সম্পাদকীয়

থামছে না শহরমুখী জনস্রোত

প্রকাশিত হয়েছে: ১৩-০৬-২০১৯ ইং ০০:২৭:২০ | সংবাদটি ৩৯ বার পঠিত


শহরমুখী জনস্রোত থামছে না। বরং প্রতিনিয়ত এর গতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। গবেষণার তথ্য হচ্ছে, ২০৫০ সাল নাগাদ দেশে নগরীর বাসিন্দা হবে দশ কোটি। তাছাড়া, জীবন জীবিকার সন্ধানে নগরে আসা মানুষগুলো জীবন যাত্রার ব্যয় মেটাতে উল্টো দারিদ্রের শিকার হচ্ছে। কাজের খুঁজে কিংবা উন্নত জীবনের আশায় প্রতিদিনই শহরমুখী হচ্ছে অসংখ্য মানুষ। আবার প্রাকৃতিক দুর্যোগ, নদী ভাঙ্গনসহ অন্যান্য কারণে ভিটেমাটি হারিয়ে অনেকে ছুটে আসছে নগরে। যাদের বেশির ভাগের ঠাঁই হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের বস্তিতে। জরিপে দেখা গেছে, প্রতি বছর ১২ শতাংশ হারে বাড়ছে নগরীর জনসংখ্যা। সেই হিসেবে ২০৫০ সাল নাগাদ দেশের মোট জনসংখ্যার ৫০ শতাংশ শহরাঞ্চলে বসবাস করবে। বর্তমানে দুই কোটি মানুষ অস্থায়ী ভিত্তিতে শহরে বসবাস করছে। অথচ এসব মানুষের জন্য নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে পারছে না সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাগুলো। ফলে আয় বাড়লেও স্বাস্থ্যসেবা, বাসস্থান ও মৌলিক চাহিদা মেটাতে গিয়ে দারিদ্রতা থেকে বেরিয়ে আসতে পারছেনা এসব মানুষ।
শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারা বিশ্বেই জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে নগরবাসীর সংখ্যাও বাড়ছে। বর্তমানে পৃথিবীর জনসংখ্যা সাতশ’ ৬০ কোটি। আগামী ২০৫০ সালে হবে নয়শ’ ৮০ কোটি। বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৫৪ শতাংশের বসবাস শহরাঞ্চলে। ২০৫০ সালে এই হার হবে ৬৬ শতাংশ। অথচ আজ থেকে ৭০ বছর আগে সারা বিশ্বের জনসংখ্যার ৩০ শতাংশ বাস করতো শহরে। অর্থাৎ খুব দ্রুত বাড়ছে বিশ্বে শহরবাসীর সংখ্যা। প্রয়োজনের তাগিদেই বাড়ছে শহর। গড়ে উঠছে মেগাশহর। আধুনিক নাগরিক জীবনের সুবিধা পেতে বিশ্বের লাখ লাখ মানুষ শহরমুখী হচ্ছে। বাংলাদেশও এই ধারার বাইরে নয়। কিন্তু যে আশায় গ্রামের মানুষ আসছে শহরে, তাদের সেই আশা পূরণ হচ্ছে না। দেখা গেছে, ২০০০ সালে নগরের দারিদ্র্য ছিলো ১৪ দশমিক পাঁচ শতাংশ। ২০১৬ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে একুশ শতাংশের ওপরে। বিশেষ করে গ্রাম থেকে আসা দরিদ্র ছিন্নমূল মানুষেরা শহরে এসে যে বস্তিতে আশ্রয় নিচ্ছে, সেই বস্তি এলাকার উন্নতি হচ্ছে না। সার্বিকভাবে বস্তিবাসীর জীবনমানের কোন পরিবর্তন হচ্ছে না। বছর কয়েক আগে সরকারের এক জরিপে জানা গেছে, সারা দেশে ২২ লাখ ৩২ হাজার লোক বস্তিতে বাস করে।
শহরমুখী এই জন¯্রােত ঠেকাতে হলে গ্রামে নাগরিক সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির ওপর জোর দিতে হবে। আর সত্যি বলতে কি, সরকার সেদিকেই ঝুঁকেছে। বিশেষ করে বর্তমান সরকার গ্রামকে শহরে পরিণত করার যে ঘোষণা দিয়েছে তা বাস্তবায়িত হলে মানুষ শহরে এসে বসবাসের কথা চিন্তা করবে না। তবে এখানে অনেকগুলো প্রশ্ন রয়েছে। যোগাযোগ, অবকাঠামো, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে বেশ অগ্রগতি হয়েছে গ্রামীণ এলাকায়, এটা ঠিক, তবে মানুষের সার্বিক জীবনমান কি শহুরে মানুষের জীবনমানের সঙ্গে তুলনা করা যায়? কিংবা সমাজ ব্যবস্থা, মানুষের আচার-আচরণে কি গ্রাম-শহরের পার্থক্য ঘোচানো সম্ভব হয়েছে? তারপরেও আমরা আশাবাদি যে, এই ব্যাপারগুলোর দিকে জোর দেবে সরকার এবং অচিরেই মানুষের শহরমুখী জন¯্রােতে ভাটা পড়বে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT