শেষের পাতা পানি কমলেও আতংক কাটেনি ৪ মাস আগে শেষ হয়েছে ড্রেজিংয়ের মেয়াদ,এখনও শুরু হয়নি

মনু ও ধলাই নদী ড্রেজিং না হওয়ায় হুমকিতে মৌলভীবাজারবাসী

প্রকাশিত হয়েছে: ২০-০৬-২০১৯ ইং ০৩:৪২:২৫ | সংবাদটি ১০৯ বার পঠিত

মৌলভীবাজার থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা, হোসাইন আহমদ, : ভারত সীমান্ত বেষ্টিত মৌলভীবাজার জেলা। এ জেলার সবচেয়ে বড় নদী মনু ও ধলাই। দুইটি নদীর উৎপত্তি স্থল ভারত। ওই দুই নদী দিয়ে ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে যে কোনো সময় প্লাবিত হতে পারে দুই নদী তীরবর্তী কমলগঞ্জ, কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদর উপজেলা। এমন পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। শত বছর ধরে নদী দু’টি খনন হয়নি। সর্বশেষ ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু করে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনও শুরুই হয়নি।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত দু-তিন দিনে পানি কিছুটা কমলেও এখনও আতঙ্কে নির্ঘুম রাত পার করছেন নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা। পৌর শহরের অনেকেই মনু নদীর তীর থেকে বাসা পরিবর্তনের চেষ্টা করছেন।
স্থানীয়রা বলছেন, দু’টি নদী ড্রেজিং না করার কারণে ঠিক মতো পানি নিষ্কাশন হচ্ছে না।
জানা যায়, মৌলভীবাজার ও কুলাউড়া অংশের মনু নদীর ২৩ কিলোমিটার নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় ২৩ কোটি ৯০ লাখ ৪০ হাজার টাকার প্রকল্প গ্রহণ করে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ধীন বিআইডব্লিউটিএ। দরপত্রে উল্লেখিত ড্রেজিংয়ের মেয়াদ শেষ হয়ে ৪ মাস পার হলেও এখনও শুরুই হয়নি। পরিবেশবাদীরা মনে করছেন, কাজ না করিয়েই টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি। তাই, মেয়াদ শেষ হলেও এখনও কাজ শুরু করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু করার দাবিতে শীত মৌসুমে স্থানীয় সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নদী চরে বিশাল মানববন্ধন করেন। তার পরেও স্থানীয়দের দাবির দিকে কোনো কর্ণপাত করেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
এদিকে, গত বছর ঈদুল ফিতরের আগের রাতে ভারি বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারের মনু ও ধলাই নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধের ১৩টি স্থান ভেঙে প্রবল বেগে পানি প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়। এতে পায় শতাধিক গ্রাম তলিয়ে কয়েক’শ কোটি টাকার ক্ষতি হয়।
মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, এখন বর্ষা মৌসুম চলছে। বাংলাদেশ অংশের বৃষ্টিতে এ জেলায় তেমন পানি বাড়ে না। যেসব পানি মনু নদ দিয়ে প্রবল আকারে প্রবাহিত হয় তার সবটুকু আসে ভারত থেকে।
জানা গেছে, গত ৫ দিন পূর্বে মৌলভীবাজার সীমান্ত থেকে ৪৮ কিলোমিটিার পূর্বে ‘নলকাটা ব্যারেজ’ দিয়ে বাংলাদেশে পানি বৃদ্ধি পেয়েছিল। ভারত কর্তৃপক্ষ এ ব্যারেজ খুলে দেয়ায়ই একদিন জলমগ্ন থাকে মনু নদ। এ সময় ধলাই নদী’র পানি বিপদসীমার ১৪৫ সে.মি. উপর দিয়ে এবং মনু নদী বিপদ সীমার ২০ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল।
একটি সূত্র জানায়, ভারতের পানির সুষ্ঠু বন্টন নিয়ে আগামী ২২ জুন ভারতের সাথে বাংলাদেশের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এ বৈঠকে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সিলেট উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী অঞ্চল প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দিতে পারেন। এখানে পানির সুষ্ঠু বন্টন নিয়ে বিস্তর আলোচনা হবে।
মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী বলেন, আগামী অক্টোবর পর্যন্ত মৌলভীবাজারের মনু ও ধলাই নদ এলাকায় বন্যার আশংকা রয়েছে।
তিনি বলেন, কেবল ভারত থেকে আসা ঢলে মনু নদে বন্যার সৃষ্টি হয়।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছবি
  • র‌্যাবের অভিযানে ধর্ষণ মামলার আসামীসহ ৪জন গ্রেফতার
  • ‘রেমিটেন্সই বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি’
  • মইনুদ্দিন আহমদ জালালের মতো মানুষ পৃথিবীতে দুর্লভ --- প্রকৌশলী মুহাম্মদ হিলালউদ্দিন
  • ওসমানীনগরে শিক্ষকের ঘর ভাঙচুর মামলার ৪ আসামি রিমান্ডে
  • জগন্নাথপুরে ডোবা থেকে অটোচালকের লাশ উদ্ধার
  • তিন মাস পর ওমান থেকে দেশের পথে সুনামগঞ্জের রাসিক মিয়ার লাশ
  • কমলগঞ্জে খেলার উপকরণসহ ৪ জুয়াড়ি আটক
  • সিলেট সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন সম্পন্ন
  • সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিমন্ডলে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ
  •   রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর কারণে ৮ হাজার একর বন ক্ষতিগ্রস্ত
  • রবীন্দ্র স্মরণোৎসবের প্রতিযোগিতার ফলাফল প্রকাশ
  • বিশ্বনাথে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী জাহাঙ্গীর গ্রেফতার
  • আজ সিলেট প্রেসক্লাব- মুহিবুন্নেছা স্মৃতি সম্মাননা নিচ্ছেন সাংবাদিক কামকামুর রাজ্জাক রুনু
  • প্রয়াত যুবনেতা মইনুদ্দিন আহমদ জালাল স্মরণে অনুষ্ঠান আজ
  • মেডিকেল টিম গঠন ॥ সুস্থতার জন্য দোয়া কামনাএমপি মানিকের মাতা ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি
  • পরিকল্পনামন্ত্রী কাল সিলেট আসছেন
  • আবরারের বাড়িতে যেতে দেয়নি পুলিশ : আমান
  • পদ্মা সেতুর বাস্তব কাজের গতি ৮৪ শতাংশ : সেতুমন্ত্রী
  • সুনামগঞ্জে বিভিন্ন উপজেলায় আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা
  • Developed by: Sparkle IT