শেষের পাতা

আরও ২২ পণ্য বাজার থেকে তুলতে নির্দেশ বিএসটিআইর

ডাক ডেস্ক প্রকাশিত হয়েছে: ১২-০৬-২০১৯ ইং ০১:৩৫:০৮ | সংবাদটি ১৪২ বার পঠিত

 খোলা বাজার থেকে সংগ্রহ করা ৪০৬টি পণ্যের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় অবশিষ্ট ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষা করে ২২টি ব্র্যান্ডের পণ্যকে ‘নিম্ন মানের বলে ঘোষণা করেছে জাতীয় মান নির্ধারণকারী সংস্থা বিএসটিআই।
এসব পণ্য আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে তুলে নিতে কোম্পানিগুলোকে মঙ্গলবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
এর মধ্যে রয়েছে হাসেম ফুডসের কুলসন ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই এবং এস এ সল্টের মুসকান ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ, প্রাণ ডেইরির প্রাণ প্রিমিয়াম ব্র্যান্ডের ঘি, স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের রাঁধুনী ব্র্যান্ডের ধনিয়া গুঁড়া ও জিরার গুঁড়া, চট্টগ্রামের যমুনা কেমিক্যাল ওয়ার্কসের এ-৭ ব্র্যান্ডের ঘি, চট্টগ্রামের কুইন কাউ ফুড প্রোডাক্টসের গ্রিন মাউন্টেন ব্র্যান্ডের বাটার অয়েল, চট্টগ্রামের কনফিডেন্স সল্টের কনফিডেন্স ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ, ঝালকাঠির জে কে ফুড প্রোডাক্টের মদিনা ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই, চাঁদপুরের বিসমিল্লাহ সল্ট ফ্যাক্টরির উট ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ এবং চাঁদপুরের জনতা সল্ট মিলসের নজরুল ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ।
এসব পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করেছে বিএসটিআই।
তবে থ্রি স্টার ফ্লাওয়ার মিলের থ্রি স্টার ব্র্যান্ডের হলুদের গুঁড়া এবং এগ্রো অর্গানিকের খুশবু ব্র্যান্ডের ঘি নিম্নমানের হওয়ায় কোম্পানি দুটির লাইসেন্স বাতিল করেছে বিএসটিআই।
আরও ৮টি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআইয়ের কোনো লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য বাজারজাত করছিল। তাদের নাম প্রকাশ না করে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নিয়োমিত মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিএসটিআই।
বিএসটিআইয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “পণ্যগুলোর মানোন্নয়ন করে পুনঃঅনুমোদন ব্যতিরেকে সংশি¬ষ্ট উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের পণ্য বিক্রি-বিতরণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার হতে বিরত থাকার জন্য এবং সংশি¬ষ্ট উৎপাদনকারীগণকে বিক্রিত মালামাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ প্রদান করা হল।”
যেসব পণ্য এই নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়েছে, তার কয়েকটি কোম্পানির সঙ্গে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলেও তাদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
তবে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিটেন্ট ম্যানেজার রুখসানা বেগম বলেন, “ভোক্তাসহ সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখেই আমাদের সব পণ্য তৈরি করা হয়। বিএসটিআই চাইলে আবারও পরীক্ষা করে দেখতে পারে।”
গত রোজাকে সামনে রেখে বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে তার মান পরীক্ষা করে বিএসটিআই। গত ১ মে প্রথম ধাপে ৩১৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে তারা। সেখানে ৫২টি ব্র্যান্ডের পণ্যকে নিম্নমানের বলে ঘোষণা করা হয়। তবে পরে কয়েকটি পণ্য মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় বিএসটিআই।
এরপর দ্বিতীয় ধাপে বাকি ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হল।

 

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো ৩টি বাসের উদ্বোধন
  • হনুমান আতঙ্কে শ্রীমঙ্গলের লইয়ারকুল গ্রামের মানুষ
  • জনগণের দোরগোড়ায় পুলিশি সেবা নিয়ে যাবার চেষ্টা করছি -----------ডিআইজি কামরুল আহসান
  • সিলেটের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মেলা আজ শুরু
  • রোহিঙ্গা ‘গণহত্যার প্রমাণ পায়নি’ মিয়ানমারের প্যানেল
  • অভিযোগ গঠনের শুনানি ৩০ জানুয়ারি
  • বইমেলায় ‘ধর্মীয় অনুভূতির’ সুরক্ষায় তৎপর থাকবে পুলিশ
  • অসহায় মানুষের দুর্দিনে সহানুভূতি দেখানো আমাদের দায়িত্ব
  • ওসমানী বিমানবন্দরে সতর্কতা
  • দোয়ারাবাজারে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতিসহ ৫ জন জেল হাজতে
  • সমিতির নয়া কমিটির শপথ গ্রহণ
  • দক্ষিণ সুরমা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন
  • সরকারি কর্মচারীদের জবাবদিহিতা নিশ্চিতে নাগরিক সনদ গুরুত্বপূর্ণ
  • মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রীর সিলেট সফরসূচি শুক্রবার
  • সিলেট ও সুনামগঞ্জে বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দিতে পরিকল্পনামন্ত্রী আসছেন শুক্রবার
  • হবিগঞ্জ পুলিশ লাইনস পুকুর থেকে কনস্টেবলের লাশ উদ্ধার
  • জৈন্তাপুরে উৎপাদিত নাগামরিচ রপ্তানী হচ্ছে বিদেশে
  • বিপদগ্রস্ত মানুষের সাহায্য ও সেবাই মানবধর্ম
  • ওসমানীতে সাড়ে ৭ লাখ টাকার সিগারেট সহ যাত্রী আটক
  • টিলাগড়ে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ
  • Developed by: Sparkle IT