মহিলা সমাজ

দুঃখ-সুখের ঈদ

অকেয়া হক জেবু প্রকাশিত হয়েছে: ০৬-০৮-২০১৯ ইং ০১:৪২:৫০ | সংবাদটি ১০১ বার পঠিত

ঈদ কথাটা শুনলেই মনে কেমন একটা আনন্দ আনন্দ লাগে। ঈদ কি শুধু আনন্দের বার্তা নিয়ে আসে? আমার কাছে ঈদকে মনে হয় দুঃখ কষ্টে গড়া অন্যরকম একটা দিন। যাদের মা-বাবা, প্রিয় মানুষগুলো ঈদের দিনে কাছে থাকে না, যাদের প্রিয় মানুষগুলো এই ধরণীতে নেই, তাদের কাছে কি ঈদটা আনন্দের বার্তা নিয়ে আসে?
ঈদ এলেই মনে পড়ে যায় অতীতের সব কথা। একটু গভীরভাবে ভাবলেই দেখা যাবে আমরা এই আনন্দময় ঈদটা কিভাবে কাটিয়ে থাকি। ছোটদের কাছে ঈদকে মনে হয় নতুন নতুন জামা কাপড়। মজার মজার খাবার আর সালামি পাওয়ার দিন। কিন্তু সব ছোটরা কি এইভাবে ঈদ কাটাতে পারে? আসলে পারে না, যারা তিন বেলা পেট ভরে খেতেই পারে না, তাদের কাছে ঈদ আবার কী? গরিবেরা যদি তিন বেলা পেট ভরে খেতে পারে এটাই তাদের কাছে ঈদ।
‘স্বজন থেকে স্বজনহারা বন্ধুহারা যারা/ জীবন সংগ্রামে একমাত্র প্রবাসী হলো তারা।’
পরিবারের সুখের জন্য মায়ার বাঁধন ছিন্ন করে যারা দূর প্রবাসে ঈদ কাটায়, তাদের মনের অবস্থাটা কেমন হয়। ঈদের দিনে আনন্দের মাঝে তখন কষ্টটাই বেশি প্রাধান্য পায়। মা-বাবা পরিবার পরিজনের কথা মনে করে এক বুক কষ্ট নিয়ে চোখের জল বিসর্জন দিয়ে তারা ঈদ কাটায়।
‘বদ্ধ ঘরে পড়ে আছি পাইনা স্বজনের দেখা/ স্বজন ছাড়া ঈদ কাটাবো কী করে একা!’
জেল হাজতে যারা থাকে, তারা কী করে ঈদ কাটায়? তাদের কাছে ঈদটা আনন্দের, নাকি কষ্টের? তাহলে ঈদটা শুধুই আনন্দের কি?
‘দু’চোখে কতো স্বপ্ন ছিলো মা-বাবার/ সন্তান যখন বড় হবে থাকবে না আর অভাব।/ মা-বাবার সেই স্বপ্ন অঙ্কুরে হয়ে গেল নষ্ট/ বৃদ্ধাশ্রম পাঠিয়ে মা-বাবাকে দিয়েছে কষ্ট।’
বৃদ্ধাশ্রম কথাটা শুনলে মনের মধ্যে কেমন যেন করে। সারা জীবন কাটিয়ে সেই মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তটা কি পরিবার পরিজনকে ছেড়ে সেই বৃদ্ধাশ্রমে কাটাতে হবে! এটাই কি বিধাতার নিয়ম? তাদের কাছে ঈদটা কি আনন্দের? সম্ভব ও তাদের কাছে ঈদটাকে অমাবস্যার রাতের মতো তিমির মনে হয়। করুণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে অজানা তেপান্তরে। আর সেই সময় শুষ্ক দু’টি আঁখি দিয়ে ঝরে পড়ে কষ্ট মিশ্রিত অশ্রু। সুখ এবং দুঃখ একটি দেয়ালের দু’টি পিঠ। যেখানে সুখ আছে সেখানেই দুঃখ আছে। ঈদ শুধু সুখ নিয়ে আসে না। কিছু কিছু মানুষের জন্য দুঃখ নিয়েও আসে।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT