উপ সম্পাদকীয় খোলা জানালা

নির্ধারিত রিক্সাভাড়া কার্যকর হোক

মো. মনজুর আলম প্রকাশিত হয়েছে: ১৮-০৬-২০১৯ ইং ০১:০২:৩৪ | সংবাদটি ১১৭ বার পঠিত

রিক্সার প্রয়োজন এখনো ফুরিয়ে যায়নি। গ্রাম কিংবা শহরে রিক্সা এখনো জনসাধারণের চলাচলের মাধ্যম। স্বল্প দূরত্বে যাওয়া বা কেনা কাটা করতে রিক্সার জুড়ি নেই। মানুষের এই অতি প্রয়োজনীয় বাহনটি ব্যবহার করে ভাড়া নিয়ে বাক বিতন্ডা কিংবা হাতাহাতি হবে চালক আর যাত্রীর এটা কারোরই কাম্য নয়। প্রায় প্রতিদিনই এমন দৃশ্য আমাদের দেখতে হয়। মনে হয় যেন রিক্সা ভাড়া কার্যকরে কারোরই কোনো দায়ভার নেই। এ নিয়ে ঝগড়াঝাটি, হাতাহাতি কি চলতেই থাকবে! সিলেট শহরে রিক্সার ড্রাইভার ও যাত্রীদের মধ্যে দৃষ্টিকটু এবং লজ্জার অনেক ঘটনা রাস্তায় বের হলেই আমাদের চোখে পড়ে। রিক্সা ড্রাইভারদের অতিরিক্ত ভাড়া দাবির প্রেক্ষিতে ঝগড়া, হাতাহাতি, কথা কাটাকাটি লেগেই আছে। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত ভাড়া অনেক রিক্সার ড্রাইভার জানেই না শুধুমাত্র প্রচারের অভাবে। আর যারা জানে তারাও এই নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা মানেনা।
সিলেটে বেশি রুজি হয় বলে সিলেটের বাইরের জেলার রিক্সাচালকই বেশি। যারা নতুন আসেন তারা যদি দেখতেন যে সমস্ত রিক্সাচালক সিলেটে অবস্থান করছেন তারা নির্ধারিত ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করছেন তবে নতুন চালকরাও সে অনুযায়ী ভাড়া হাকতেন। সিলেট শহরে নতুন, পুরাতন সব রিক্সার চালকই যথেচ্ছা ভাড়া হাকেন এবং আদায় করতে নানা অশালীন ব্যবহার করে থাকেন। রিক্সার যে চালক মাত্র এসেছেন তিনিও কিছু না জেনে না বুঝে ভাড়া অতিরিক্ত আদায় করেন। কারণ তাদের মধ্যে একটা ধারণা বদ্ধমূল। এখানে চাইলেই দিতে হয় নতুবা হেস্তনেস্ত করা যায়। কর্মব্যস্ত মানুষ তাদের গন্তব্যে যেতে চাইলে রিক্সা চালক যাবে না বলেও জানিয়ে দিতে দেখা যায়। অথচ স্কুল কলেজের মেয়েরা, চাকুরীজীবী মহিলা ব্যাংকার, অনেকে দোকানের বিক্রয় কর্মী, পরীক্ষার্থীকে অসহনীয় দুর্ভোগে পড়ে রিক্সা চালকদের দাবী অনুযায়ী অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হয়।
নিজ বাসস্থান কিংবা কর্মস্থলের যাতায়াত করতে স্বল্প আয়ের মানুষ রিক্সা ব্যবহার করে থাকেন। সিলেট শহরের মধ্যেই রয়েছে হযরত শাহজালাল (রঃ) এর মাজার শরীফ। শাহজালাল, শাহপরাণ, চা বাগান, জাফলং, বিছনাকান্দি ইত্যাদি আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় স্থান দেখতে সিলেটের বাইরে থেকে অনেকে সিলেট এসে থাকেন। প্রয়োজনে পর্যটকগণ রিক্সা ব্যবহার করে মহা বিপাকে পড়ে যান। রিক্সা চালক লাগামহীন ভাড়া চাওয়াতে অন্য জেলার লোকদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। তাদের সাথেও ঝগড়া, কথা কাটাকাটি করতে দেখা যায়। এতে করে সিলেটের বড় দুর্নাম হয়ে যাচ্ছে। তথ্য নিয়ে জানা যায় সিলেট সিটি কর্পোরেশন ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে রিক্সা ভাড়া নির্ধারণে একটি কমিটি গঠন করে। সেই কমিটিতে কাউন্সিলারদের মতামত সহ সর্বসাধারণের মতামতের ভিত্তিতে রিক্সাভাড়া নির্ধারণ করা হয়। যা কি-না ২০১৫ সালের অক্টোবর মাস থেকে কার্যকর হওয়ার কথা। নির্ধারিত সে ভাড়ার তালিকায় বিভিন্ন স্থানের ভাড়াসহ প্রতি কিলোমিটার ১০ টাকা এবং প্রতি ঘন্টা ৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। কোর্ট পয়েন্টকে কেন্দ্র করে দূরত্ব ভেদে একেক স্থানের ভাড়া নির্ধারণ করে শহর ও শহরতলীর ৫১টি স্থানে ভাড়ার তালিকার সাইনবোর্ড সাঁটিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু তবুও রিক্সা চালকের অতিরিক্ত ভাড়া চাওয়া এবং বচসা হরদম লেগেই আছে। সিটি কর্তৃপক্ষ যদি নির্ধারিত ভাড়ায় রিক্সা চলাচলে দৃষ্টি দেন তবে এহেন পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে না। বিভিন্ন ব্যাপারে যেভাবে মাইকিং করা হয় রিক্সা ভাড়ার ব্যাপারে মাইকিং করে চালক ও যাত্রীদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারেন। যথাযথ কর্তৃপক্ষ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এ ব্যাপারে সমতা আনতে পারেন। অন্যান্য পরিবহনে যেভাবে ভাড়া নির্ধারিতভাবে আদায় হয় রিক্সায়ও নির্ধারিত ভাড়ার প্রচলন হউক এটা সবাই চায়।

শেয়ার করুন
উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণ
  • জলবায়ু পরিবর্তনই আসল সমস্যা
  • কিশোর অপরাধ
  • আ.ন.ম শফিকুল হক
  • হোটেল শ্রমিকদের জীবন
  • বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও কাশ্মীরের ভবিষ্যত
  • বাংলাদেশে অটিস্টিক স্কুল ও ডে কেয়ার সেন্টার
  • বেদে সম্প্রদায়
  • গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরাতে সুপারিশমালা
  • ত্যাগই ফুল ফুটায় মনের বৃন্দাবনে
  • প্রকৃতির সঙ্গে বিরূপ আচরণ
  • ঈদের ছুটিতেও যারা ছিলেন ব্যস্ত
  • সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের বর্ষপূর্তি : প্রাপ্তি ও প্রত্যাশা
  • আইনজীবী মনির উদ্দিন আহমদ
  • শিশুদের জীবন গঠনে সময়ানুবর্তিতা
  • শাহী ঈদগাহর ছায়াবীথিতলে
  • কিশোর-কিশোরীদের হালচাল
  • বলকানস : ইউরোপের যুদ্ধক্ষেত্র
  • সন্তানের প্রতি অভিভাবকের দায়িত্ব
  • শিক্ষার হার এবং কর্মসংস্থান প্রসঙ্গ
  • Developed by: Sparkle IT