ধর্ম ও জীবন

আরাফাহের খুতবা : মুসলিম জাহানের অনবদ্য দিকনির্দেশনা

ইমদাদুল হক যুবায়রে প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-০৮-২০১৯ ইং ০১:৩৬:৩০ | সংবাদটি ১১৯ বার পঠিত

“হজ বছরে একবার মুসলমিরে বশি^ সম্মলেন,/ এক কাতারে শামলি সবার হৃদয়, দহে-মন।” হজ মুসলমি উম্মাহর জন্য বশি^ সম্মলেন ও ইসলামী ঐক্যরে প্রতীক। এটি বশি^ মুসলমিরে মহা সম্মলেন কন্দ্রে। এ ধরনরে সম্মলেন অন্য কোনো র্ধম বা জাতরি মধ্যে অনুষ্ঠতি হয় না। একমাত্র তৌহদিবাদী মুসলমানরাই পৃথবিীর দকি দগিন্ত থকেে ছুটে আসে কাবা প্রাঙ্গন।ে এখানে র্বণ ও ভাষার ভদোভদে ভুলে গয়িে সবাই এক কাতারে দ-ায়মান হয়ে একই কণ্ঠে উচ্চারণ করনে- ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা-শারীকালাকা লাব্বায়কি, ইন্নাল হামদা ওয়ান ন’িমাতা লাকা ওয়ালমুল্ক, লা শারীকালাক।’ র্অথাৎ আমি হাজরি, হে আল্লাহ! আমি হাজরি, আপনার কোনো শরীক নইে, আমি হাজরি, নশ্চিয়ই সব প্রশংসা ও নয়িামত আপনারই, আর সব সা¤্রাজ্যও আপনার, আপনার কোনো শরীক নইে।
হজে উপস্থতি হয় বশি^ের নানা দশেরে মানুষ। এ সুযোগে তাদরে সঙ্গে রাজনতৈকি, র্অথনতৈকি, সামাজকি, র্ধমীয় ইত্যাদি বষিয়ে যোগাযোগ করার সুযোগ সৃষ্টি হয়। একে অন্যরে সঙ্গে মলিে মশিে ভাবরে আদান-প্রদান করা হয় যার ফলে হজ আর্ন্তজাতকি যোগাযোগরে একটি উত্তম ক্ষত্রে।
ইসলাম র্ধমরে পাঁচটি মুল স্তম্ভরে মধ্যে পঞ্চমটি হলো হজ। ‘হজ’ শব্দরে আভধিানকি র্অথ বাসনা, আকাঙ্খা বা দৃঢ় সংকল্প ইত্যাদ।ি ইসলামি শরয়িতরে পরভিাষায়- ‘আরবি জলিহজ মাসরে নর্দিষ্টি সময়কাল,ে নর্দিষ্টি পোশাক পরধিান র্পূবক কাবা ঘর তাওয়াফ বা প্রদক্ষণি, আরাফাত ময়দানে অবস্থান, সাফা-মারওয়া সাঈ বা গমনাগমন, মনিা, মুজদালফিায় অবস্থানসহ শরয়িত নর্ধিারতি ও রাসুলুল্লাহ (সা.) প্রর্দশতি র্কাযাদি সম্পাদন করার নামই হজ।’
হজ বশি^ মুসলমিরে র্বাষকি মলিনমলো। আল্লাহ তায়ালা দনিে পাঁচবার জামায়াতে কছিুসংখ্যক লোকরে, তারপর সপ্তাহে একবার জুমার দনিে আরো কছিু বশেি লোকরে, তারপর বছরে দুইবার আরো কছিু বশেি লোকরে, তারপর বছরে একবার হজে আরাফার মাঠে বশি^ের সব মানুষকে একত্রতি করার সুব্যবস্থা করছেনে।
হজ আর্ন্তজাতকি মহা সম্মলেন। এ মহাসম্মলেনরে আয়োজক স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা। নতুবা ইতহিাসরে র্সববৃহৎ এ সম্মলেনটি চৌদ্দ শত বছর ধরে সম্ভব হত না। নানা যুদ্ধ বগ্রিহ ও র্দুযােগরে মাঝওে এ বশিাল সম্মলেনটি সুচারুভাবে সম্পন্ন হয়ে আসছে যুগ যুগ ধর।ে অন্যরা এখানে মহেমান, খোদ আল্লাহ তায়ালা এখানে মজেবান। লক্ষ্য যখন এক ও অভন্নি, তখন দ্বন্ধ ও দলাদলি থাকে না। নানা বভিন্নিতা থকেে এসে এখানে সবাই অভন্নি হয়ে যায়। বশি^ের নানা প্রান্ত থকেে র্ধমপ্রাণ মানুষ এখানে ছুটে আসে নজিস্ব র্অথ।ে কারো অনুদানরে প্রয়োজন হয় না।
কউে সারা জীবন পরশ্রিম করে অল্প অল্প সঞ্চয় করে এবং এখানে একই সময়ে ব্যয় করে ফলে,ে কন্তিু সারা বশি^ের ইতহিাসে কোথাও এরূপ ঘটনা দৃষ্টগিোচর হয় নাই য,ে কোনো ব্যক্তি হজ বা ওমরার জন্য ব্যয় করার কারণে নঃিস্ব ও অভাবগ্রস্ত হয়ে গছে।ে
হজ বশি^ মুসলমিরে ঐক্য ও সংহতরি এক মহা নর্দিশন; যা ঐক্য, সাম্য ও ভ্রাতৃত্বরে শক্ষিা দান কর।ে আজ সমগ্র বশি^ে মুসলমানদরে দূরাবস্থার পছিনে বড় কারণ হলো পরস্পর অনক্যৈ। এই অনক্যৈ থকেে ঐক্যে পৗেঁছার জন্য পবত্রি হজ হতে পারে মুসলমি রাষ্ট্রগুলোর একটি আর্ন্তজাতকি সম্মলেন। এতে প্রতটিি রাষ্ট্ররে র্আথ সামাজকি, সাংস্কৃতকি ও রাজনতৈকি বষিয়গুলোর গভীর র্পযালোচনা র্পূবক র্সাবজনীন ও কল্যাণকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে মুসলমি নতেৃবৃন্দ পদক্ষপে নতিে পারনে। আলোচনা হতে পারে মুসলমি জাতরি বৃহত্তম র্স্বাথে কীভাবে সমগ্র মুসলমি জাতি এক ও অভন্নি হয়ে সামনে এগয়িে যতেে পারে এবং উপযুক্ত র্অথনতৈকি ব্যবস্থা সৃষ্টি করে মুসলমি রাষ্ট্রগুলোকে পরনর্ভিরশীলতার হাত থকেে রক্ষা করে নজিদেরেকে হারানোর ঐতহ্যি ফরিে পতেে করণীয় বষিয় নয়ি।ে
আজ প্রতটিি মুসলমি রাষ্ট্র যে যার খুশমিতো শাসনব্যবস্থা, র্অথনতৈকি ব্যবস্থা, পররাষ্ট্রনীতি গড়ে তোলার কারণে পরস্পররে মধ্যে তরৈি হয়ছেে অবশি^াস, বড়েছেে দূরত্ব।
অপরদকিে নজিদেরে অতীত গৌরবদীপ্ত ইতহিাসরে কথা বমোলুম ভুলে গয়িে নজিদেরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করার জন্য বশে কছিু মুসলমি রাষ্ট্র অমুসলমি রাষ্ট্রগুলোর তাবদোরী করে আসছে যাতে করে আজকে সমগ্র বশি^ে মুসলমি রাষ্ট্্রগুলোতে প্রতনিয়িত অশান্তি লগেে আছ।ে যার পছিনে কলকাঠি নাড়ছে অমুসলমি শক্তশিালী রাষ্ট্রগুলো এবং সাথে পরোক্ষভাবে ইন্দন দচ্ছিে ক্ষমতাশালী মুসলমি নতেৃবৃন্দ।
ফলে দনি দনি র্দুবল হয়ে পড়ছেে মুসলমি দশেগুলোর মধ্যে ভ্রাতৃত্বরে বন্ধন, পারস্পরকি সহযোগতিা, র্অথনতৈকি সহায়তা, সাংস্কৃতকি ভাব-বনিমিয়। ফলশ্রুততিে আজ ইরাক, সরিয়িা, আফগানস্তিান, পাকস্তিান, ফলিস্তিনি, কাশ্মরি, মায়ানমারসহ পৃথবিীর বভিন্নি দশেে মুসলমি নধিন চলছ।ে তার সাথে মধ্যপ্রাচ্যসহ প্রায় সমস্ত মুসলমি দশেগুলোতে শান্তি বনিষ্টরে পাঁয়তারা চলছ।ে অনসৈলামকি সাংস্কৃতকি আগ্রাসনে মুসলমি সভ্যতা আজ পুরোপুরি নয়িোজতি যা থকেে উত্তরণে হজরে ঐতহিাসকি মহামলিন হতে পারে একটি র্কাযকর পদক্ষপে।
‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনি তুলে লক্ষ লক্ষর্ ধমপ্রাণ মুসলমান সমবতে হয় আরাফাতরে ময়দান।ে যখোনে সকলরে উদ্দশ্যেে দয়ো হয় ঐতহিাসকি খুতবা ভাষণ।
এই ঐতহিাসকি খুতবা হয়ে উঠতে পারে মুসলমি জাহানরে এক অনবদ্য দকি নর্দিশেনা। মুসলমি রাষ্ট্রগুলো কীভাবে চলব,ে পররাষ্ট্রনীতি কী হব,ে আর্ন্তজাতকি বশি^ের সাথে আমাদরে সর্ম্পকরে ভত্তিি কী হতে পার,ে র্অথনীতি অবকাঠামো কীভাবে মজবুত ও টকেসই করা যায় এসব বষিয়ে গুরুত্বর্পূণ ইঙ্গতি থাকতে পারে এ খুতবায়। বভিন্নি রাষ্ট্ররে রাষ্ট্রপ্রধানসহ গুরুত্বর্পূণ ব্যক্তর্বিগরে উপস্থতিি থাকে বলে অতি সহজে গুরুত্বর্পূণ সদ্ধিান্ত নওেয়া অনকে সহজ হয়ে উঠতে পার।ে শুধু তা-ই নয়, হজে উপস্থতি মুসলমি জনগোষ্ঠী জানতে পারে বভিন্নি দশেরে প্রাকৃতকি অবস্থা, জলবায়ু, রীতনিীতি ইত্যাদ।ি তাতে করে ভৌগলকি জ্ঞানরে প্রসারতাও বৃদ্ধি পায়। সমকালীন বশি^ সর্ম্পকে জ্ঞান লাভ করা যায় হজরে এ মহা সম্মলেন থকে।ে
তাই আজ সময় এসছেে গভীরভাবে উপলব্ধি করার য,ে হজরে মতো এমন একটি শ্রষ্ঠে ইবাদতরে মৌলকি উদ্দশ্যে কী? শুধুই কী ব্যক্তরি জীবনে আল্লাহর নকৈট্য লাভ করা নাকি আল্লাহর সৃষ্টি জগতে তাঁরই সা¤্রাজ্য ও র্সাবভৌমত্ব প্রতষ্ঠিার দীক্ষা নওেয়া এবং সজেন্য ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস চালানোও এর উদ্দশ্যেরে অর্ন্তগত?
আজ আরব দশেসহ বশি^ের সকল মুসলমি দশেগুলো এক যুগে কাজ করে যতেে হব।ে যাতে করে সকল তাগুতি শক্তকিে পরাজতি করে ইসলামরে সুমহান শক্ষিাকে র্সবস্তরে ছড়য়িে দয়িে বশি^ ভ্রাতৃত্ব ও সংহতি প্রতষ্ঠিা করা যায় এবং নর্যিাততি মানবতাকে মুক্তরি নতুন ভবষ্যিত উপহার দয়ো যায়। তাহলইে কবেল হজরে এই ঐতহিাসকি ও র্সাবজনীন শক্ষিা আমাদরে কাজে লাগব।ে শান্তরি ফল্গুধারা সক্তি করবে অশান্ত পৃথবিী নঃিগৃহীত মানবতাক।ে আল্লাহ আমাদরেকে হজরে সঠকি শক্ষিা র্অজনরে তাওফীক দান করুন।

শেয়ার করুন
ধর্ম ও জীবন এর আরো সংবাদ
  •   সুস্থতা আল্লাহ তা’আলার মহান নেয়ামত
  • মুমিনের মেরাজ
  • যে আমলে মিলবে জান্নাতের ফল লাভ
  • তাফসিরুল কুরআন
  • মুসলমানদের পারস্পরিক সর্ম্পক ভ্রাতৃত্বের
  • মসনবি শরিফের একটি ঘটনা
  • ইসলামে বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব
  • বাইতুল্লাহর সঙ্গে মুসলিম উম্মাহর বন্ধন
  • তাফসিরুল কুরআন
  • আরাফাহের খুতবা : মুসলিম জাহানের অনবদ্য দিকনির্দেশনা
  • কোরবানি ও প্রাসঙ্গিক মাসাইল
  • পবিত্র মদিনা মুনাওয়ারার মর্যাদা
  • তাফসিরুল কুরআন
  • সাবাহি মক্তবের আধুনিক সংস্করণ
  • মুসলিম উম্মাহর একতার নিদর্শন হজ্ব
  • তাফসিরুল কুরআন
  • ন্যায়বিচার একটি ইবাদত
  • সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় : স্নেহ-ভালবাসা
  • মধুর ডাক
  • তাফসিরুল কুরআন
  • Developed by: Sparkle IT