প্রথম পাতা

শেষ মুহূর্তে কেনাকাটার ধুম

আহমাদ সেলিম প্রকাশিত হয়েছে: ১১-০৮-২০১৯ ইং ০১:৩৫:০২ | সংবাদটি ৭৮ বার পঠিত

গরম, যানজট উপেক্ষা করে সিলেটে চলছে শেষ মুহূর্তের জমজমাট ঈদবাজার। পরিবার পরিজন নিয়ে বিপনি বিতানগুলোতে ভিড় করছেন সকল বয়েসী মানুষ। ক্রেতাদের সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন বিক্রেতারা। ক্রেতাদের ভিড় দেখে ব্যবসায়ীরা দারুন খুশি।
পশু বাজারের মতো সমানতালে চলছে নতুন পোশাক কেনাকাটার ধুম। তবে, ঈদের শেষের কয়েকটি দিন বিপনি বিতানগুলো চিরাচরিত নিয়মেই থাকে মুখর।
নগরীর অধিকাংশ ফ্যাশন হাউস এবং বিপনিবিতান ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের ভিড়। এর মধ্যে প্রবাসীও রয়েছেন। দেশের টানে, পরিবারের টানের পাশাপাশি কোরবানী তাদের আরেকটি বড় উপলক্ষ। তবে অধিকাংশ বিপণি বিতানে পুরুষের চেয়ে নারী ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশি। গতকাল শনিবার নগরীর জিন্দাবাজার, নয়াসড়ক, কুমারপাড়া এলাকার বেশ কয়েকটি অভিজাত বিপরীবিতান ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতা-বিক্রেতারা ব্যস্তসময় পার করছেন। বিপনী বিতান ছাড়া ফুটপাতগুলোতেও ক্রেতাদের ছিলো ভিড়। ভ্যাপসা গরম উপেক্ষা করে সবাই কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। বিক্রেতারা বলছেন, ঈদুল আযহার শেষ মুহূর্তের কয়েকটি দিন আমাদের ব্যবসা ভালো হয়। এবারও ব্যবসা আশানুরূপ হচ্ছে। গরম বেশি থাকায় পাতলা সুতির কাপড়ের চাহিদা বেশি। গতকাল মোটামুটি সকল বিপনী বিতানে ক্রেতাদের উপস্থিতি ছিলো আশানুরূপ। সন্ধ্যার পর থেকে অধিকাংশ বিপনী বিতানের প্রধান ফটকে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। আর সড়কগুলোতে ছিলো তীব্র যানজট। বিশেষ করে জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার এবং নয়াসড়ক এলাকায় যানজট ছিলো চোখে পড়ার মতো। সন্ধ্যায় কথা হয় তুলনা ফ্যাশন হাউসের প্রোপ্রাইটর জিয়া উদ্দিন জুয়েলের সঙ্গে। তিনি বলেন, ঈদের কেনাকাটার চাপ খারাপ নয়। শেষ মুহূর্তে এসে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত এই ভিড় থাকবে। নয়াসড়কে কথা হয় লন্ডন প্রবাসী আলী আহমদের সাথে। তিনি বলেন, দেশে ডেঙ্গু আতংক। তারপরও ঈদকে সামনে রেখে কয়েকদিন হলো দেশে এসেছি। নিজেদের তো আছেই, সেই সাথে বাড়ির সবার জন্য ঈদের কেনাকাটা করেছি।
নয়াসড়কের মাহা ফ্যাশনে জাফর খান নামে এক ক্রেতার সাথে কথা হলে তিনি জানান, প্রচন্ড গরমের কারণে ঢিলেঢালা সুতির পোশাক কিনেছি। গরমে দেশীয় সুতি কাপড়ের বিকল্প নেই। ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে কুমারপাড়ার নামিদামি ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে আধুনিক সব পোশাকের পসরা সাজিয়েছেন বিক্রেতারা। আর এসব পোশাকের মধ্যে অধিকাংশই দেশীয় তৈরি। তবে সাধারণ মার্কেটগুলো ঘুরে দেখা যায়, দেশি পোশাকের পাশাপাশি ভারতীয় পোশাকের সমারোহ। ব্লু-ওয়াটার মার্কেটে পরিবার নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন প্রবাসী মেরিনা ইসলাম। তিনি বলেন, রমজান মাসে দেশে আসতে পারিনি। আজ দেশে এসে স্বজনদের জন্য কেনাকাটা করছি। বাড়ির পুরুষরা কোরবানীর পশু কিনতে ব্যস্ত, এই সুযোগে আমরা পরিবারের শিশুদের নিয়ে এসেছি। এদিকে, বন্দরবাজার ফুটপাতের দোকানগুলোতেও ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড় ছিলো লক্ষ্য করার মতো। সন্ধ্যার পর ভিড় বাড়তে থাকে। শাহজালাল উপশহর এলাকার বাসিন্দা সুলতান মিয়া পরিবার নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন নয়াসড়কে। তিনি বলেন, এখানে সব ব্র্যান্ডের পণ্য একই ছাদের নিচে মিলছে। তাই চেষ্টা করছেন পুরো পরিবারের কেনাকাটা এখানেই শেষ করতে। ঈদের দিনে পছন্দের পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে চাই প্রসাধনীও। তাই অলংকার আর কসমেটিকসের দোকানেও ছিল সব বয়েসী নারীর ভিড়। ঈদের পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে গহনা কিনতে দেখা গেছে অনেককেই।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ
  • কবি বেগম সুফিয়া কামালের ২০তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  • খালেদার হাত-পা বেঁকে গেছে : রিজভী
  • লবণের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী
  • লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সরকার
  • উড়োজাহাজে করে আজ গভীর রাতে আসছে পেঁয়াজ
  • দুবাই থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
  • দিনভর দুর্ভোগের পর অটোরিক্সা ধর্মঘট স্থগিত
  • কানাইঘাটে সুরমা নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ভয়াবহ ভাঙন
  • নগরীতে পুলিশের অভিযানে উদ্ধার ২৭৯ মোবাইল
  • সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভা আজ
  • গুজব রোধে নগরীতে মাইকিংয়ের সিদ্ধান্ত
  • অসাবধানতাবশত পুলিশের মিসফায়ারে নারীসহ আহত ২
  • সিলেটে ৪৫ টাকা মূল্যে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি শুরু
  • আকাশছোঁয়া পেঁয়াজের দাম দ্রুত কমছে
  • কর্নেল অলির এলডিপি ভাঙলো
  • শাকিব খানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা
  • সড়ক আইনের প্রতিবাদে ১০ জেলায় বাস বন্ধ
  • পেঁয়াজ : ২৫০০ ‘অসাধু’ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা
  • বাংলাদেশে আরব আমিরাতের আরও বড় আকারের বিনিয়োগ প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর
  • Developed by: Sparkle IT