সম্পাদকীয় আল্লাহর প্রতি দৃঢ় ঈমান রাখলে অবশ্যই তোমরা বিজয়ী হবে। -আল কুরআন।

নদী ‘জীবন্ত সত্তা’

প্রকাশিত হয়েছে: ১২-০৭-২০১৯ ইং ০১:৩২:১৩ | সংবাদটি ৮৭ বার পঠিত

নদী হচ্ছে ‘জীবন্ত সত্তা’। এই অভিমত হাইকোর্টের। নদ-নদী সুরক্ষার ব্যাপারে হাইকোর্ট সম্প্রতি একটি রায় দিয়েছেন। এতে নদীকে ‘জীবন্ত সত্তা’ ঘোষণা করে বলা হয়- মানুষের জীবন-জীবিকা নদীর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। মানবজাতি টিকে থাকার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে নদী। নাব্য সংকট ও বেদখলের হাত থেকে নদী রক্ষা করা না গেলে বাংলাদেশ তথা মানবজাতি সংকটে পড়তে বাধ্য। ভারত, নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সরকার আইন প্রণয়ন করে নদীকে বেদখলের হাত থেকে রক্ষার চেষ্টা করছে। নদী রক্ষায় আন্তর্জাতিকভাবে জাগরণ শুরু হয়েছে। এখন সবারই ভাবনা পরিবেশের জন্য নদী রক্ষা করতে হবে। দেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চারশ’ ৫০টি নদ-নদীই অবৈধ দখলদারদের দ্বারা আক্রান্ত। দেশের সব নদ-নদী, খাল, জলাশয় ও সমুদ্র সৈকতের সুরক্ষা এবং তার বহুমুখী উন্নয়নে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন বাধ্য থাকবে বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়।
অসংখ্য নদ-নদী হাওর-বাওর, খাল-বিল, ডোবা-জলাশয় নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ। সারা দেশেই আনাচে কানাচে ছোট বড় নদ-নদী, খাল বয়ে গেছে। অনাদিকাল ধরে এদেশে গ্রাম জনপদ গড়ে ওঠেছে নদ-নদীকে কেন্দ্র করে। তাই কোটি কোটি মানুষের জীবন জীবিকা আবর্তিত হচ্ছে নদনদীকে ঘিরেই। যোগাযোগের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে নৌপথ। অতীতে নৌপথই ছিলো যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম। কিন্তু দিনে দিনে হারিয়ে যাচ্ছে সেই ঐতিহ্য। ভরাট হচ্ছে নদ-নদী। প্রভাবশালীরা নদ-নদী দখল করে নানা স্থাপনা নির্মাণ করছে। তাই সংকুচিত হচ্ছে নৌপথ। অতীতে যেসব নদী ছিলো খর¯্রােতা এইসব নদীর অনেকগুলোই এখন মৃতপ্রায়। তাছাড়া, মানচিত্র থেকে অনেক নদীই ইতোমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে। শুষ্ক মওসুমে নৌ চলাচল তো দূরের কথা, তখন এসব নদীর বুকে ফসল চাষ হচ্ছে, খেলাধুলা করছে শিশুরা। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত
দেশে কমপক্ষে আট হাজার কিলোমিটার নৌপথ হারিয়ে গেছে। এখন বর্ষা মওসুমে নৌ পথের পরিমাণ ছয় হাজার কিলোমিটার। আর শুষ্ক মওসুমে তা অর্ধেকে নেমে আসে। এখানে নদীর ভাঙ্গন ও চর জেগে উঠাও বড় বিপর্যয়। দেশের ৫৬ জেলায়ই তীব্র হয়ে ওঠেছে নদী ভাঙ্গন।
নদ-নদী মহান সৃষ্টিকর্তার পক্ষ থেকে মানবজাতির জন্য একটি অনন্য উপহার। প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষার জন্য নদ-নদী, পাহাড়-পর্বত, সাগর, হাওর-বিল অবদান রাখে। কিন্তু নানা কারণে নদীর পানি একদিকে দূষিত হচ্ছে, অপরদিকে ভরাট হচ্ছে ছোট বড় নদী। শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা বিশ্বেই বড় বড় নদী সাগর বিপর্যয়ের মুখে। এই নদী রক্ষায় সচেতনতার বিকল্প নেই। সরকার-জনগণ সব মহলকেই সচেতন হতে হবে। নদী ধংসকারী সবধরণের কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকতে হবে। কিন্তু এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে নানা পরিকল্পনার কথা শোনা গেলেও তার বাস্তবতা চোখে পড়ে না খুব একটা। অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার ও হারিয়ে যাওয়া নদী খননের মাধ্যমে নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে আদালতের নির্দেশনাই মেনে চলবে সরকার। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT