স্বাস্থ্য কুশল মো. দিলশাদ মিয়া

রোগ নিরাময়ে লিচু

প্রকাশিত হয়েছে: ১৩-০৫-২০১৯ ইং ০২:০৪:০০ | সংবাদটি ২৩৪ বার পঠিত

গ্রীষ্মকালের বিভিন্ন ফলের মধ্যে লিচু অন্যতম রসাল ফল। অত্যন্ত স্বল্প সময়ের জন্য এই ফলটি আমরা পাই। লিচু চাষীরা ভালো দামে লিচু বিক্রি করে দুই পয়সা পান। কিন্তু শহর-নগরের গরিব দুঃখী ও খেটে খাওয়া মানুষেরা লিচুর স্বাদ গ্রহণে অক্ষম। লিচু দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি স্বাদে গন্ধে অতুলনীয়। আমরা আনেকেই জানি না লিচু আমাদের দেশি ফল নয়। সুদূর চীন থেকে এক সময় লিচু আসে আমাদের দেশে।
বাংলাদেশে মোটামুটি সব জায়গায় লিচুর চাষ হয়। তবে রাজশাহী, দিনাজপুর ও বগুড়া তথা সমগ্র উত্তরবঙ্গে লিচুর চাষ ভালো হয়। লিচু বিভিন্ন জাতেরও বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমনÑ মাদ্রাজি, বোম্বাই, চায়না, বেদানা, মঙ্গলবাড়ি ইত্যাদি।
লিচু অত্যন্ত আমিষ সমৃদ্ধ ফল। তবে জলীয় অংশ সর্বাধিক, ভিটামিন সি রয়েছে প্রচুর। এছাড়া লিচুতে আছে খনিজ, আঁশ, খাদ্যশক্তি, লোহা, ক্যালসিয়াম, চর্বি ইত্যাদি। লিচু একসাথে আট-দশটির বেশি খাওয়া উচিত না। বেশি খেলে বদহজম হতে পারে। শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবাই খেতে পারে। তবে উপকার পেতে হলে পরিমিত খেতে হবে। শিশুর হাড় গঠনে লিচু অবদান রাখে। শরীরে লোহিত কনিকা গঠনে ভূমিকা রাখে লিচু।
অনেক দিন রোগ ভোগের পর কিংবা প্রসবের পর গর্ভধারিনী মা দুর্বল বোধ করলে দিনের বেলায় ৮-১০টি লিচু সামান্য লবন দিয়ে খেলে উপকার হয়। গ্রীষ্মে পরিশ্রম করে বা প্রচুর ঘাম নির্গত হয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়লে ৮-১০টি লিচুর শাঁস চটকে দেড় কাপ পানি দিয়ে এবং আধা চামচ লবন মিশিয়ে শরবত খেলে ক্লান্তি চলে যায়। শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগলে দৈনিক দুটি লিচু খেতে দিলে পুষ্টি পাবে। এমন দিনে দুবার খেতে দেবেন। চারটি লিচুর শাঁস দেড় কাপ পানিতে সামান্য লবন দিয়ে চটকে শরবত খেলে তৃষ্ণা নিবারণ হয়। যাদের সামান্য পরিশ্রমে বুক ধড়ফড় করে, ক্লান্তি আসে এবং অবসাদে শুয়ে থাকতে হয়, তাদের জন্য চিকিৎসার সাথে দৈনিক ৮-১০টি পাকা লিচু খেলে উপকার হবে। যাদের পেট পরিস্কার হয় না। ক্ষুধা কমে যায়, মুখে অরুচি , তারা দৈনিক লিচুর শরবত খেলে উপকৃত হবেন। আজকাল লিচুর জুস পাওয়া যায়। নির্ভরযোগ্য হলে লিচুর জুস খাওয়া যেতে পারে।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT