শেষের পাতা তামাবিল পরিদর্শনে দিল্লীস্থ বাংলাদেশের হাইকমিশনার

ভারতের সেভেন সিস্টার্সে বাণিজ্য বৃদ্ধিতে দু’দেশের সরকার আন্তরিক

জৈন্তাপুর (সিলেট) থেকে নূরুল ইসলাম প্রকাশিত হয়েছে: ২৫-০৬-২০১৯ ইং ০৩:০৭:৩৫ | সংবাদটি ৩৮১ বার পঠিত
Image

 ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী বলেছেন, শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসার পর বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ব্যাপকভাবে উজ্জ্বল হয়েছে। ভারতের সাথে আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গভীর থেকে গভীরতর হচ্ছে। বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে আমাদের বিদেশ মিশনগুলোর কর্মকর্তাগণ আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
গতকাল সোমবার দুপুর ১টায় হাইকমিশনার তামাবিল শুল্ক স্থলবন্দর, ইমিগ্রেশন কেন্দ্র এবং মেঘালয়ের ডাউকী ইমিগ্রেশন কেন্দ্র পরির্দশন করেন। এ সময় তিনি তামাবিল চুনা পাথর, পাথর ও কয়লা আমদানিকারক গ্রুপ এবং তাবামিল ইমিগ্রেশন ও কাস্টম’স কর্মকর্তাগণের সাথে মতবিনিময় করেন।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ-ভারতের সাথে ব্যবসা বাণিজ্য অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতের আসামসহ সেভেন সিস্টার্সের অন্তর্ভুক্ত রাজ্যগুলোর সাথে বাংলাদেশের ব্যবসা বাণিজ্যের পাশাপাশি পর্যটনশিল্পের উন্নয়ন ও বিকাশে দু’দেশের সরকার কাজ করে যাচ্ছে।
হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী আরো বলেন, ভারত থেকে পাথর ও কয়লা আমদানি কমানো উচিত। দেশীয় শিল্পের প্রতি আমাদের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দকে নজর দিতে হবে। ভারতে বাংলাদেশের অনেক পণ্যের চাহিদা রয়েছে। তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে আসামসহ সেভেন সিস্টার্সভুক্ত রাজ্যগুলোতে চাহিদা অনুযায়ী পণ্য রপ্তানি করার বিষয়ে তিনি ব্যবসায়ীগণকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
তিনি বলেন, সীমান্ত সু-রক্ষায় বিজিবি-বিএসএফ আন্তরিকভাবে কাজ করছে। অবৈধ ব্যবসা বাণিজ্য রোধ করতে উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী সতর্ক রয়েছে। সরকার তামাবিল স্থলবন্দর এলাকার উন্নয়নে অনেক অবকাঠামোগত সুবিধা তৈরি করে দিয়েছে। সরকারের রাজস্ব আয় বাড়াতে এসব স্থলবন্দরের স্থাপনাগুলো স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাজে লাগাতে হবে। তামাবিল ইমিগ্রেশন কেন্দ্র ও কাস্টম’স-এর অবকাঠামো উন্নয়ন ও আধুনিকায়নের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মেঘালয়ের ডাউকী ইমিগ্রেশন কেন্দ্র সংস্কার ও বাংলাদেশি ভ্রমণকারীদের ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত কাজে বিলম্ব হওয়ার বিষয়ে তিনি মেঘালয় সরকারের সাথে আলোচনা করবেন বলে জানান।
তিনি আরও বলেন, আসামের গুয়াহাটিতে আমাদের সহকারী হাইকমিশনার অফিস চালু করা ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় ভারত সরকার বাংলাদেশকে বিভিন্নভাবে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। ভারতের সেভেন সিস্টার্সভুক্ত রাজ্যের মানুষের সাথে সু-সম্পর্ক ও পর্যটকদের সুবিধায় ভারতের বেসরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা স্পাইসজেট আসামের গুয়াহাটি-ঢাকা সরাসরি বিমান ফ্লাইট আগামীমাস জুলাই ১ তারিখ থেকে চালু করা হচ্ছে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে ব্যাপক পর্যটক ভ্রমণ করায় সিলেট-গুয়াহাটি-শিলং সরাসরি বিমান ফ্লাইট চালুর বিষয়ে দু-দেশের উচ্চ পর্যায়ের আলোচনা চলছে। সপ্তাহে অন্তত দু’টি ফ্লাইট চালুর বিষয়ে সরকারের চিন্তা-ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশি নাগরিকদের ভারতীয় ভিসা আরো সহজ করার বিষয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।
তিনি জানান, ভারতীয় নাগরিকদের জন্য বাংলাদেশে ভ্রমণে ভিসা সহজ করা হয়েছে।
হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী তামাবিল ইমিগ্রেশন কেন্দ্র ও কাস্টম’স অফিসের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করার বিষয়ে সরকারের সাথে আলোচনা করার আশ্বাস দেন।
তিনি দুপুর ১টায় তামাবিল স্থলবন্দরে এসে পৌঁছলে হাইকমিশনার ও কমিশন কর্মকর্তাগণকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান তামাবিল কাস্টম’স ও তামাবিল চুনাপাথর, পাথর ও কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের নেতৃবৃন্দ। পরে তিনি বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত সংলগ্ন বধ্যভূমি পরিদর্শন করেন ও মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বীর শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। তখন হাইকমিশনারকে জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম জৈন্তিয়ার ইতিহাস-ঐতিহ্য গ্রন্থ উপহার দেন। দু’দেশের সীমান্ত পরিদর্শনকালে হাইকমিশনারের সহধর্মিণীও তার সাথে ছিলেন।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন গুয়াহাটিস্থ বাংলাদেশের সহকারী হাইকমিশনের ড. শাহ মহম্মদ তানভীর মনসুর, দিল্লীস্থ হাইকমিশন অফিসের প্রথম সচিব শাহেদ আজিজ, কাস্টম’স, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট সিলেটের যুগ্ম কমিশনার মিনহাজ উদ্দিন পাহলোয়ান, তামাবিল স্থলশুল্ক স্টেশনের উপ-কমিশনার মুহাম্মদ ছৈয়দুল আলম, মেঘালয় বিএসএফ’র ৩০ কোম্পানির সিও লে. কর্নেল সাইফুল ইসলাম খান, ভারতের ডাউকী শুল্ক স্টেশনের সুপার দেবাশীষ মোদক, বিজিবি’র এডি মিজানুর রহমান, তামাবিল চুনাপাথর, পাথর ও কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের সভাপতি ও জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম লিয়াকত আলী, সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান মিন্টু, আলহাজ্ব জালাল উদ্দিন আহমদ, সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার হোসেন সেদু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াছ উদ্দিন লিপু, অর্থ সম্পাদক আব্দুল আহাদ, তামাবিল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের এডি পার্থ ঘোষ, তামাবিল ইমিগ্রেশনের (পুলিশ কেন্দ্র) ইনচার্জ এসআই সৈয়দ মওদুদ আহমদ রুমী। এ ছাড়া স্থানীয় ব্যবসায়ী, কাস্টম’স ও ইমিগ্রেশন অফিসের কর্মকর্তাগণ এবং বিজিবি ও বিএসএফ’র কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন
  • শিল্পপতি আব্দুল মোনেমের ইন্তেকাল
  • সব কর্মীকে একসঙ্গে কাজে না ফেরাতে আইএলও’র সতর্কতা
  • দুই মাস বন্ধের পর মসজিদ খুলে দিয়েছে সৌদি আরব
  • জিয়া্উর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীতে দক্ষিণ সুরমায় খাবার বিতরণ
  • তিলপাড়া ইউনিয়নে বিয়ানীবাজার থানা জনকল্যাণ সমিতি ইউকে’র আর্থিক সহায়তা প্রদান
  • জগন্নাথপুরে নলজুর সেতুর সংযোগ সড়ক উদ্বোধন
  • বিয়ানীবাজারের ৪ ইউনিয়নে থানা জনকল্যাণ সমিতি ইউকের আর্থিক সহায়তা প্রদান
  • যুক্তরাজ্য বিএনপির উদ্যোগে পূর্ব লন্ডনের নিউহ্যাম হসপিটালের এনএইচএস ষ্টাফদের জন্য খাদ্য বিতরণ
  • সিলেটে ৮৫০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে দক্ষিণ সুরমা সমাজ কল্যাণ সমিতি
  • ওয়ার্ল্ড বিডি হিউম্যান হেল্প এসোসিয়েশনের কমিটি গঠিত
  • রাধাকান্ত দেবনাথের শ্রাদ্ধানুষ্ঠান আজ
  • ব্যবসায়ী গৌসুল আলম গেদু’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
  • মাধবপুরের আবাবিল সোসাইটির ত্রাণ বিতরণ
  • করোনায় অসহায় ১৮১ পরিবারের পাশে প্রজন্ম প্রত্যাশা
  • হাতিম চৌধুরী ইসলামিয়া হাফিজিয়া দাখিল মাদ্রাসার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ
  • শাল্লায় কমিউনিস্ট পার্টির হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ
  • আরও একশ পরিবারে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিল বন্ধন সমাজ কল্যাণ যুব সংঘ
  • অসহায় পরিবারদের উপহার সামগ্রী দিল সিলেট জেলা ছাত্রলীগ
  • মাধবপুরে সুরমা চা বাগানে ত্রাণ বিতরণ
  • Image

    Developed by:Sparkle IT