শেষের পাতা

আরও ২২ পণ্য বাজার থেকে তুলতে নির্দেশ বিএসটিআইর

ডাক ডেস্ক প্রকাশিত হয়েছে: ১২-০৬-২০১৯ ইং ০১:৩৫:০৮ | সংবাদটি ১১৮ বার পঠিত

 খোলা বাজার থেকে সংগ্রহ করা ৪০৬টি পণ্যের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় অবশিষ্ট ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষা করে ২২টি ব্র্যান্ডের পণ্যকে ‘নিম্ন মানের বলে ঘোষণা করেছে জাতীয় মান নির্ধারণকারী সংস্থা বিএসটিআই।
এসব পণ্য আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে তুলে নিতে কোম্পানিগুলোকে মঙ্গলবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
এর মধ্যে রয়েছে হাসেম ফুডসের কুলসন ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই এবং এস এ সল্টের মুসকান ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ, প্রাণ ডেইরির প্রাণ প্রিমিয়াম ব্র্যান্ডের ঘি, স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের রাঁধুনী ব্র্যান্ডের ধনিয়া গুঁড়া ও জিরার গুঁড়া, চট্টগ্রামের যমুনা কেমিক্যাল ওয়ার্কসের এ-৭ ব্র্যান্ডের ঘি, চট্টগ্রামের কুইন কাউ ফুড প্রোডাক্টসের গ্রিন মাউন্টেন ব্র্যান্ডের বাটার অয়েল, চট্টগ্রামের কনফিডেন্স সল্টের কনফিডেন্স ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ, ঝালকাঠির জে কে ফুড প্রোডাক্টের মদিনা ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই, চাঁদপুরের বিসমিল্লাহ সল্ট ফ্যাক্টরির উট ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ এবং চাঁদপুরের জনতা সল্ট মিলসের নজরুল ব্র্যান্ডের আয়োডিনযুক্ত লবণ।
এসব পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করেছে বিএসটিআই।
তবে থ্রি স্টার ফ্লাওয়ার মিলের থ্রি স্টার ব্র্যান্ডের হলুদের গুঁড়া এবং এগ্রো অর্গানিকের খুশবু ব্র্যান্ডের ঘি নিম্নমানের হওয়ায় কোম্পানি দুটির লাইসেন্স বাতিল করেছে বিএসটিআই।
আরও ৮টি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআইয়ের কোনো লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য বাজারজাত করছিল। তাদের নাম প্রকাশ না করে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নিয়োমিত মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিএসটিআই।
বিএসটিআইয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “পণ্যগুলোর মানোন্নয়ন করে পুনঃঅনুমোদন ব্যতিরেকে সংশি¬ষ্ট উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের পণ্য বিক্রি-বিতরণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার হতে বিরত থাকার জন্য এবং সংশি¬ষ্ট উৎপাদনকারীগণকে বিক্রিত মালামাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ প্রদান করা হল।”
যেসব পণ্য এই নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়েছে, তার কয়েকটি কোম্পানির সঙ্গে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলেও তাদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
তবে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিটেন্ট ম্যানেজার রুখসানা বেগম বলেন, “ভোক্তাসহ সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখেই আমাদের সব পণ্য তৈরি করা হয়। বিএসটিআই চাইলে আবারও পরীক্ষা করে দেখতে পারে।”
গত রোজাকে সামনে রেখে বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে তার মান পরীক্ষা করে বিএসটিআই। গত ১ মে প্রথম ধাপে ৩১৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে তারা। সেখানে ৫২টি ব্র্যান্ডের পণ্যকে নিম্নমানের বলে ঘোষণা করা হয়। তবে পরে কয়েকটি পণ্য মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় বিএসটিআই।
এরপর দ্বিতীয় ধাপে বাকি ৯৩টি পণ্যের মান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হল।

 

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • সাংস্কৃতিক জাগরণের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের প্রত্যয়
  • কৈশোরকালীন পরিবর্তনের সময় অভিভাবকদের সচেতনতা জরুরি--- এম কাজী এমদাদুল ইসলাম
  • তৃণমূল নারী উদ্যোক্তা সোসাইটির ৫ম জাতীয় সম্মেলন আজ
  • মৌলভীবাজারে জোড়া খুন দুই বছরেও শেষ হয়নি তদন্ত
  • সাবেক চা বাগান কর্মকর্তা শফিক আহমদের ইন্তেকাল
  • সুনামগঞ্জের সাবেক জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চানন বালার দুর্নীতির তদন্ত শুরু
  • আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই ছাতক দোয়ারায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে
  • সিলেট জেলা বিএনপির বিক্ষোভ আজ
  • সিলেটে ১৮ লাখ টাকার কসমেটিকস্ ও পিকআপসহ যুবক আটক
  • নেতাকর্মীদের ত্যাগ স্বীকার করতে হবে
  • পাল্টাপাল্টি সমাবেশ আহবান করায় ছাতকে ১৪৪ ধারা জারি
  • চিকিৎসা গ্রাম ডাক্তারের ওপর নির্ভরশীল
  • ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত
  • বিনিয়োগ বাড়াতে সিলেটে শিগ্গিরই বিজনেস সামিট - চেম্বার সভাপতি এটিএম শোয়েব
  • জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দের সাথে চেম্বার নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ
  • সিলেটে আতিক কনভেনশন হলের যাত্রা শুরু
  • দিরাইয়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালন
  • সিলেট স্টেশন ক্লাবে পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত
  • ছবি
  • বিশ্বনাথে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৫
  • Developed by: Sparkle IT