উপ সম্পাদকীয় খোলা জানালা

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বাজেট

কামরুল হাসান খান প্রকাশিত হয়েছে: ২৬-০৫-২০১৯ ইং ০০:২০:১৯ | সংবাদটি ৬৪ বার পঠিত

গত ২ জুন ২০১৮ যুক্তরাজ্যভিত্তিক চিকিৎসা ও জনস্বাস্থ্য সাময়িকী ল্যানসেটের গবেষণায় প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী স্বাস্থ্য সেবার সুযোগ ও মানসূচকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, ভুটান, নেপাল ও আফগানিস্তানের ওপরে এবং শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের নিচে। গবেষণায় যে ১৯৫টি দেশের অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে তাতে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৩। ভারত, নেপাল ও পাকিস্তানের অবস্থান যথাক্রমে ১৪৫, ১৪৯ ও ১৫৪। তালিকায় শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের অবস্থান যথাক্রমে ৭১ ও ৭২। তালিকায় শীর্ষে আছে ইউরোপের দেশ আইসল্যান্ড। অন্যান্য আন্তর্জাতিক গবেষণায় বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার সাফল্যের কথা কমবেশি বলা হয়। আমাদের স্বাস্থ্যসেবার এ অগ্রগতি অবশ্যই প্রশংসনীয়।
বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য বাজেটের লক্ষ্য হচ্ছে স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা খাতে উন্নয়নের মাধ্যমে সবার জন্য সুলভ ও মানসম্মত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা নিশ্চিত করে একটি সুস্থ, সবল ও কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী গড়ে তোলা। ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে মোট বরাদ্দের ৫.০৩ শতাংশ রাখা হয়েছে স্বাস্থ্য খাতের জন্য, যার পরিমাণ ২৩ হাজার ৩৯৩ কোটি টাকা। গত ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগে মোট বরাদ্দ ছিল ২০ হাজার ২৪ কোটি টাকা। ওই বরাদ্দ ছিল বাজেটের ৫.৩৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য খাতে গত বাজেটে মোট বরাদ্দ ৩ হাজার ৩৬৯ কোটি টাকা বা ১৭ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে জাতীয় বাজেটের আকার ২৫ শতাংশ বেড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী একটি দেশে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ জিডিপির কমপক্ষে ৫ শতাংশ এবং বাজেটের ১৫ শতাংশ হওয়া বাঞ্ছনীয়। বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন থেকে দীর্ঘদিন ধরে বাজেটের ১০ শতাংশ দাবি করে আসছে। বর্তমানে স্বাস্থ্য খাতে মাথাপিছু বরাদ্দ বাংলাদেশে ৩২ ডলার, ভারতে ৬১ ডলার, নেপালে ৩৯ ডলার, ভিয়েতনামে ১১১ ডলার, মালদ্বীপে ৭২০ ডলার, শ্রীলঙ্কায় প্রায় ১০০০ ডলার। স্বাস্থ্য বাজেট বাস্তবায়নের প্রধান সমস্যাগুলো হচ্ছে (১) টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এ বাজেট অপ্রতুল। (২) বাজেটে যাই থাকুক এর ব্যয় প্রক্রিয়া খুবই দুর্বল (৩) বাজেট ছাড় প্রক্রিয়া কখনো কখনো বিলম্বিত হওয়ার ফলে বার্ষিক অর্থ বছরের শেষ সময়ে তড়িঘড়ি করে অর্থ অপচয়ের প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের পকেট থেকে চিকিত্সা খাতে খরচ হচ্ছে ৬৭ শতাংশ ফলে প্রতি বছর প্রায় চল্লিশ লাখ লোক দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে যাচ্ছে। বিশ্বে গড়ে পকেট থেকে চিকিৎসা খরচের হার ৩২ শতাংশ।
বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় যুগোপযোগী নীতিমালা বাস্তবায়ন ও টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের প্রতিবন্ধকতাগুলো হচ্ছে (১) অপর্যাপ্ত বাজেট (২) দুর্নীতি (৩) বৈদেশিক সাহায্যের পরিমাণ হ্রাস (৪) আর্থিক জবাবদিহির অভাব (৫) সময়োপযোগী উন্নয়ন পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন পদ্ধতির অভাব (৬) দক্ষ মানবসম্পদ স্বল্পতা। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী, প্রতি ১০০০০ মানুষের জন্য প্রয়োজন ১০ জন চিকিৎসক এবং ৩০ জন নার্স। বর্তমানে বাংলাদেশে এর অবস্থান উল্টো। চিকিত্সক রয়েছে ৫.৫ জন এবং নার্স ২.১ জন। ইতোমধ্যে সরকার ১০ হাজার নার্স এবং ৯৭৯২ জন চিকিৎসক নিয়োগের প্রক্রিয়া গ্রহণ করেছে (৭) অপর্যাপ্ত ভৌতিক অবকাঠামো (৮) শহর গ্রাম পর্যায়ে সম্পদ বণ্টনের অসামঞ্জস্যতা (৯) ধনী দরিদ্রের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সুসম সুবিধা গ্রহণের সুযোগের অভাব।
তারপরও বিশ্বে সমাদৃত বাংলাদেশের যে অর্জনগুলো রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে (১) শিশু ও মাতৃ মৃত্যুর হার হ্রাস (২) টিকাদান কর্মসূচির ব্যাপক সফলতা (৩) কিছু কিছু সংক্রামক রোগ নির্মূল এবং অন্যগুলো নিয়ন্ত্রণে (৪) পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার সফলতা। এখন বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার প্রধান যে লক্ষ্যগুলো বিবেচনায় রাখতে হবে (১) পুষ্টিহীনতা (২) সংক্রামক ও অসংক্রামক ব্যাধি প্রতিরোধ ও প্রতিকার (৩) অত্যাবশকীয় ওষুধ ও ভ্যাকসিনের প্রাপ্যতা ও বিতরণ (৪) শিশু সুরক্ষা ও সুস্থ পরিবেশ (৫) সুস্থ শিশু ও তার স্বাভাবিক বিকাশ (৬) রোগীদের চিকিৎসার জন্য পকেট খরচ হ্রাস করা (৭) সুস্থ জীবন যাপনের জন্য সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করা (৮) শহর ও গ্রাম চিকিৎসা সুবিধার বৈষম্য কমিয়ে সমানুপাতিক সুযোগ বৃদ্ধি ও উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ।

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করা জরুরি
  • বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ এবং বাংলাদেশের বাস্তবতা
  • ভারতের জাতীয় উন্নয়ন ও ভারত মহাসাগর
  • জীবনে শৃঙ্খলাবোধের প্রয়োজনীয়তা
  • চলুক গাড়ি বিআরটিসি
  • জলবায়ু পরিবর্তন ঝুঁকি মোকাবেলায় আমাদের করণীয়
  • নির্ধারিত রিক্সাভাড়া কার্যকর হোক
  • নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা
  • খাদ্যে ভেজাল রোধে জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে
  • মুর্তাজা তুমি জেগে রও!
  • সন্তানের জীবনে বাবার অবদান
  • এবার কুম্ভকর্ণের নিদ্রা ভংগ হোক
  • বন উন্নয়নে মনোযোগ বাড়ুক
  • একজন অধ্যক্ষের কিছু অবিস্মরণীয় প্রসঙ্গ
  • গ্রামাঞ্চলে বৃক্ষ রোপণ
  • শান্তির জন্য চাই মনুষ্যত্বের জাগরণ
  • উন্নয়ন ও জনপ্রত্যাশা পূরণের বাজেট চাই
  • মোদীর বিজয় : আমাদের ভাবনা
  • অধিক ফসলের স্বার্থে
  • টেকসই উন্নয়ন ও অভিবাসন সমস্যা ও সমাধানে করণীয়
  • Developed by: Sparkle IT