শিশু মেলা

ভূতের সাথে বন্ধুত্ব

নিখিল রায় পূজন প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-০৫-২০১৯ ইং ০০:৩৬:৩১ | সংবাদটি ৯৬ বার পঠিত

শান্তিপুর গ্রামটি ছবির মতো সুরমা নদীর পার ঘেঁেস গ্রামটির অবস্থান। নদী পেরিয়ে গ্রামে প্রবেশ করলে প্রথমে প্রাথমিক বিদ্যালয়টি চোখে পরবে। বিদ্যালয়ের সামনে বিরাট মাঠ। মাঠের পূর্বদিকে ঘন বনজঙ্গলে আবৃত বিরাট একটি বনভূমি। শান্তিপুর গ্রামে সব সময় শান্তি বিরাজমান। আধুনিকতার ছোঁয়া এখানে লাগে নি। অথচ নদীর ওপারের সাথে শহরের সড়ক যোগাযোগ থাকায় নতুন নতুন কলকারখানা আর বসতি গড়ে উঠেছে। শান্তিপুরের লোকজন সহজ সরল জীবন যাপন করে। বিকেল বেলা স্কুল মাঠে ছেলে মেয়েরা দল বেঁধে খেলতে আসে। জীবন, শুভ ও রাহুলরা এই বিদ্যালয়ের ছাত্র। তারা প্রতিদিন বিকেলে ফুটবল খেলে। আজ ওদের বয়েসী একটি নতুন ছেলে এসে ফুটবল খেলতে চাইলো। ছেলেটির হাতে বিস্কুট ও চানাচুরের প্যাকেট। ছেলেরা বিস্কুট ও চানাচুরের প্যাকেটের দিকে লোভাতুর দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো এগুলি কার জন্য? ছেলেটি বললো আমাকে খেলার সুযোগ দিলে তোমাদের জন্য। সবাই রাজী হলো। ছেলেটির নাম রবি। নদীর ওপাড়ে পরিবারের সাথে থাকে। ওর বাবা একটি দোকানে চাকুরী করে। এর পর থেকে রবি ওদের ভালো বন্ধু হয়ে উঠে। প্রতিদিন কিছু না কিছু খাবার নিয়ে আসে। ওদের সাথে খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করে। হাফ টাইমে খাবারগুলি সবাই মিলে খায়। একদিন খেলা শেষে রাহুলের বাড়িতে যাওয়ার পর মনে হলো স্যান্ডেল মাঠে ফেলে এসেছে। সে স্যান্ডেল নিতে মাঠের দিকে রওয়ানা হলো। দিনের আলো নিভে সন্ধ্যা নেমেছে। রাহুল দূর থেকে মাঠের মধ্যে রবিকে বসে থাকতে দেখলো। রাহুল কাছে যাওয়ার আগে রবি উঠে দাঁড়ালো, তারপর জঙ্গলের দিকে হাঁটতে লাগলো রাহুল অবাক হলো-সে ভেবে পাচ্ছে না রবি খেয়াঘাটের দিকে না গিয়ে জঙ্গলের দিকে একা একা যাচ্ছে কেন। ওর কি ভয় নেই। রাহুল পরদিন বিদ্যালয়ে খেলার বন্ধুদের সবাইকে পুরো ঘটনা বলল। সবাই সিদ্ধান্ত নিল আজ খেলা শেষে স্কুল ঘরের পিছনে সবাই লুকিয়ে বসে থেকে রবির গতিবিধি লক্ষ্য করবে। বিকেলে খেলা শেষে সবাই বাড়ি ফিরার কথা বলে স্কুল ঘরের পিছনে গিয়ে লুকিয়ে থাকলো। রবি অনেকক্ষণ মাঠে বসে থাকে। সন্ধ্যা হওয়ার পর উঠে দাঁড়ালো এবং সত্যি সত্যি জঙ্গলের দিকে হাঁটতে থাকলো। রাহুলরা সবাই পিছু নিল। প্রতি পদক্ষেপে রবি অনেক লম্বা হতে লাগলো এবং শুন্যে হাঁটতে থাকলো। শুভ ভয় পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠলো। রবি চিৎকার শুনে পিছন ফিরে তাকালো। ওর দুচোখ যেন দুটি আগুনের গুলা। মুখ দেখা যাচ্ছে না। রাহুল ভয়ে ভয়ে বললো রবি আমরা তোর বন্ধুরা। রবি খসখসে গলায় বললো কিসের বন্ধু চলে যা এখান থেকে নতুবা সবাই মরবে। রাহুলরা সবাই পিছন ফিরে দৌড়ে জঙ্গল থেকে বেরিয়ে আসলো।
ঐদিনের পর রবি আর খেলতে আসেনি। সবাই বুঝলো এত দিন মানুষ ভেবে একটি ভূতের সাথে তারা বন্ধুত্ব করেছিল।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT