বিশেষ সংখ্যা

সত্য ও ন্যায়ের পক্ষেই আমাদের দৃঢ় অবস্থান

ড. রাগীব আলী প্রকাশিত হয়েছে: ১৮-০৭-২০১৯ ইং ০৩:০৬:০০ | সংবাদটি ১৮৮ বার পঠিত

সময় চলে যায় তার আপন গতিতে। তাকে ধরে রাখা যায়না; যেমন আটকানো যায়না নদীর ¯্রােত। সময়ের ভেলা বেয়ে ৩৫ বছর অতিক্রম করলো দৈনিক সিলেটের ডাক। আজ তার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সত্যি আমি আবেগে আপ্লুত। একটি আঞ্চলিক দৈনিকের ৩৫ বছর পূর্তি নিঃসন্দেহে একটি বড় ঘটনা। সেই সঙ্গে এটি আনন্দের সংবাদও। সিলেটের ডাক এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে পেরেছে শুধুমাত্র পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদের ভালোবাসা আর সহমর্মিতার জন্য। এজন্য আমাদের এই ৩৫ বছরের অভিযাত্রার কৃতিত্বটা পুরো সিলেটবাসীর। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই আনন্দঘন মুহূর্তে সম্মানিত লেখক, পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতাসহ সকলকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা।
সিলেটের ডাক যাত্রা শুরু করেছিলো ১৯৮৪ সালের আজকের এই দিনে। যাত্রার শুরুতেই পাশে এসে দাঁড়ান সিলেটবাসী। তারা প্রথম দিন থেকেই পত্রিকাটি ভালোবেসে হাতে তুলে নেন। আজও আছে হাতে হাতে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে এর চাহিদা। বলা যায়, সিলেটবাসীর নিত্যদিনের কর্মব্যস্ততা কিংবা অবসরের অনিবার্য সঙ্গী হয়ে ওঠেছে সিলেটের ডাক। প্রতি ভোরে সূর্যোদয়ে সচেতন সিলেটবাসী এক কাপ চা-য়ের সঙ্গে এক কপি দৈনিক সিলেটের ডাকই প্রত্যাশা করেন।
সিলেটবাসীর প্রিয় মুখপত্র হয়ে উঠতে চেষ্টা করে চলেছে দৈনিক সিলেটের ডাক তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই। ফলে এই অঞ্চলের সকল ন্যায্য দাবি দাওয়ার ব্যাপারে সোচ্চার থেকেছে সবসময়ই সিলেটের ডাক। শুধু সিলেট নয়, জাতীয় স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সব বিষয়েই পত্রিকাটি যুগান্তকারী ভূমিকা রেখে চলেছে। সঙ্গত কারণেই পাঠকেরা নিজের মনের সুপ্ত কথাগুলোই পত্রিকার পাতায় খুঁজে পেয়েছেন। এভাবে তারা পত্রিকাটিকে একান্ত নিজের মুখপত্র হিসেবেই মেনে নিয়েছেন। আপন করে নিয়েছেন।
সিলেটের ডাক-এর প্রতি সিলেটবাসীর ভালোবাসা আমরা দেখেছি যখন পত্রিকাটি সাময়িক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছিলো। আইনী জটিলতায় ২০১৭ সালে একশ’ ৬৪ দিন পত্রিকাটির প্রকাশনা বন্ধ ছিলো। তখন সিলেটের সর্বস্তরের মানুষ প্রবল আবেগে পরম মমতায় আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। পত্রিকাটির প্রকাশনা ফিরিয়ে দিতে সভা-সমাবেশ, বক্তৃতা-বিবৃতি, স্মারকলিপি দেওয়াসহ বিভিন্নভাবে আমাদের সাহস যুগিয়েছেন। সিলেটবাসীর এই ঋণ আমরা কখনও ভুলবো না। আজকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভক্ষণে আমরা এই সচেতন সিলেটবাসীর প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
এটা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, দৈনিক সিলেটের ডাক সিলেট বিভাগের এক কোটি মানুষের প্রিয় মুখপত্র। শুধু তাই নয়, পত্রিকাটি দেশে বিদেশে ছড়িয়ে থাকা অগণিত সিলেটবাসীর আত্মার খোরাক যুগিয়ে চলেছে। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির যুগে বিশ্বের যেকোন প্রান্তে বসে মানুষ মুহূর্তেই পাঠ করতে পারছে সিলেটের ডাক অনলাইনে। চলার পথে পাঠক সমাজের প্রত্যাশা পূরণে দৈনিক সিলেটের ডাক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সবসময়ই। কোন দলের প্রতি নয়, কোন মতাদর্শের প্রতি নয়, বরং সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে অবস্থান নিয়ে দৈনিক সিলেটের ডাক সবসময় বিশ্বস্থ রয়েছে সিলেটের স্বার্থের প্রতি, এই অঞ্চলের মানুষের প্রতি। বস্তুনিষ্ঠতা, নিরপেক্ষতা ও সিলেটবাসীর প্রতি দায়বদ্ধতাই দৈনিক সিলেটের ডাক-এর মূলমন্ত্র। আগামীতেও দৈনিক সিলেটের ডাক তার অবস্থান থেকে বিচ্যুত হবে না।
যেহেতু সর্বমহলের অতি প্রিয় পত্রিকা সিলেটের ডাক, তাই এর কাছে মানুষের প্রত্যাশাও বেশি। সেই প্রত্যাশার সবটুকু পূরণ করতে হয় তো সক্ষম হইনি আমরা, কিন্তু চেষ্টার কোন কমতি নেই এখন পর্যন্ত। আর এই প্রচেষ্টা আগামীতে আরও জোরদার হবে, প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মাহেন্দ্রক্ষণে রইলো এই দৃঢ় প্রত্যয়।
আজকের এই ঐতিহাসিক দিনে আমি স্মরণ করছি সিলেটের ডাক-এর সফল সম্পাদক আমার সুযোগ্য সহধর্মিনী মরহুম রাবেয়া খাতুন চৌধুরীকে। এই আনন্দঘন মুহূর্তে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি পত্রিকায় কর্মরত নিবেদিতপ্রাণ সাংবাদিক এবং কর্মকর্তা, কর্মচারীদের, যাদের শ্রম-ঘামে সিলেটের ডাক-এর আজকের অবস্থান। সম্মানিত পাঠক, গ্রাহক, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাচ্ছি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।
লেখক : সম্পাদকম-লীর সভাপতি, দৈনিক সিলেটের ডাক।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT