন বোর্ড, সংস্থা, প্রতিষ্ঠান সর্বস্তরের মানুষকে সহিহ-শুদ্ধভাবে কুরআন তিলাওয়াত শিক্ষা দিতে পুরো রমজান মাসব্যাপী কুরআন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু করে কুরআন মাজিদ শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্যভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং মহান এ কাজ আরোও বিস্তৃত করতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।
আল্লাহ তায়ালা তাদের নিষ্ঠাপূর্ণ কাজের উত্তম বিনিময় দান করুন। মহান এ কাজে আমাদের সকলকে অংশগ্রহণ করতে হবে। নিজেকে, পরিবারের সকল সদস্যকে, পাড়া-প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজনসহ প্রতিটি মুমিন ভাই-বোনকে শুদ্ধভাবে কুরআন কারিম তিলাওয়াতে সক্ষম করতে সচেষ্ট হতে হবে৷ বিশেষত, রমজান মাসে এটিকে আমাদের মিশন হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ ঐশীগ্রন্থ আল কুরআন এবং মহিমান্বিত রমজানুল মোবারক এর অন্যতম দাবিও এটি আমাদের প্রতি। মহান আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেনÑ ‘তোমরা শুদ্ধভাবে কুরআন তিলাওয়াত করো’। (সূরা মুজ্জাম্মিল)
অপরদিকে মহৎ এ কাজে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে আমরা হয়ে যাবো উম্মতের শ্রেষ্ঠ মানুষ। রাহমাতুল্লিল আলামিন সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে উত্তম ব্যক্তি সেই, যে কুরআন শিক্ষা করে এবং অপরকে শিক্ষা দেয়’। (বোখারি শরিফ)
আসুন, আমরা আল্লাহ তায়ালা ও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রিয় হয়ে শ্রেষ্ঠ মানুষ হই। কুরআনের আলোয় আলোকিত হোক আমাদের জীবন, উদ্ভাসিত হোক পুরো বসুন্ধরা।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT