সম্পাদকীয় বিদ্যা সমাজের অলংকার এবং শত্রুর সম্মুখীন হওয়ার জন্য অমোঘ কবচ। -আল হাদিস

বাধ্যতামূলক কারিগরি শিক্ষা

প্রকাশিত হয়েছে: ২৯-০৭-২০১৯ ইং ০২:০৬:৪০ | সংবাদটি ৮২ বার পঠিত

বাধ্যতামূলক হচ্ছে কারিগরি শিক্ষা। ২০২১ সাল থেকে সকল বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলকভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত কারিগরি বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা দেয়া হবে এবং নবম-দশম শ্রেণিতে একটি বিষয়ে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। শিক্ষামন্ত্রী সম্প্রতি রাজধানীতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রতি বছর ২২ লাখ লোক শ্রমবাজারে প্রবেশ করে। কিন্তু কর্মসংস্থানের জন্য যে পরিমাণ দক্ষতা দরকার, তা তাদের নেই। ফলে অধিকাংশই দক্ষতা নিয়ে শ্রমবাজারে প্রবেশ করে না। কাজেই তাদের কর্মসংস্থান ঠিকমতো হয় না। আর দেশের যে পরিমাণ উৎপাদনশীলতা থাকার কথা, অভীষ্ট লক্ষ অর্জনে যেভাবে এগিয়ে যাওয়ার কথা সেই কাজটিও ব্যাহত হচ্ছে। তাই জনসংখ্যাকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।
এটা সময়ের দাবী। দেশে বাড়ছে বেকারত্ব। শিক্ষিত অশিক্ষিত সব শ্রেণির মানুষের মধ্যেই বেড়ে চলেছে বেকারত্ব। পরিসংখ্যান ব্যুরো’র বছর খানেক আগের জরিপে দেখা গেছে, দেশে প্রকৃত বেকারের সংখ্যা চার কোটি ৮২ লাখ। তাদের মতে দেশে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা দশ কোটি ৯১ লাখ। এর মধ্যে কর্মে নিয়োজিত ছয় কোটি আট লাখ। বাকি চার কোটি ৮২ লাখ শ্রমশক্তির বাইরে। আর বিশেষজ্ঞদের মতে দেশে প্রকৃত বেকারের সংখ্যা আরও বেশি। এই বেকার জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান হচ্ছে না। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে ‘অদক্ষতা’। অর্থাৎ সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিতদের কাজের সুযোগ দিন দিন সংকোচিত হচ্ছে। বর্তমান শ্রমবাজারে এদেরকে অদক্ষ হিসেবেই অভিহিত করা হচ্ছে। অপরদিকে কারিগরি বা কর্মমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর জন্য শ্রমবাজারে কাজের সুযোগ সম্প্রসারিত হচ্ছে। শুধু দেশে নয়, বিদেশেও এদের কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে। শ্রমবাজারে এই জনগোষ্ঠীকে দক্ষ হিসেবেই অভিহিত করছেন বিশেষজ্ঞগণ।
সরকার দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার লক্ষে কারিগরি শিক্ষার ওপর জোর দিয়েছে। ষষ্ঠ শ্রেণি থেকেই কারিগরি শিক্ষা দেয়া হবে শিক্ষার্থীদের। এই প্রক্রিয়া শুরু হবে আগামী মাস থেকেই। প্রথমে ছয়শত ৪০টি বিদ্যালয় কারিগরি শিক্ষার অন্তর্ভুক্ত করা হবে। পরবর্তীতে তা অন্যান্য বিদ্যালয়ে সম্প্রসারিত করা হবে। শুধু বিদ্যালয় নয়, মাদ্রাসায়ও কারিগরি শিক্ষা চালু করা হবে। পুরো উদ্যোগটি প্রশংসনীয় নিঃসন্দেহে। এক্ষেত্রে দক্ষ শিক্ষক ও অবকাঠামোগত সুবিধা বৃদ্ধির ওপর জোর দিতে হবে। কারণ, সৃজনশীল পদ্ধতি চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত এই সংক্রান্ত দক্ষ শিক্ষকের অভাব পূরণ হয়নি বলে অনেকের অভিমত। কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হলে দক্ষ শিক্ষকের অভাবে এই পরিকল্পনা হয়তো সেভাবে সফলতা পাবে না।

 

 

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT