সম্পাদকীয়

আত্মত্যাগের মহান বারতা

প্রকাশিত হয়েছে: ১১-০৮-২০১৯ ইং ০১:২৬:৪৫ | সংবাদটি ৪৪ বার পঠিত

দেশব্যাপী অসহনীয় গরম, বন্যায় বিপর্যস্ত জনজীবন আর ডেঙ্গু আতংকের মধ্যেই মুসলমানদের জন্য এসেছে একটি আনন্দের উপলক্ষ। সেটা হচ্ছে ঈদুল আজহা। আগামীকাল সারাদেশে উদযাপিত হবে মুসলমানদের অন্যতম বৃহত্তম এই ধর্মীয় উৎসব। এই ঈদ মুসলিম উম্মাহর মহামিলনের উৎসব। ভ্রাতৃত্ব সৃষ্টির মহান শিক্ষা দেয় ঈদ। আত্মত্যাগের মহান বার্তা নিয়ে এসেছে ঈদুল আজহা। এই দিনে সামর্থ্যবান সাধ্যমতো পশু কুরবানী দেবেন। আর যাদের সামর্থ্য নেই তারা পশু কুরবানী দেবেন না ঠিকই, তবে তারাও ঈদ করবেন। ঈদের আনন্দে শরীক হবেন ধনী-নির্ধন সকলেই। প্রতিটি মানুষের মনের কালিমা, হিংসা-দ্বেষ দূর করে তাকে একজন পূর্ণাঙ্গ মানুষরূপে গড়ে তোলার শিক্ষা দেয় ঈদুল আজহা। মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় শত্রু হচ্ছে ‘নফস’। এই নফস মানুষকে ভালো কাজে বাধা দেয় আর খারাপ কাজের প্রতি প্রলুব্ধ করে। ঈদুল আজহার ত্যাগের শিক্ষা এই নফসকে ধংস করে দেয়।
আল্লাহ প্রেমের একটি বিস্ময়কর নিদর্শন হচ্ছে ঈদুল আজহা। আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণে কী পরিমাণ ত্যাগ স্বীকার করতে হয়, তার অবিস্মরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন হয় এই ঈদুল আজহায়। কুরবাণীর ইতিহাস খুবই প্রাচীন। বলা হয় সৃষ্টির ঊষালগ্ন থেকেই সূচনা হয় কুরবানীর ধারাবাহিকতা। কুরবানী ইসলামের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যপূর্ণ বিধান। এই বিধান সুচারুরূপে আল্লাহর নির্দেশিত পন্থা অনুযায়ী পালন করার ওপরই এর মাহাত্ম্য নিহিত। আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের নিয়তে নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট ব্যক্তির নির্দিষ্ট ধরনের পশু কুরবানী (জবেহ) করাকে কুরবানী বলা হয়। হজরত ইব্রাহীম (আ.) ও হজরত ইসমাঈল (আ.) দ্বারা সংঘটিত অলৌকিক ঘটনাকে কেন্দ্র করেই হাজার হাজার বছর ধরে উদযাপিত হয়ে আসছে কুরবানীর ঈদ বা ঈদুল আজহা। আরবী কুরুবুন শব্দের অর্থ নৈকট্য লাভ করা, নিকটবর্তী হওয়া। কুরুবুন থেকেই এসেছে কুরবানী। আনন্দ এবং দুঃখ এই দুইয়ের মিশ্র অনুভূতি নিয়েই আসে ঈদুল আজহা প্রতি বছর। হজরত ইসমাইল (আ.) এবং হজরত ইসমাইল (আ.) এর মহান ত্যাগ ও ঈমানী শক্তির দৃঢ়তাকে কিয়ামত পর্যন্ত আগত মানুষের কাছে চিরঞ্জীব করে রাখার জন্যই পবিত্র ঈদুল আজহাকে আমাদের জন্য উৎসব ও পাশাপাশি ত্যাগের দিন হিসেবেও নির্ধারণ করা হয়েছে। তাই কুরবানীর দিনে মানব সন্তানের জন্য কোন কাজই আল্লাহর কাছে এতো প্রিয় হয় না, যতোটুকু হয় প্রিয় রক্ত প্রবাহিত করায়। কুরবানীর মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য অত্যন্ত ব্যাপক ও বিস্তৃত। কিন্তু কুরবানীর সেই শাশ্বত শিক্ষায় আমরা কতোটুকু অনুপ্রাণিত হচ্ছি? একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের অন্তরের তাক্বওয়া বা পরহেজগারীকেই সবচেয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে ইসলাম। আর তাই কুরবানীর সঙ্গে পরহেজগারী ও আল্লাহর নৈকট্যলাভ একই সূত্রে গাঁথা।
ঈদ আসে প্রতি বছর। শুধু ঈদ নয়, আরও অনেক ধর্মীয় তাৎপর্যময় দিবস আসে আমাদের দোয়ারে। কিন্তু এসব বিশেষ দিনের অন্তর্নিহিত তাৎপর্য ও আদর্শ থেকে আমরা অনেক দূরে অবস্থান করছি। দেখা যায় ঈদুল আজহার শিক্ষা থেকে দূরে থাকার রীতিমতো প্রতিযোগিতা হয় এই সমাজে। এটা মূলত আভিজাত্য আর চাকচিক্য প্রদর্শনের প্রতিযোগিতা। প্রতিযোগিতা চলছে দামী পশু কেনার। এই প্রতিযোগিতা কুরবানীর মহান শিক্ষাকে পদদলিত করছে। সামর্থ্যবানেরা কুরবানী দেবেন, আর যাদের সামর্থ্য নেই তারা পশু কুরবানী দেবেন না এটা ঠিক; তবে তাদেরকে অবশ্যই কুরবানী দিতে হয় একটি জিনিসকে। আর সেটা কোন পশু নয়, মনের পশুত্বকে। আর এই কুরবানীটুকু দিতে হয় ধনী-নির্ধন সকলকেই। মনের পশুকে কুরবানী না দিয়ে শুধু পশু কুরবানী দিলে সেটা হবে ¯্রফে লোক দেখানো একটা বিষয়। আমরা যেন এই লোক দেখানো কুরবানী দেয়ার ধারা থেকে দূরে থাকি, সেই শক্তি যেন আমরা পাই; আজকের এই দিনে আমরা তা-ই কামনা করছি মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে। ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে পড়–ক সবার ঘরে সকল স্তরের মানুষের কাছে সমানভাবে। ঈদের শিক্ষায় পরিচালিত হোক সবার জীবন। ঈদ মুবারক।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT