শেষের পাতা প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা

রাজনগরে বিরল রোগে আক্রান্ত বাবা-মেয়ে

প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-০৫-২০১৯ ইং ১৭:৩৫:০৩ | সংবাদটি ১৫০ বার পঠিত

রাজনগর (মৌলভী বাজার) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা ঃ রাজনগর উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়নের উত্তরভাগ গ্রামের পিতা রাখাল দাস(৩৪) ও মেয়ে শম্পা দাস (১৪) বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন। অজ্ঞাত রোগে রাখাল দাসের হাতের তালু ও পায়ের তলার চামড়া শক্ত ও খসখসে হয়ে গেছে। শক্ত চামড়া ফেটে গিয়ে হাত ও পায়ে ক্ষত দেখা দিয়েছে। স্কুল পড়–য়া মেয়ে শম্পা দাসেরও হাত-পায়ে একই ধরনের রোগ দেখা দিয়েছে। ভিটেমাটিহীন হত দরিদ্র রাখাল দাসের পক্ষে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ায় বিনা চিকিৎসায় দুর্বিসহ জীবন কাটাচ্ছেন বাবা ও মেয়ে। চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সহায়তা চেয়েছেন রাখাল দাস।
রাখাল দাসের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, রাখাল দাস জন্মের পর থেকে এই রোগে আক্রান্ত। হাতের ও পায়ের চামড়া শক্ত ও খসখসে হয়ে যায়। ফলে হাতের তালু ও পায়ের পাতার চামড়া ফেটে রয়েছে। শক্ত হয়ে যাওয়া চামড়া টুকরো-টুকরো হয়ে প্রায়ই খসে পড়ে। দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা নিলেও এই রোগ কমছে না। যত সময় যাচ্ছে তত যেন রোগটি আরো বেড়ে চলেছে। ডাক্তারদের ব্যবস্থাপত্রে এই রোগকে ‘হাইপারকেরাটসিস’ উল্লেখ করলেও কোনো ঔষধে রোগটি নির্মূল হচ্ছে না। বরং স্কুলে পড়–য়া মেয়ে শম্পা দাসের (১৪) হাত-পায়ে একই ধরনের রোগ দেখা দিয়েছে। বাবার শৈশবে যেমন লক্ষণ ছিল মেয়ের হাতে-পায়ে একই লক্ষণ রয়েছে। নিজের ভিটেমাটি কিংবা জায়গা জমি কিছুই নেই যে বিক্রি করে চিকিৎসা করাবেন। তাই, এই রোগের চিকিৎসায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগিতা প্রত্যাশা করছেন হতদরিদ্র রাখাল দাস ও তার মেয়ে শম্পা দাস।
রাখাল দাসের সাথে কথা বলে জানা যায়, তার মা নিভা রানী দাসের এই রোগ ছিল। তিনি বছর তিনেক আগে মারা গেছেন। রাখাল দাসও জন্মের পর থেকে এই রোগে ভুগছেন। শৈশব থেকে চিকিৎসা নিলেও ‘অজ্ঞাত’ এই রোগটি থেকে নিরাময় পাননি। বরং আগের চেয়ে রোগের বিস্তৃতি আরো বেড়েছে। হাত-পায়ের ব্যথা-যন্ত্রণায় রাতে ঘুমাতে পারেন না। পৈতৃক কোনো ভিটেমাটি না থাকায় দরিদ্র রাখাল দাস তার স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে প্রতিবেশী অসিত দাসের বাড়িতে বসবাস করছেন। সংসার চালাতে ৮ বছর সংবাদপত্র বিক্রি করেছেন। পরিবারের খরচ বেড়ে যাওয়ায় সংবাদপত্র বিক্রি বাদ দিয়ে ২০১৭ সালে সামান্য পুঁজি নিয়ে ফেরি করে মোমবাতি-আগরবাতি বিক্রি করা শুরু করেন। ‘অজ্ঞাত’ এই রোগের চিকিৎসা ও ঔষধ কিনতে গিয়ে নিজের পুঁজিটুকুও শেষ হয়ে গেছে। এখন এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে থেকে সহযোগিতা নিয়ে রাখাল দাসের সংসার চালাতে হয়। প্রতিবন্ধী পরিচয়পত্র থাকলেও ভাতার সুবিধা পাননা বলে জানান তিনি। এদিকে, মেয়ে শম্পা দাস উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়নের বিমলাচরণ বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে ও ছেলে রাজু দাস একই বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে। মেয়ে একই রোগে আক্রান্ত দেখে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন রাখাল দাস। সংসার চালানো যেখানে তার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না সেখানে এই জটিল রোগের চিকিৎসা করানোটা তার কাছে অকল্পনীয়। নিজের না হোক, মেয়ের চিকিৎসার জন্য নিরুপায় পিতা প্রধানমন্ত্রীসহ সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

কুলাউড়ায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে
যুবতীকে পাশবিক নির্যাতন
থানায় মামলা, ধর্ষক গ্রেফতার
কুলাউড়া অফিস ঃ কুলাউড়ায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বেড়ানোর কথা বলে যুবতীকে পাশবিক নির্যাতন করেছে এক যুবক। গত বুধবার উপজেলার তলের চাক নামে এক উঁচু টিলার নির্জন স্থানে নিয়ে তাকে জোর পূর্বক পাশবিক নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনকারী যুবক কামাল মিয়া (২২)। সে বাহারনগর গ্রামের সিকান্দর আলীর ছেলে।
জানা গেছে, উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের বাহারনগর গ্রামের এক ১৭ বছরের যুবতী (ছদ্মনাম) ময়না বেগমকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বেড়ানোর কথা বলে বাসা থেকে নিয়ে যায় কামাল।
পরে পাশর্^বর্তী তলের চাক নামক উঁচু টিলার নির্জন স্থানে নিয়ে তাকে জোর পূর্বক পাশবিক নির্যাতন করে।
এ ব্যাপারে ধর্ষিতা ময়না বেগম গত বুধবার বিকেলে নিজে বাদী হয়ে কামাল মিয়াকে আসামী করে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করে।
কুলাউড়া থানায় মামলা দায়েরের পর পর থানার এসআই বাদল অভিযুক্ত কামাল মিয়াকে আটক করে। ময়না বেগমকে ফরেনসিক টেষ্টের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
মামলার আইও এসআই বাদল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দীর্ঘদিন যাবত তাদের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল। কামাল তাকে টিলার উপর নিয়ে পাশবিক নির্যাতন করে এবং বিয়ে করতে অসম্মতি জানায়। ময়না অত্যন্ত গরীব ঘরের সন্তান সে খালার বাড়িতে থাকতো।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • বাংলাদেশে ১০০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে আমিরাত
  • শিল্পায়নের ক্ষেত্রে সিলেট সম্ভাবনাময় অঞ্চল
  • হাকালুকি হাওরে নারীসহ আটক ৭ জরিমানা দিয়ে মুক্তি
  • সিলেট-৩ নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে ------ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এমপি
  • নবীগঞ্জ ও আজমিরীগঞ্জে অগ্নিকান্ডে ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভস্মীভূত
  • ২১ ঘণ্টা পর স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার
  • কেমুসাস’র ৮৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী কাল
  • ন্যায় বিচার প্রাপ্তিতে বিচারকার্যে জড়িত সরকারের সকল দপ্তরের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ ----------------------কাউছার আহমেদ
  • নবীগঞ্জে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় আরো ১ জন গ্রেফতার
  • দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে
  • ভারত থেকে আসছে না পেঁয়াজ
  • সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা মানুষকে কখনও খালি হাতে ফেরায় না ---------শফিক চৌধুরী
  • শ্রীমঙ্গলে বিপন্ন প্রজাতির হনুমান বিদ্যুৎস্পৃষ্ট
  • ২১ বছরেও বানিয়াচং সাগরদিঘীকে ঘিরে গড়ে উঠেনি পর্যটনকেন্দ্র
  • ৯ম দিনে নগরীতে ‘সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ’র নির্বাচনী প্রচারণা
  • সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদকে পেট্রোলিয়াম ডিলার ও পেট্রোল পাম্প এসোসিয়েশনের সমর্থন
  • ছবি
  • শারদীয় দুর্গোৎসব সফলের লক্ষ্যে পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিনিধি সভা 
  • ডুবে যাওয়া এমভি গলফ আরগোর ১৪ নাবিক উদ্ধার
  • কানাইঘাটে বাল্যবিয়ে পন্ড : জরিমানা
  • Developed by: Sparkle IT