সম্পাদকীয় তোমাদের মধ্যে ঐ ব্যক্তি সর্বোত্তম, যে কুরআন শিখে এবং অন্যকে শেখায়। - আল হাদিস

মশক নিধন অভিযান

প্রকাশিত হয়েছে: ২৫-০৭-২০১৯ ইং ০০:১৩:৩২ | সংবাদটি ১৩৩ বার পঠিত

মশক নিধন অভিযান শুরু হচ্ছে আজ দেশব্যাপী। চলবে ৩১ জুলাই পর্যন্ত। সারা দেশে ভয়াবহ আকারে ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেহেতু ডেঙ্গু জ্বর হচ্ছে মশাবাহিত রোগ, তাই মশক নিধন করলেই এই রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। সাধারণত এডিস মশার কামড়েই মানবদেহে ডেঙ্গু জ্বর ছড়ায়। ইতোপূর্বে ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি রাজধানীতে অনুষ্ঠিত ডিসিদের সম্মেলনে এই নির্দেশনা দেয়া হয়। এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেছেন, কোথাও কোথাও প্রশ্ন ওঠেছে যে, মশা মারার ওষুধ কার্যকর নয়। সেখানে যদি ভেজাল থাকে তবে তা দেখা হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদিত ওষুধই ব্যবহার করা হচ্ছে মশক নিধনে। এর বাহিরে কোন ওষুধ ব্যবহার করা যাবে না।
একদিকে ভয়াবহ বন্যায় লাখ লাখ মানুষের দুর্ভোগ, অপরদিকে দেশব্যাপী ছেলেধরা আতংক, গণপিটুনি, তার সঙ্গে রয়েছে ডেঙ্গু জ্বরের ভয়াবহতা। সবকিছু মিলিয়ে দেশের মানুষ নানা ধরনের ভয়-শংকার মধ্যে রয়েছে। এইসব বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে সরকার নানা ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। ডেঙ্গু জ্বর ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুত। দেশব্যাপী ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা এ পর্যন্ত সাড়ে তিন লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আগামী মাসে তা আরও বাড়বে বলে আশংকা করছেন বিশেষজ্ঞগণ। ইতোমধ্যেই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে কয়েকজনের মৃত্যু হয়েছে। জানা গেছে, ডেঙ্গুর জীবাণু আগের তুলনায় বেশ শক্তিশালী ও প্রাণঘাতী হয়ে উঠছে। আর ডেঙ্গু ছড়ায় এসিড মশা থেকে। অন্যান্য মশা থেকেও নানা ধরনের রোগের বিস্তার ঘটে। তাই ডেঙ্গুসহ নানা ধরনের রোগ থেকে বাঁচতে হলে মশক নিধনই হচ্ছে অতি গুরুত্বপূর্ণ উপায়। সরকার আজ থেকে সপ্তাহ ব্যাপী মশক নিধন অভিযান শুরু করছে। এই অভিযান যাতে কেবল কাগজেপত্রেই সীমাবদ্ধ না থাকে, সেটা নিশ্চিত করতে হবে।
অতীতে বিভিন্ন সময় দেখা গেছে, অনেক অভিযানই শেষ পর্যন্ত হয়ে ওঠেছে ¯্রফে লোক দেখানো। কোন একটি এলাকায় কয়েকজন কর্মী কোন ভিআইপিদের উপস্থিতিতে পার্শ্ববর্তী ড্রেনে কিছু সময় ওষুধ স্প্রে করে সেই ছবি ক্যামেরায় ধারণ করেই দায়িত্ব শেষ করে চলে যায় সংশ্লিষ্টরা। পরে তা মিডিয়ায় দিয়ে প্রচার করা হয় যে, পুরো এলাকায়ই মশার ওষুধ ছিটানো হয়েছে। এ রকম লোক দেখানো ভাওতাবাজীর অভিযান যাতে না হয়, এবং এই অভিযান যাতে শহর নগর গ্রাম সর্বত্রই পরিচালিত হয়, সেটা নিশ্চিত করা জরুরি।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT