উপ সম্পাদকীয় দৃষ্টিপাত

নদীমাতৃক বাংলাদেশ

রঞ্জিত কুমার দে প্রকাশিত হয়েছে: ১৯-০৫-২০১৯ ইং ০০:৩১:৩৯ | সংবাদটি ১৬১ বার পঠিত

নদ-নদী সমৃদ্ধ আমাদের এই বাংলাদেশ। পৃথিবীর আর কোথাও এত অধিক সংখ্যক নদীর প্রবাহ ধারা পরিলক্ষিত হয় না। এদেশের ভৌগোলিক অবস্থানই এরূপ বৈশিষ্ট্যের মূল কারণ। ইন্দো-অস্ট্রেলিয়ান প্লেট নামক অশ্বমন্ডলের যে অংশটির উপর ভারতবর্ষের অবস্থান, সেই প্লেটটির পূর্বাঞ্চলী কিছু অংশ ভূ-অভ্যন্তরীণ শক্তির প্রক্রিয়ায়/সঞ্চিত পলির চাপে ভেঙ্গে গিয়ে সাগরতলে নিমজ্জিত হয়। গাঙ্গেয় ব-দ্বীপ এলাকার অবস্থান সেই নিমজ্জিত অংশের উপর সৃষ্ট। যে কারণে হিমালয় পর্বতের দক্ষিণ ঢালস্থ নদী সমূহের প্রবাহ ধারা এই নি¤œ অঞ্চলমুখী।
নিমজ্জিত অংশটির উত্তর, উত্তর-পূর্ব ও উত্তর পশ্চিম অঞ্চলে বিস্তৃত পার্বত্য ভূমির অবস্থান থাকায়, ঐ সকল পার্বত্য এলাকা থেকে প্রবাহমান ¯্রােতধারা পর্বতের ঢাল বেয়ে ক্রমাগত গাঙ্গেয় নি¤œ এলাকার দিকে ধাবিত হয়। বাংলাদেশের অবস্থান গাঙ্গেয় নি¤œ এলাকাতে হওয়ার কারণে হিমালয় পর্বতের পূর্ব এলাকাস্থ দক্ষিণ ঢালের নদী সমূহ বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে বঙ্গোপসাগরে পতিত। হিমালয় পর্বত অত্যধিক উচু হবার কারণে পাহাড়ের অধিক উচ্চতায় হিমশীতল বায়ুর প্রভাবে সারা বৎসর বরফ জমতে থাকে। এই উচ্চ পার্বত্য এলাকার বরফগলা পানি নদী প্রবাহ সৃষ্টির জন্য অত্যন্ত অনুকূল। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ও বঙ্গোপসাগরে পতিত পদ্মা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা নদী সমূহের উৎপত্তিস্থল এই পার্বত্য এলাকার পানি সরবরাহের উৎসস্থল হওয়ায়, নদীগুলোতে আজও স্বাভাবিক ¯্রােতধারা অব্যাহত।
গাঙ্গেয় সমতল এলাকা উত্তর গোলার্ধে ক্রান্তিয় এলাকায় অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু বিস্তীর্ণ সমুদ্রের উপর দিয়ে আগমনের সময় প্রচুর জলীয়বাষ্প বহন করে আনার কারণে পরিচলন ও শৈলযক্ষেপ প্রক্রিয়ায় এ অঞ্চলে প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটে। মৌসুমী বায়ুর প্রবাহে প্রচুর বৃষ্টিপাত নদীসমূহকে পরিষ্পুট করে তোলে। তাছাড়া শৈলযক্ষেপ প্রক্রিয়ায় পাহাড়ের দক্ষিণ ঢালে পতিত বৃষ্টি ধারা পর্বতের ঢাল বেয়ে অজ¯্র ¯্রােতধারায় নি¤œদিকে প্রবাহিত হয়ে বাংলাদেশের প্রধান প্রধান নদীর সাথে যুক্ত হয়। এসব কারণে বাংলাদেশ নদী সমৃদ্ধ একটি দেশ।
অনাদিকাল থেকে বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত এসব নদীসমূহের ¯্রােতধারা নিয়মিত প্লাবন ঘটিয়ে ভূমিকে করেছে পলিসমৃদ্ধ ও উর্বর, কৃষি কাজকে করেছে সহজতর, জলধারাকে করেছে মৎস্য সম্পদে সমৃদ্ধ। নদী প্রবাহ আর জলবায়ুর আনুকূল্যে সমগ্র এলাকা গড়ে উঠেছিলো অপরূপ সৌন্দর্যের এক বনানীরূপে।
প্রকৃতির স্বাভাবিক ধারায় সৃষ্ট নদ-নদী সমূহের প্রবাহধারা আজ আর সেরূপ নেই। প্রাকৃতিক নিয়মে পলি সঞ্চয়, ভূ-আভ্যন্তরীণ শক্তির প্রভাবে ভূমিরূপে পরিবর্তন, নদীর প্রবাহ পথে মানবসৃষ্ট প্রতিবন্ধকতা ইত্যাদি নানাবিধ কারণে অনেক নদীরই অস্তিত্ব আজ বিলুপ্ত। তাই আজ আমাদের দেশ নানাবিধ দুর্যোগের সম্মুখীন। নদী প্রবাহের সাথে সম্পৃক্ত দুর্যোগ মোকাবেলায় আজ আমাদের সঠিক ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ অত্যন্ত জরুরি। প্রকৃতি সৃষ্ট নদী প্রবাহ ধারা সৃষ্টি মানুষের দ্বারা সম্ভব নয়। তবে পলি সঞ্চয় আর মানবসৃষ্ট প্রতিবন্ধকতা দূর করে দেশের অভ্যন্তর ভাগের নদীসমূহে পানির নিয়মিত সরবরাহ ও চলাচল নিশ্চিত করা সম্ভব।
প্রধান প্রধান নদীসমূহ খনন, মজা নদী সমূহ পুনরুদ্ধার ও নদীসমূহের মধ্যে সংযোগ খাল সৃষ্টি করে নদী সমূহের প্রবাহ সারা বছর নিশ্চিত করা গেলে সকল ধরনের খরা সমস্যা দূর করা ও ভূ-গর্ভস্থ পানির স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনা সম্ভব। আর এজন্য প্রয়োজন দীর্ঘ ও স্বল্পমেয়াদী পরিকল্পনা। নদী প্রবাহ ও সাম্প্রতিককালে সৃষ্ট পানি সমস্যা দূর করার জন্য দূরদর্শী চিন্তা-ভাবনার আলোকে যথাার্থ পরিকল্পনার মাধ্যমে সম্ভাব্য বর্তমান ও ভবিষ্যৎ সমস্যা সমূহ দূর করা সম্ভব।

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • দেশীয় টিভি চ্যানেল থাকবে, না হারিয়ে যাবে
  • পরিবেশ সচেতন মানুষ চাই
  • প্রসঙ্গ : ব্যাংক ঋণ
  • বৈশ্বিক গণতন্ত্র, ব্রেক্সিট এবং বাংলাদেশ!
  • বায়ুদূষণে শিশুরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত
  • আমাদের শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গন
  • মধ্যপ্রাচ্যে নারীশ্রমিক প্রেরণ কেন বন্ধ হবে না?
  • ব্যবসার নামে ডাকাতি বন্ধ করতে হবে
  • কর্মমুখী শিক্ষার সম্প্রসারণ
  • বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন
  • সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন ও কিছু কথা
  • শিক্ষাবিদ ড. মুহাম্মদ মুজাম্মিল আলী
  • আমরা কি সচেতন ভাবেই অচেতন হয়ে পড়ছি?
  • দ্রব্যমূল্যর উর্ধগতি রুখবে কে?
  • আগুনের পরশমনি ছোয়াও প্রাণে
  • শিক্ষার মানোন্নয়নে মহাপরিকল্পনা প্রয়োজন
  • দেওয়ান ফরিদ গাজী
  • বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর হালচাল
  • সিলেটের ছাত্র রাজনীতি : ঐতিহ্যের পুনরুত্থানের প্রত্যাশা
  • নাসায় মাহজাবীন হক
  • Developed by: Sparkle IT